এটা সোনার বাংলাদেশ না

সকালবেলা উঠে তড়িঘড়ি করে ছুটলাম অফিস এর দিকে।বাস ফাঁকা মহিলার সিটে মহিলা বসা পুরুষের সিটে পুরুষ বসা।কিছু সিট আবার ফাঁকা।বাস চলছে।অনেক্ষণ অতিবাহিত হল ভাড়া নিয়ে কোন পিড়াপিড়ি নেই। কন্টাক্টর কে স্বেচ্ছায় উদ্যোগী হয়ে বললাম।
–ভাড়া নিবেন না
–স্যার নামার আগে দিয়েন এখন আরাম করে বসেন।
রাস্তায় জ্যাম নেই।পথ শিশুরাও নেই।শুনেছি সরকার সবাইকে পুনর্বাসন করেছে।
অফিসএ গিয়ে দেখলাম সবাই কাজে বেস্থ,কয়েকজন কাজের খবর নিতে আসল। তার মধ্যে একজনকে কাঁচুমাচু হয়ে কি জানি বলছে। কান পাতলাম।
–স্যার কাজ কি হয়েছে।
–জী প্রায় শেষ
–যদি বলেন তো বলে ব্যাক পকেটে হাত দিয়ে…
–না না ভাই।এসব চলে না

সকালবেলা উঠে তড়িঘড়ি করে ছুটলাম অফিস এর দিকে।বাস ফাঁকা মহিলার সিটে মহিলা বসা পুরুষের সিটে পুরুষ বসা।কিছু সিট আবার ফাঁকা।বাস চলছে।অনেক্ষণ অতিবাহিত হল ভাড়া নিয়ে কোন পিড়াপিড়ি নেই। কন্টাক্টর কে স্বেচ্ছায় উদ্যোগী হয়ে বললাম।
–ভাড়া নিবেন না
–স্যার নামার আগে দিয়েন এখন আরাম করে বসেন।
রাস্তায় জ্যাম নেই।পথ শিশুরাও নেই।শুনেছি সরকার সবাইকে পুনর্বাসন করেছে।
অফিসএ গিয়ে দেখলাম সবাই কাজে বেস্থ,কয়েকজন কাজের খবর নিতে আসল। তার মধ্যে একজনকে কাঁচুমাচু হয়ে কি জানি বলছে। কান পাতলাম।
–স্যার কাজ কি হয়েছে।
–জী প্রায় শেষ
–যদি বলেন তো বলে ব্যাক পকেটে হাত দিয়ে…
–না না ভাই।এসব চলে না
ঘুষ দিতে গিয়ে থমকে দাঁড়াল লোকটি
অফিসার বলল, কেন লজ্জা দিচ্ছেন ভাই
সরকার তো আমাদের বেতন ভাতা নিয়মিত দিচ্ছে।আমাদের কোন অভাব নেই বললেই চলে।
প্লিজ আপনি কয়েক দিন পড়ে খুঁজ নিয়েন।
লোকটি আর কিছু বলল না।একদম চুপ।
একটা খবর শুনে খুব ভালো লাগল পদ্মা,মেঘনা,বম্রপুত্র নদীতে নতুন করে তিনটি ব্রিজের কাজ শেষ হয়ে গেছে যথা সময়ে।কাজের মানও খুব ভালো হয়েছে।আমেরিকা আমাদের দেশের কাজের খুব প্রশংসা করেছে।তাই তাদের দেশে আমাদের ঠিকাদারদের দিয়ে নির্মাণ কাজ করাতে চাচ্ছে।
কিন্তু শিডিউল পাচ্ছে না। হটাত পিয়ন এসে বলল ওসি সাহেব আমাকে খোঁজ করছেন।অতিথি রুমের দিকে পা বারালাম।অসি সাহেব বল্লেন,কেমন আছেন।কুশল বিনিময় করে বললাম, কি ভাই কোন উপকার করতে পারি আপনার? প্রতিউত্তরে বললেন আমরা আপনাদের উপকারে বেস্থ সর্বদা,লজ্জা দিবেন না প্লিজ। বললেন আজ কি আপনি সকালে মানিব্যাগ ফেলে আসছেন নাকি কোথাও?হাত দিয়ে দেখি তাইতো মানিব্যাগ নেই।বললাম আপনি জানলেন কিভাবে।স্মিত হেসে বললেন,বাস কন্টাক্টর থানায় জমা দিয়ে আসলো।আপনার অফিসের আইডি কার্ড পেয়ে সরাসরি চলে আসলাম।সকাল বেলা আমার মানিব্যাগ গাড়িতে ফেলে আসছিলাম।তাই ফেরত দিতে আসছেন জেনে খুব ভালো লাগল।অনেক চেষ্টা করেও ওসি সাহেব কে এক কাপ চা খাওয়াতে পারলাম না ।কাজ প্রায় শেষ। ৫ টা বেজে গেল।কিন্তু সবাই কাজ করে যাচ্ছে ।বাড়তি সময় কাজ করে সবার ফাইল শেষ করে অফিস থেকে বের হলাম।এখন দিনের কাজ দিনে শেষ করতে হয়।তাই কোন ফাইল আটকে থাকে না। নিচে বাস অপেক্ষা করছে।বাসে উঠলাম।সবাই বলাবলি করছে অনেক বছর হয়ে গেল লোডশেডিং হয় না সবার মধ্যে বেশ শান্তি বিরাজ করছে,তাই অফিস করে কেউ ক্লান্তি বোধ করে না। পথে পুলিশ নেই ট্রাফিক নেই জ্যাম নেই।রাতে খাবার খেয়ে টিভি খুলে দেখা গেল শেখ হাসিনা,খালেদা জিয়া,হুমু এরশাদ,ও অনেক ধর্মীয় নেতারা খুব প্রান খুলে ডিনার ও খুশগল্প করছেন ।টিভিতে শুধু উন্নয়নের খবর, পত্রিকা এখন বের হয় না,কারন গাছ কাটা নিষেধ।আর নিউজ ও তো খুব একটা নেই।সেই দিন কি আর আছে,আমাদের সম্মিলিত সরকার আমাদের প্রানের সরকার নিউজ হতেই দেয় না।এখানে দল প্রথা উঠে গেছে।সবার মধ্যে শান্তি আর শান্তি।কিছু হলেই সবাই বলে।…এটা সোনার বাংলাদেশ না।

১১ thoughts on “এটা সোনার বাংলাদেশ না

  1. ইমো ছাড়া দেওয়ার মতো কিছু
    :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: ইমো ছাড়া দেওয়ার মতো কিছু পাইলাম না। আহা এমন যদি হতো? :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন:

    1. আতিক ভাই ধন্যবাদ।এমন হওয়াটা
      আতিক ভাই ধন্যবাদ।এমন হওয়াটা কি খুব অকল্পনীয়।আমি খুব আশাবাদী, হবেই একদিন এমনতর।

        1. হয়ত এমন করে হবে না।কিন্তু
          হয়ত এমন করে হবে না।কিন্তু কোথায় জানি একটি শক্তি,আলোর রেখা, বার বার আমাকে বলে,নষ্টের খেলার সময় ফুরিয়ে এল।জয় হোক সুমতির।প্রত্যাশায় বুক বাঁধি।রঙ্গিন দিনের স্বপ্ন আঁখি। :চিন্তায়আছি:

  2. দেশবাসী…
    :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:
    :জলদিকর: :জলদিকর: :জলদিকর: :জলদিকর: :জলদিকর: দেশবাসী…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *