~টাইটানিক (১৯৯৭)~ একটি খারাপ সিন যুক্ত সিনামা {কিছু সত্য ঘটনা অবলম্বনকৃত পুষ্ট}

বিঃদ্রঃ ইহা একটি হুদাই পুষ্ট। কারুর না ভাল্লাগলে ভিত্রে ঢুইক্কা নিজের সময় নষ্ট কইরেন না। ১৮+ পুষ্ট হইলেও হইতে পারে। :ভেংচি: :ভেংচি:



বিঃদ্রঃ ইহা একটি হুদাই পুষ্ট। কারুর না ভাল্লাগলে ভিত্রে ঢুইক্কা নিজের সময় নষ্ট কইরেন না। ১৮+ পুষ্ট হইলেও হইতে পারে। :ভেংচি: :ভেংচি:

বেশ কিছু দিন আগে বিকেল বেলা সব বন্ধুরা গল্প করতে গিয়ে মনে পড়ল মুভিটার কথা। তখন সম্ভবত ক্লাস ৪ অথবা ৫ এ পড়ি। টাইটানিক বাংলাদেশে মুক্তি পাওয়ার পরেও দেখার সৌভাগ্য হচ্ছিলো না। যার একমাত্র কারণ সেই মুভিতে কিছু অপ্রীতিকর দৃশ্য :হাসি: :হাসি: (খারাপ সিন !!!! এইটা ছিল বেশিরভাগ মানুষের মুখের বুলি।) ছিল।

যাই হোক, আমরা ২ বন্ধু মিল্লা প্ল্যান করলাম যেমনেই হোক মুভিটা দেখতেই হবে। কিন্তু সুযোগ পাইনা দেখার। কারণ কারো বাসায় টাইটানিক দেখুম শুনলে লাঠির মাইর একটাও মাটিতে পড়ব না। অবশেষে নতুন প্ল্যান হইলো; প্ল্যানটা ছিল একটা ক্যাসেট (তখনকার ভিসিআর এর) কিন্না যেমনেই হোক সংরক্ষণ কইরা রাখুম, পরে যখন বয়স হইবো দেখনের তখন দেখুম নে। B-) B-) B-) B-) যেই কথা সেই কাজ। পরে অনেক কাহিনী কইরা সংরক্ষন করার চেষ্টা করসিলাম অর বাসার বাগানের মাটিতে গর্ত কইরা। পরে অবশ্য ঐ চেষ্টাও বিফল হয়। অবশেষে দেখাহয় ক্লাস ৮ এ পড়ার সময়ে।

আমার দেখা লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিওর অন্যতম সেরা মুভি। মুভি তে প্রতিটি মুহুর্তে আমি মুগ্ধ ছিলাম। এইটা অবশ্য অনেক আগে দেখা। সেই কারণেও ভাল লাগতে পারে। আবার জাহাজী বইলাও ভাল লাগতে পারে। ক্যাপ্টেনের বা যে কোন নেভিগেশনাল অফিসারের ছোট কোন ভুল যে কত মানুষকে বিপদে ফেলতে পারে তা এই মুভি তে স্পষ্ট। অবশ্য ভুল গুলো এখন মনেহয় সামান্য, কিন্তু তখনকার দিনে নেভিগেশন এতটা সহজ ছিল না। রোম্যান্টিক মুভি হিসেবে অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার এই মুভি। যতটুকু মনে আছে সবচেয়ে ব্যয় বহুল মুভি গুলোর মাঝে টাইটানিক একটা। এই মুভির জন্যে আসল টাইটানিক এর আদলে আর একটি জাহাজ তৈরী করতে হয় যার শেষমেশ জলাঞ্জলী দিতে হয়।

অভিনয়ের কথা বললে, আগেই বলেছি, ডি-ক্যাপ্রিও নিয়া কোন কথা হবেনা। আর কেট উইন্সলেট রে নিয়া কি বলবো, তাহার রূপ যৌবন দেখতে দেখতেই তো সময় গেল। সাথে সকল অভিনেতার অভিনয়ই আমাকে বেশ মুগ্ধ করেছিল। অনেকদিন আগে দেখা সিনামা নিয়ে কিছু লিখতে গেলে যা হয় আরকি, ঠিক মতন ছোট খাট জায়গা গুলো মনে পরে না। তারপরেও কারো অভিনয়ে কোন খুত খুজে পাইনি। সবচেয়ে কষ্ট লাগে মানুষের বেচে থাকার তাড়না দেখে। প্যানিকের কারণে যত জন বাঁচতে পারার কথা তাও হয়ে ওঠে না।

অসাধারণ মিউজিক সিলেকশন। প্রয়োজন এবং পরিস্থিতির বিচারে যথার্থ মিউজিকের ব্যাবহার যে কাউকে মুগ্ধ করবে।
সবারই দেখা হয়ে যাওয়ার কথা। না দেখে থাকলে দেখার জন্যে বসে যান।

Director: James Cameron
Writer: James Cameron
Stars: Leonardo DiCaprio, Kate Winslet, Billy Zane
Music: James Horner

প্রথম প্রকাশঃ moviepagol.info/টাইটানিক-১৯৯৭-একটি-খারাপ/

২৫ thoughts on “~টাইটানিক (১৯৯৭)~ একটি খারাপ সিন যুক্ত সিনামা {কিছু সত্য ঘটনা অবলম্বনকৃত পুষ্ট}

  1. টাইটানিক দেখে নাই এমন কেউ কি
    টাইটানিক দেখে নাই এমন কেউ কি আছে????? :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে:

    আর এটাকে খারাপ সিন বললে ভালো সিন কোনটা?????? এই “খারাপ সিন” প্রত্যেক প্রেমের চূড়ান্ত কাম্য।

    1. ভাইরে আমি সেই পিচ্চি কালের
      ভাইরে আমি সেই পিচ্চি কালের কথা কইতাছিলাম। যখন আমাগো এই সব দেখনের বয়স ছিলনা 😀 মানে বাপ-মা র জন্যে দ্যাখবার পারিনাইক্কা :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

      1. আমি বুঝবার পারছি। মাথা
        আমি বুঝবার পারছি। মাথা ফাটায়েন না। যারা এহনও ইহা মনে করে তাগো কইসি।

  2. এই জিনিস না দেইখা থাকলে হেতে
    এই জিনিস না দেইখা থাকলে হেতে এই দুনিয়ার বাইরে থাকে- এরুম ঠাওর করন লাগব । 😀

    1. Departed, Blood Diamond,
      Departed, Blood Diamond, Shutter Island, Body of lies, Gangs of New York, Django Unchained, & Inception -কে বাদ দিয়ে কীভাবে টাইটানিক সেরা মুভি হয় বুঝলাম না!!
      De Caprio এর সেরা মুভির তালিকায় ৫ এর মধ্যে টাইটানিক থাকবে না!! :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

  3. কেটরে ঐ যে মাথায় ঢুকছিল ,
    কেটরে ঐ যে মাথায় ঢুকছিল , এখনো বের হয় নাই !! জগত কেটময়

    এই মুভি এখনো কেউ দেখে নাই এবং সে কে , সেইটা জানার ইচ্ছা । তখনকার দিনে তো এইটা জাতীয় মুভি আছিল 😉
    আর সিনের কথা কি কমু ! দুষ্ট সিন :নৃত্য:

  4. এই মুভি হলে গিয়ে দেখতে দেখতে
    এই মুভি হলে গিয়ে দেখতে দেখতে টায়ার্ড হয়ে যেতাম। ঘুম চলে আসত। এত বড় মুভি এক বসায় দেখা কি সম্ভব? তারপরও সিনেমা হলেই দেখেছিলাম মনে হয় পাঁচবার।

  5. আহা টাইটানিক…
    কি

    আহা টাইটানিক… :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন: :দিবাস্বপ্ন:
    কি জিনিস মনে করাই দিলেন? :কথাইবলমুনা:

  6. ছবির সিনটা কিছুটা আপত্তিকর
    ছবির সিনটা কিছুটা আপত্তিকর হলেও সেই সিনের অবশ্যই কোন না কোন অর্থ ছিল যা পুরো ছবিটার কাহিনীর সাথে সম্পৃক্ত যা পরিচালক অবশ্যই ভেবে চিন্তেই করেছেন। অন্যথায় পুরো ছবিটাই অসাধারন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *