সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডের মেয়েরাই দায়ী

কিছুদিন আগে সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডে মেয়েদের ছবি থাকাকে দায়ী করেছেন ওবায়দুল কাদের এমপি এবং এ নিয়ে অনেকেই চুলকানি শুরু করছে!!!!!!
কেন যে উনাগো এত চুলকায় তা আমি বুঝিনা :মাথানষ্ট:
আজকে একটা ঘটনা শেয়ার করি —–
সেদিন বাইকে বন্ধুকে নিয়ে পটুয়াখালী যাচ্ছিলাম।কিছুদূর যাওয়ার পর হঠাৎ দেখলাম যে ও একটা রিকশার পিছনে অল্প কইরা দিছে মাইরা O.o।আমি ভয় পাইলাম :(।



কিছুদিন আগে সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডে মেয়েদের ছবি থাকাকে দায়ী করেছেন ওবায়দুল কাদের এমপি এবং এ নিয়ে অনেকেই চুলকানি শুরু করছে!!!!!!
কেন যে উনাগো এত চুলকায় তা আমি বুঝিনা :মাথানষ্ট:
আজকে একটা ঘটনা শেয়ার করি —–
সেদিন বাইকে বন্ধুকে নিয়ে পটুয়াখালী যাচ্ছিলাম।কিছুদূর যাওয়ার পর হঠাৎ দেখলাম যে ও একটা রিকশার পিছনে অল্প কইরা দিছে মাইরা O.o।আমি ভয় পাইলাম :(।
কিছুক্ষণ রিকশাওয়ালার ঝাড়ি খাইলাম,কারন সম্পূর্ণ ভূল ছিল ওর।তারপর বললাম ভাই ভূল হইছে মাফ করেন 🙁
কতদূর যাওয়ার পর ওরে কইলাম –
কিরে কোনদিক তাকাইয়া বাইক চালাও??? :@
ও কইলো দোস্ত বিলবোর্ডের মাইয়াটা দেখছস ;)????
আমি কইলাম তাইলে তো ঠিকই আছে ওবায়দুল :p
ঘটনা শেষ 🙂
এখন কথা হইল,অনেকে বলতেছে ওবায়দুল তো একটা নাস্তিক,নষ্ট ,খারাপ,ওনার চোখ খারাপ।
যারা এই কথা বলে তাগো প্রতি আমার বানী 😉
তোমরা তো ইসপার্ট ড্রাইভার তো তোমরা এক্সিলেন্ট কর ক্যালা? :/
নিশ্চয়ই কারণ ছাড়া করনা …..!!!!!হুদাই ওই বেটারে গালি দেও কেন? ব্যাপারটা মাথায় নেও 🙂

৫০ thoughts on “সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডের মেয়েরাই দায়ী

  1. শূনতে খারাপ লাগ্লেও ওবাইদুল
    শূনতে খারাপ লাগ্লেও ওবাইদুল কাদের যা বলেছেন সত্য । বাস্তবে এটাই বেশি ঘটছে ।

    1. আমারিকার এক জরিপ আর গবেষণার
      আমারিকার এক জরিপ আর গবেষণার ফলাফলও তাই বলে…
      আর আমার মতে ওবায়েদুল কাদের সময়ের সবচে ইনফ্লুয়েনশিয়াল রাজনীতিবিদ।

    1. হুম । বেশ ভাল ডিপ্লোম্যাটিক
      হুম । বেশ ভাল ডিপ্লোম্যাটিক একজন মানুষ তিনি । দেশের জন্য এমন নেতার খুব প্রয়োজন রে ভাই ।

  2. একটা কথাকে নানাভাবে ঘুরিয়ে
    একটা কথাকে নানাভাবে ঘুরিয়ে পেচিয়ে নানাভাবে উপস্থাপন করে তার নানা অর্থ বের করা যায়। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা যখন কথা বলবেন তখন দায়িত্ব নিয়েই কথা বলবেন এটাই কাম্য।

    একটা উদাহরণ দেই। হল মার্ক কেলেংকারী নিয়ে যখন সারা দেশে প্রতিবাদ চলছে, সবাই দোষী ব্যক্তিদের বিচার কামনা করছে, তখন আমাদের মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় বলে বসলেন চার হাজার কোটি টাকা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য কিছুই না। তার কথায় কিন্তু যুক্তি আছে। চার হাজার কোটি আসলেই কিছু না। কিন্তু এই কথাটাই যখন একজন দায়িত্বশীলের কাছ থেকে আপনি শুনবেন তখন কিন্তু আপনার এই কথার প্রভাব হবে ব্যপক। ধরুন ব্যংকে কারো দশ লাখ টাকা জমা আছে। সে যখন এই কথা শুনবে তখন তো তার আত্মার পানি শুকিয়ে যাবে, কারণ ওই দশ লাখ টাকাই তার সম্বল। সে কি করবে ? তার জমানো টাকা সে ব্যংক থেকে তুলে তার কাছে অপেক্ষাকৃত নিরাপদ যে খাত মনে হবে সেই খাতে রাখবে। এখন এর মধ্য দিয়ে কিন্তু ব্যংকের প্রতি তার যে আস্থা সেটা কিন্তু উঠে গেল এবং আগে থেকেই আস্থার সংকটে ভোগা ব্যাংকিং খাত আরো গভীর খাদে পতিত হবে। অর্থমন্ত্রী মহোদয় যদি বলতেন যে যে ঘটনা ঘটছে সরকার চিন্তিত এবং যে ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বা হতে পারে তা কাটিয়ে ওঠার ক্ষেত্রে এবং দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে এই এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, সোজা কথায় আস্থা ফিরিয়ে আনতে যা যা বলা দরকার তা বলতেন তাহলে কিন্তু এত কথা কথা ওঠে না।

    ওবায়দুল কাদের সাহেব যে কথাটা বলেছেন তা সত্যতা ও গুরত্ব তিনি তো তথ্য উপাত্তসহ তিনি বলতে পারতেন। তিনি দেখাতে পারতেন বিলবোর্ড, অহেতুক ডিভাইডার, স্পিড ব্রেকার,বাক ইত্যাদির সাথে সড়ক দুর্ঘটনার কোরিলেশন তারপর তিনি তার সিদ্ধান্ত জানাতেন, কি কি পদক্ষেপ নিতে চান সেটা জানাতেন। সেক্ষেত্রে তার কথার একটা গুরত্ব থাকত। কিন্তু সেরকম হল না এবং কারো ক্ষেত্রেই হয় না।

    1. ভাই এক খান কথা কই – বাঙালি কন
      ভাই এক খান কথা কই – বাঙালি কন জিনিসের গুরুত্ত দিতে শিখছে কইতা পারেন নাকি? কন তো হুনি ? প্রত্যেকটা জিনিস এর পেত কাইটা নাড়িভুঁড়ি বের কইরা আপনারা কন – নাহ লোক টার পেট ে আর একটু নাড়িভুঁড়ি থাকলে ভালা হইত । – এইডা কিছু হইল মিয়া !!!!!!!!! :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

      1. বাঙালী গুরুত্ব দিতে শিখে নাই
        বাঙালী গুরুত্ব দিতে শিখে নাই এইটা বললে ভুল হবে। বাঙালীরে বুঝাইলে বাঙালী বোঝে না এমন নজির কম। প্যাটের ভিত্রে কথা রাইখা আর কথার কথা কইয়া বাঙালীরে এমন বানায়া রাখা হইছে। টিনের চশমা পরায়া রাখলে কেউ একদম চাকাচাক ঝকঝকে তকতকে দুনিয়া দেখবে এইটা আশা করা কি ঠিক ? তবে জাতি হিসেবে বাঙালী বাঁচাল, এটা তো বাংলা কমিউনিটি ব্লগ আর অনলাইন মিডিয়াগুলোতে আমাদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করলেই বোঝা যায়।

        আরেকটা কথা বাঙালী যদি গুরুত্ব দিতে নাই শিখতো তাহলে আপনারে আমারে আজকে করাচির কোন নর্দমা সাফ করতে দেখা যাইতো। বাঙালী যদি গুরত্ব দিতে নাই শিখতো তাইলে আপনি আমি আজকে এই ব্লগে উর্দুতে বাতচিত করতাম। খেয়াল কইরা ভাই, খেয়াল কইরা 🙂

  3. সম্প্রতি বিলবোর্ড বিষয়ের ওপর
    সম্প্রতি বিলবোর্ড বিষয়ের ওপর একটি গবেষনা চালানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। কিভাবে রাস্তা ঘাটে নিরাপদে চলবেন,সে বিষয়েও বিস্তারিত কিছু পরামর্শ দেয়া হয়েছিল ওই গবেষনায়। প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ২ দশমিক ২ মিলিয়ন মানুষ সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়। ‘ন্যাশনাল হাইওয়ে ট্রাফিক সেফটি এডমিনিষ্ট্রেশনের’ তথ্য অনুযায়ী,প্রতি পাঁচজনের একজন দুগঘটনার শিকার হন কেবল অমনোযোগী হয়ে গাড়ি চালানোর কারনে।গবেষনায় বলা হয়,রাস্তার ঢাউস বিলবোর্ডের বিভিন্ন দৃষ্টিগ্রাহী ছবি,চটকদার স্লোগান চালকদের মনোযোগ কেড়ে নেয়। সাম্প্রতিক সময়ে আলবার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষনায় বলা হয়েছে,বিলবোর্ডে কি রয়েছে বা কেমন দেখাচ্ছে,সেটি বড় ব্যাপার নয়।গুরুত্বপুর্ন হচ্ছে বিলবোর্ডের ছবি বা তথ্য দেখে মানুষের অনুভূতি হয় কেমন।
    গবেষনায় বিলবোর্ডের দৃশ্যকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছেঃ
    ১) নেতিবাচক(যেমন-কোনকিছুর অপব্যবহার,ক্যান্সার)
    ২) ইতিবাচক (সমুদ্রসৈকত,অর্থ,উল্লাস) এবং
    ৩) অস্পষ্ট বা নিরপেক্ষ (যেমন-ব্যারেল,ঘড়ি,ইঞ্জিন);

    এখানে নেতিবাচক ও ইতিবাচক-এ দুটি আবেগের সাথে সংশ্লিষ্ট। মূলত এ দুটির কারনেই বেশির ভাগ চালক অমনোযোগী হয়ে পড়েন। আর তখনই দুর্ঘটনা ঘটে।

    কি করতে পারতেন তেমনটা বলার লোক অনেক দেশে কিন্তু কাজ করার লোকতো ভাই এই একজনকেই দেখা যায় সবসময়… গত ২৩ বছরের তথাকথিত গণতান্ত্রিক সরকারগুলোর মধ্যে এই একজনই রাত-দিন জনগনের জন্যে খেটে গেছেন! সবারই কিছু দুর্বলতা থাকতে পারে…
    আমার চোখে যোগাযোগ মন্ত্রী যথার্থই বলেছেন… :salute: :salute: :salute: :salute: :salute: :salute:
    শুধু সড়ক দূর্ঘটনার জন্যে দায়ী না নারীকে পন্য বানানোর জন্যেও সমান দায়ী এই বিলবোর্ড…

      1. আমি ঠিক করছি উলু বনে মুক্তা
        আমি ঠিক করছি উলু বনে মুক্তা ছরাইলেও কখনও ঘাস-লতা-পাতাবিহীন রুক্ষ মরুর বুকে কখনও পস্রাবও করব না!!

  4. আমি নিশ্চিত জনাব ওবায়দুল
    আমি নিশ্চিত জনাব ওবায়দুল কাদের তার বক্তব্যে শুধু মাত্র বিলবোর্ডের কথা বলেন নাই। উনি সড়ক দূর্ঘটনার বিষয়ে বলতে গিয়ে একসময় কথা প্রসঙ্গে বিলবোর্ডের প্রসংগ টেনেছেন। কিন্তু আমাদের মহান সাংবাদিকেরা শুধু বিলবোর্ডের কথাটাই কোট করে সংবাদ করেছেন। ফল যা হওয়ার তাই… এই জিনিস বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় নতুন না।

      1. আপনার সমস্যাটা ঠিক কি বলবেন?
        আপনার সমস্যাটা ঠিক কি বলবেন? সহব্লগারদের সম্মান দিয়ে কথা বলতে না পারলে চুপ থাকাই শ্রেয়। কেউ ভিন্ন মত দিলেই তাকে আক্রমণ কেন করতে হবে?

  5. সব কিছুই মানলাম, কিন্তু
    সব কিছুই মানলাম, কিন্তু মন্ত্রী শাহজাহান খান যখন গরু ছাগল চেনাকেই ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য যথেষ্ট যোগ্যতা মনে করেন, টক শো তে এর পক্ষে গলা চড়ান এবং ওই “যোগ্যতার” ভিত্তিতে হাজার হাজার ড্রাইভিং লাইসেন্স আদায়ও করে নেন তখন সেটা কি “বিলবোর্ড থিওরির” চেয়ে এক্সিডেন্ট এর আরো ভয়াবহ কারণ হয়ে দাড়ায় না? তর্কের খাতিরে ধরেন সব বিলবোর্ড নামিয়ে ফেললাম, কিন্তু মন্ত্রী শাহজাহান খানের গরু “গরু ছাগল” সার্টিফিকেটধারী হাজার হাজার “ওস্তাদ” দের সরাবেন কিভাবে? মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাহেব তো এই ব্যাপারে নিশ্চুপ, নাকি তিনি মন্ত্রী শাহজাহান খানের গরু “গরু ছাগল” সার্টিফিকেটের বিষয়ে “অবগত নন”?

      1. আমি ঘাস খেতে চাইলাম কবে? কোন
        আমি ঘাস খেতে চাইলাম কবে? কোন একটা বিষয় নিয়ে বিতর্ক হওয়া ভাল। প্রত্যেকে তার নিজস্ব মতামত দেবে, সেখান থেকেই সঠিক একটা ফলাফল আসবে। আপনার কথার বিপরীতে আমিও তো একটা আপত্তিকর কথা বলতে পারি, পারি না? কিন্তু সেটা আমার বিচারে ঠিক হবে না। আপনি চাইলে আমার এই মন্তব্যের বিপরীতে আরেকটা “ঘাস খাওয়া” টাইপ মন্তব্য করতে পারেন। তাতে কি আপনার ব্যক্তিগত ইমেজ আরো বাড়বে? বাড়লে করতে পারেন। সেটা আপনার অভিরুচি। এখন আপনি যদি এমন মনোভাব দিয়ে পোস্ট দেন যে “আমার মতামতের উল্টা যে বলবে, তারেই অপমান করব” তাহলে সেটা দয়া করে উল্যেখ করে দিবেন। সেক্ষেত্রে বিতর্কে অংশ গ্রহন করব না। কারন একটা জমজমাট বিতর্ক হবে, অনেক কিছু জানা যাবে, এই আশা নিয়েই কিন্তু আমরা মন্তব্য করতে বসি। মনে রাখবেন, আমি এই বিতর্কে অংশ গ্রহন না করলেও আপনার বা আমার বা অন্য কারোই কোন লাভ-ক্ষতি কিছুই হত না। কিন্তু সবাই অংশগ্রহন করি ওই একটা আশা নিয়ে, শিক্ষিত লোকেদের মধ্যে সুস্থ বিতর্ক হবে, সবাই আলোচনা করবে, সবাক লাভবান হবে। এর বেশী কিছু কিন্তু না।

        আরেকটা কথা, হয়ত আপনি অনেক সুশিক্ষিত, আদব-কায়দা সম্পন্ন, সংস্কৃতি মনা উচ্চ বংশের সন্তান, কিন্তু আমরা যারা ব্লগে আসি, তারা অনেকে উচ্চ বংশ না হলেও কিছুটা লেখাপড়া জানা পরিবার থেকে আসা। তাই বংশ পরিচয়ের জন্য না হোক, শিক্ষার জন্যে হলেও তো সামান্য কিছুটা সম্মান আশা করতে পারি।

        এবার আবার আসি বিলবোর্ড থিওরিতে। বিলবোর্ডের কারনে কত দূর্ঘটনা ঘটে সেটার জন্য পরিসংখ্যান লব্ধ তথ্য দরকার। তারিক লিংকন ভাইয়ের মন্তব্য অনুযায়ী আমেরিকায় এই পরিসংখ্যান চালানো হয়েছে। কিন্তু “গরু ছাগল” সার্টিফিকেটধারী হাজার হাজার “ওস্তাদ” দের কারেন দূর্ঘটনা ঘটে সেটা বোঝার জন্য সাধারন বোধ বুদ্ধি থাকাই যথেষ্ট। পরিসংখ্যান জানার দরকার নেই। বি.আর.টি.এ প্রতিদিন টাকা খেয়ে আনফিট গাড়িকে ফিটনেস সার্টিফিকেট দিচ্ছে, পয়সা খেয়ে টেস্ট ছাড়া লাইসেন্স দিচ্ছে, আর দোষ হল বিল বোর্ডের? এক বি.আর.টি.এ কে properly functional করতে পারলেই সারা দেশে দূর্ঘটনা অনেক কমে যাবে। এটা সহজ সত্য। কোন এলাকায় গিয়ে রাস্তা কেন ভাঙ্গা এই প্রশ্নে রোডস এন্ড হাইওায়েজ এর কোন এক প্রকৌশলী সাময়িক বরখাস্ত করা, হঠাৎ একদিন বি.আর.টি.এ অফিসে গিয়ে চড়াও হওয়া, রেলের কর্মীকে চড় মারা, বিলবোর্ড থিওরি দেওয়া সোজা, মিডিয়া কভারেজ পাওয়া যায়। লোকে ভালো বলে। কিন্তু সড়ক যোগাযোগ নিরাপদ রাখার কয়েকটি মূল Controlling authorityর অন্যতম বি.আর.টি.এ কেই তিনি নিয়ন্ত্রন করতে পারছেন না, “গরু ছাগল” সার্টিফিকেটধারী হাজার হাজার “ওস্তাদ” দের ওস্তাদ শাহজাহান খান মন্ত্রীকে থামাতে পারছেন না, তাহলে ওনার সাফল্য কোথায়? তবে একটা বিষয়ে আমি তাকে ধন্যবাদ দেই, তিনি অন্য মন্ত্রীদের মত উল্টাপাল্টা মন্তব্য করা থেকে নিজেকে বিরত রাখেন।

        এস আর শুভ ভাই সহ সকল অংশগ্রহনকারী ভাই-বোনদের ধন্যবাদ, কারন সবার মন্তব্য থেকেই কিছু না কিছু জানতে পেরেছি। আমি আর এই পোস্টের বিপরীতে কোন মন্তব্য দিব না। অরুচিকর বক্তব্য থেকে দূরে থাকাই শ্রেয় মনে করি। সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন।

  6. হায়রে আমরা এমন একটা দেশে বাস
    হায়রে আমরা এমন একটা দেশে বাস করি যেখানে মন্ত্রী আমলাদের সাধারণ মানুষ হবার যোগ্যতা নেই। নইলে পরে তাদের ভুলগুলো নিয়ে এতো মাতামাতি কেন হয়? এই আওয়ামী সরকারে একজন যোগ্য মন্ত্রী হলেন ওবায়েদুল কাদের যিনি তৃণমূল পর্যায় থেকে উঠে এসেছেন। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই যেভাবে কাজ করে চলেছেন উনি সেটিকে কতবার মর্যাদা দিয়েছেন আপনারা জানতে পারি? অথচ আজ উঠে পড়ে সেটি নিয়ে তামাশায় বসে গেছেন সকলে।

    1. সহমত সুমিত ভাই এর সাথে ।
      সহমত সুমিত ভাই এর সাথে । আসলেই আপনারা কিছু মানুষ এই মানুষ টার ভাল রাইখা খালি খুত ধরতাছেন । অবস্থা এরম যে – ”গরুর দুধ দুইয়া আপনার পেটে ঢাইলা দিলেও কইবেন যে – এ. দুধে ভেজাল – ৯৯।৯৯ % পানি । !!!!!! 😀 :কানতেছি: 😀 😀 :কানতেছি: 😀 😀 😀

    2. সুমিত দা চরম একখান কথা কইছেন
      সুমিত দা চরম একখান কথা কইছেন 🙂
      আমি ওবায়দুল কাদেরের কুন ত্রুটি খুইজা পাইনা 🙁

      1. একটু খেয়াল করে ভাই, উপরে
        একটু খেয়াল করে ভাই, উপরে তুলতে তুলতে এতো বেশি তুলে ফেলেন না । উনি কিছুটা ভালো করছেন সেটা ঠিক আছে । তাই বলে ঈশ্বর, ভগবান বানিয়ে ফেলেন না ।

        1. ভাই যদি ফেরেশতার সাথেও তুলনা
          ভাই যদি ফেরেশতার সাথেও তুলনা করলেও বা আপনার কি?
          ভাল কাজ সহ্য হয় না ??????

  7. যে কোন বিষয়ে হুট করে একটা
    যে কোন বিষয়ে হুট করে একটা মন্তব্য করা আমাদের স্বভাব! ভালটা অবশ্যই বলিনা, শুধু ভূল খোঁজার চেষ্টায় ব্যস্ত ! এটা থেকে বের না হলে জাতির উন্নতি সম্ভব নয়………

  8. সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডের
    সড়ক দূর্ঘটনায় বিলবোর্ডের মেয়েরাই দায়ী
    — খুবই আপত্তিকর একটা শিরোনাম ! নারীকে দায়ী করে এক ধরণের সুখ পুরুষ পেয়ে থাকে, কিন্তু মূল কারণটা আড়াল করে রাখে । :মানেকি:

    1. ভাই বোঝার ভুল বাড়ি রাখেন
      ভাই বোঝার ভুল বাড়ি রাখেন ইন্দ্রকুল :/
      আমার শিরোনাম নিয়াও চুলকানি শুরু কইরা দিলেন! !!!!!!
      বরই দুস্ক পাইলাম 🙁
      আসলে কেউ চুলকানের জিনিস না পাইলে যে মলম লাগাইয়া চুলকায় ওইডা আমি ভাল কইরা জানি :@

      1. চুলকানির দুরারোগ্য ব্যাধি কি
        চুলকানির দুরারোগ্য ব্যাধি কি জন্মগত ??? বেশ চুলকা চুলকি করছেন দেখতে পাচ্ছি ।
        লেখা লিখছেন বেশ ভালো কথা । কিন্তু অহেতুক ঝগড়া বাধাইয়া স্থুল সুখ খুঁজছেন। খুবই বেদনা দায়ক ।
        শিক্ষিত মানুষ বলেই তো মনে হচ্ছে … আফসুস !!!

          1. তয় চালাইতে থাকেন চুল্কানি …
            তয় চালাইতে থাকেন চুল্কানি … মলম নিয়া নিশ্চয়ই আইব মাস্টার সাহেব ।

  9. কী লেখার ছিরি !!! আরও ভালো
    কী লেখার ছিরি !!! আরও ভালো করে লিখতে পারতেন ।
    শুদ্ধ বাংলায় লিখতে কি কোন সমস্যা আছে ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *