:::… আমার ছুটু কাল …::: || পর্ব ৪ ||

|| পুকুরে ল্যাংটা স্নান ||

ছুটু কালের কথা মনে পড়লেই কেমন কেমন একটা লাগে ।। আমি যখন ক্লাস সেভেনে পরতাম তখন ও পুকুরে ন্যাংটা হইয়া গোসল করতাম ।। অনেক কষ্ট কইরা ন্যাংটা হইতে হইত ।। আমি যখন পুকুরে গোসল করতে যাইতাম বেশির ভাগ সময়ই পুকুরে মহিলা মানুষ থাকতো ।। তাদের দিকে তাকাইয়া প্যানটা খুইলা সাথে সাথে পুকুরে লাফ দিয়া দিতাম ।। আমার জানামতে কোন মহিলা মানুষ আমারে ন্যাংটা হইয়া পুকুরে লাফ দিতে দেখে নাই ।।


|| পুকুরে ল্যাংটা স্নান ||

ছুটু কালের কথা মনে পড়লেই কেমন কেমন একটা লাগে ।। আমি যখন ক্লাস সেভেনে পরতাম তখন ও পুকুরে ন্যাংটা হইয়া গোসল করতাম ।। অনেক কষ্ট কইরা ন্যাংটা হইতে হইত ।। আমি যখন পুকুরে গোসল করতে যাইতাম বেশির ভাগ সময়ই পুকুরে মহিলা মানুষ থাকতো ।। তাদের দিকে তাকাইয়া প্যানটা খুইলা সাথে সাথে পুকুরে লাফ দিয়া দিতাম ।। আমার জানামতে কোন মহিলা মানুষ আমারে ন্যাংটা হইয়া পুকুরে লাফ দিতে দেখে নাই ।।

আমি পুকুর থাইকা উঠতাম না যতক্ষণ না মহিলারা পুকুর থাইকা উঠত ।। মাঝে মাঝে অনেক সমস্যায় পরতে হইত ।। মহিলা মানুষের অনেক ভির থাকলে ।। একের পর এক মহিলা মানুষ আস্তেই থাকতো ।। তখন আর কি করার আছে ।। আমারেও পুকুরে থাকতে হইত ।। এইরকম আসুবিধা হইলে পুকুরের অন্য পাশে যাইয়া উঠতাম যেটা ছিল অনেক কষ্টদায়ক ।। এক দিন তো এলাকার ভাবি আমারে ন্যাংটা হইয়া উঠতে দেইখা ফালায়ছিল ।।

সে আমার দিকে কিছুক্ষণ হা কইরা তাকাইয়া হাইসা দিল ।। আমি তো লাজ্জায় শেষ ।। _ ঢাইকা ধইরা তার দিকে তাকাইয়া খারায় রইছি ।। ভাবি আমারে কইল-

ভাবিঃ তুই কি ন্যাংটা হইয়া গোসল করস ??
আমিঃ :'(
ভাবিঃ তোর আম্মু কি জানে তুই পুকুরে গোসল করস ??
আমিঃ :'(
ভাবিঃ কথা কস না কেন ?? আরে তুই কান্তাছস কেন ??
আমিঃ :'(
ভাবিঃ আচ্ছা যা ।। আমি তোর আম্মুরে কমু না ।। আর কোনদিন ন্যাংটা হইয়া গোসল করিস না ।।
আমিঃ :'(

ভাই একটা হাসি দিয়া চইলা গেলো ।। আমি কিছুই কইতে পারলাম না ।। আসলে আমি একা না আমার সাথে অনেক সাঙ্গ পাঙ্গ ছিল ।। কিন্তু তাদের মধ্যে মনে হয় আমারে নিয়া ২, ৩ জন ন্যাংটা হইয়া গোসল করত ।। আর সবাই পেন্ট পইরাই গোসল করত ।। আমি যাঙই না কেন অন্য ১, ২ জন ন্যাংটা হইয়া গোসল করত কিন্তু আমি করতাম অন্য কারনে ।।

আমি পুকুরে ন্যাংটা হইয়া একটা কারনেই গোসল করতাম ।। আম্মুর কাছ থাইকা মাইর খাওয়ার ভয়ে ।। বাসায় আম্মু আমারে দুপুরে সুন্দর কইরা গোসল করাইয়া মাথায় তেল মাইখা দিত ।। আমি যখন দুপুরের পরে বাসা থাইকা খাওয়া দাওয়া কইরা বাইরে খেলা করতে আসতাম , তখন সাথে কইরা হোমিওপ্যাথির ছোট ছোট কাচের শিশি ( যারা হোমিওপ্যাথির চিকিৎসা লইছেন তারা বুঝবেন ) দিয়া তেল নিয়া আসতাম ।। সাথে কইরা পেন্ট তো আর নিয়া আসতে পারতাম না তাই ন্যাংটা হইয়া গোসল করতাম ।। গোসলের শেষে শরীরে ভালো কইরা তেল মাখতাম , মাথায় তেল দিতাম পুকুরে পাড়ে বইসা ।। তার পর বাসায় যাইতাম ।। চুলতো আর আঁচড়াইতে পারতাম না ।। এলোমেলো হইয়া থাকতো ।। আম্মু মনে করত মনে হয় খেলা কইরা আসছে তাই চুল এইরকম ।। এখন বুঝতাছি আম্মু মনে হয় জানত ।।

এখন আর পুকুরে গোসল তো দুরের কথা নামতেই ভয় পাই ।। কেমন যেন একটা ভয় ।। ঠিক আমিও বুঝি না কেন এমন ভায় পাই ।। তবে সেই দিনগুলা অনেক মিস করি ।।

ফেসবুক লিঙ্কঃ https://www.facebook.com/notes/%E0%A6%86%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%AB-%E0%A6%B2%E0%A7%80/-%E0%A6%86%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%9B%E0%A7%81%E0%A6%9F%E0%A7%81-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AC-%E0%A7%AA-/667833673233467

৩ thoughts on “:::… আমার ছুটু কাল …::: || পর্ব ৪ ||

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *