হৃতসর্বস্ব

আমার আকাশে রঙ নেই।পথের মাঝে
পড়ে থাকা-
পাথর টুকরোও নেই, যার সাথে কিছুটা
সময় কাটাতে পারি।
কয়েক কাহন বিকেল ছিলো , সন্ধ্যে এসে
নিয়ে গেলো তার বাড়ি।
জানালার পাশে আমের গাছটায় যে দুটো
কাক বাসা বেঁধেছিলো;
তাদের সাথে অনেক কথা হতো,
দুপুর গড়িয়ে যেতো।



আমার আকাশে রঙ নেই।পথের মাঝে
পড়ে থাকা-
পাথর টুকরোও নেই, যার সাথে কিছুটা
সময় কাটাতে পারি।
কয়েক কাহন বিকেল ছিলো , সন্ধ্যে এসে
নিয়ে গেলো তার বাড়ি।
জানালার পাশে আমের গাছটায় যে দুটো
কাক বাসা বেঁধেছিলো;
তাদের সাথে অনেক কথা হতো,
দুপুর গড়িয়ে যেতো।
এখন রোদের ভাষা ভুলে গেছি, সেতো
অনেকদিন হলো-
কার্নিশ বেয়ে নেমে আসা জলে আর
ভেজানো হয়না পা।
কালনীর পাড়ে, শ্রাবণের ভিড়ে-মাঝিদের তড়িঘড়ি
কিংবা নতুন বউয়ের ধুয়ে যাওয়া আলতা,
অবিন্যস্ত চুলের-খেয়াল খুশিমত উড়ে যাওয়া-
দেখতে কেমন হয়? শ্রাবণের বুকে,
এভাবেই গ্রীষ্মের ক্ষয়।
আমার হৃদয় পৃষ্ঠে বহুযুগ হলো-
স্বপ্নের চাষাবাদ হয়না, জল নেই বলে।
অস্তগামী সূর্যের শেষ আলোকছটাও লাগেনা
বপনকৃত দুর্বল স্বপ্নের চারায়।
কবি আর কবিতা নীরবে হারায়,
ক্লেদমাখা খাগ নিয়ে জলের খোঁজে।
জল চাই,একটু জল দেবে?

৩ thoughts on “হৃতসর্বস্ব

  1. চমৎকার লেগেছে / কিন্তু আরপ
    চমৎকার লেগেছে / কিন্তু আরপ ভাল হত যদি অনুচ্ছেদ হিসেবে আরও কিছু যোগ করে লিখতেন প্যারা দিয়ে । :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *