রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নেই!!

বর্তমান রাজনীতি প্রেক্ষাপটে লেখক সালাম আজাদের কথাটি যথার্থই যোগ্যতা অর্জন করেছে, ‘যতদিন কোন মানুষের মাঝে মাঝে ধর্ম থাকবে, সে প্রকৃত মানুষ হতে পারবে না৷ ধর্ম অশিক্ষিত মানুষের সংস্কৃতি৷’

ধর্মের আবির্ভাব কিভাবে কবে হয়েছিল তার সঠিক উত্তর আমার জানা নেই৷ তবে অতীতে ধর্মের যে বৈশিষ্ট্য সমূহ ইতিহাসে স্থান পেয়ছে- সতীদাহ, বহু বিবাহ, বর্ণ বৈষম্য, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ, নারীদের অধীকার থেকে বিচ্যুত রাখা ইত্যাদি ইত্যাদি থেকে স্পষ্টতঃ বুঝা যায়; ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থান্বেশী মানুষের হাতে সৃষ্ট- দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য৷৷ পরবর্তীতে কিছু শিক্ষিত নারী/পুরুষ ধর্মের সেই কালো দিকটাকে উপরে ফেলে প্রতিষ্ঠিত করেছিল…..



বর্তমান রাজনীতি প্রেক্ষাপটে লেখক সালাম আজাদের কথাটি যথার্থই যোগ্যতা অর্জন করেছে, ‘যতদিন কোন মানুষের মাঝে মাঝে ধর্ম থাকবে, সে প্রকৃত মানুষ হতে পারবে না৷ ধর্ম অশিক্ষিত মানুষের সংস্কৃতি৷’

ধর্মের আবির্ভাব কিভাবে কবে হয়েছিল তার সঠিক উত্তর আমার জানা নেই৷ তবে অতীতে ধর্মের যে বৈশিষ্ট্য সমূহ ইতিহাসে স্থান পেয়ছে- সতীদাহ, বহু বিবাহ, বর্ণ বৈষম্য, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ, নারীদের অধীকার থেকে বিচ্যুত রাখা ইত্যাদি ইত্যাদি থেকে স্পষ্টতঃ বুঝা যায়; ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থান্বেশী মানুষের হাতে সৃষ্ট- দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য৷৷ পরবর্তীতে কিছু শিক্ষিত নারী/পুরুষ ধর্মের সেই কালো দিকটাকে উপরে ফেলে প্রতিষ্ঠিত করেছিল…..
‘শোন হে, মানুষ ভাই….
সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই!!’
কিংবা
‘জীবে প্রেম করে যেইজন, সেইজন সেবীছে ঈশ্বর!!’

ধর্ম একটি বিশ্বাস, সম্পূর্ন ব্যক্তিগত এবং অভ্যন্তরিন৷৷ প্রত্যেক ধর্মেই দুটো দিক আছে, ১) ঐতিহাসিক ও ২) মানবিক…. ঐতিহাসিক দিক কোন ধর্মের ভালো দিক নয়, হত্যা-লুটপাত-জোর করে ধর্ম প্রতিষ্ঠা জন্য রক্তপাত কিংবা সংখ্যালঘু নারীদের ধর্ষণ, কোনভাবেই ধর্ম বা বিশ্বাস হতে পারেনা৷ অপরদিকে মানবিক পর্যায়টা ধর্মে অন্তর্ভুক্ত করা হয় জোরপূর্বক প্রতিষ্ঠিত ধর্মকে আলোকিত করে অন্যায়টাকে ধামাচাপা দেয়ার জন্য৷৷ কিন্তু যা সত্য তা চিরকালই সত্য৷৷ ধর্মে যত মানবতার কথা বলা হোকনা কেন, তা মানুষের মনুষ্যত্ব থেকেই ধার করা৷৷ অর্থাৎ ধর্ম মানুষের থেকেই সৃষ্ট!! মানুষ যেরূপ ধর্মকে বিশ্বাস করে আদর্শ স্বরূপ গ্রহণ করেছে, সেইরূপ ধর্ম কেন সকল স্তরের মানুষকে আদর্শ রূপে গ্রহণ করে না??

ধর্ম ও রাষ্ট্র নিয়ে সংক্ষিপ্ত দুটো কথা বলি,

রাষ্ট্র গঠনে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষকে সবার উপরে স্থান দেয়া হয়৷ রাষ্ট্রের আইন নির্ধারিত হয় রাষ্ট্রের সকল নাগরিকের জন্য নিরপেক্ষ৷ সকল নাগরিকের অধিকার সমান, রাষ্ট্রের প্রতি কর্তব্যও সমান৷ কোন রাষ্ট্রে যদি ধর্ম বিবেচ্য হয় তবে সেখানে যেকোন এক ধর্মালম্বী থাকতে হবে৷ নির্দিষ্ট কোন ধর্ম রাষ্ট্রে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেনা যদি সেখানে একজনও ভিন্ন ধর্মালম্বী বর্তমান থাকে৷ কেননা একটি ধর্ম রাষ্ট্র অন্তর্ভুক্ত করার অর্থ সেই ধর্মের শাসনও রাষ্ট্রের আইন করা৷ কিন্তু সেটি হবে একপক্ষ অর্থাৎ অন্যধর্মালম্বীদের প্রতি অবিচার৷ রাষ্ট্রে ধর্মের অবদান থাকতে পারে, তবে সেটি শুধুমাত্র ঐতিয্য স্বরূপ…… ধর্ম রাষ্ট্রের সিংহভাগ হতে পারেনা, যদি তার চেষ্টা করা হয় তাহলে ধর্মের ঐতিহাসিক দিকটাই প্রস্ফুটিত হবে৷ অর্থাৎ রাষ্ট্রে চালু হবে পৌশাচিক আইন৷৷

জোরপূর্বক ধর্ম প্রতিষ্ঠা, সংখ্যালঘুর উপর অত্যাচার, লুন্ঠন কিংবা ধর্ষণ….. আজ বাংলার পবিত্র মাটিতে এনেছে পৌশাচিক নীতি, যেভাবে জন্ম নিয়েছে এক একটি ধর্ম৷৷
হয়তো আমার মন্তব্যটা পুরোপুরি তুলে ধরতে পারিনি, তবে
“ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার৷”
এটাকে একজন শিক্ষিত মানুষ কিংবা নাগরিক হিসেবে রাষ্ট্রে স্থান দেয়া উচিত৷৷ তেল আর জল মিশানোর মত মূর্খ্য কাজ কোন কিছুর প্রতি অন্ধ্য বিশ্বাসীর পক্ষেই সম্ভব!!

১৪ thoughts on “রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নেই!!

    1. মানুষ কি ভুলে যায়?
      বলেন তো

      মানুষ কি ভুলে যায়?
      বলেন তো আপনার অস্তিত্ব কি? কিসে? কীভাবে এসেছেন?
      কোথায় যাবেন? কেনই বা বেঁচে আছেন?
      একটু পূর্ব-আরোপিত সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে সত্যটা জানতে চেষ্টা করুণ!!
      মানব সন্তানের কোন মহান মালিক নাই? মানুষ কোন সম্পদ বা বস্তু না!
      আমায় এই দুনিয়ায় এনেছে আমার মা-বাবা তাদের প্রতি আমার দায়িত্ববোধ আছে যেমনটি তাঁর পিতা-মাতার প্রতি তিনি পালন করেছেন…
      আর আছে সমাজ-রাষ্ট্রের প্রতি দায়বদ্ধতা!! আপনার কমেন্ট দৃষ্টিকটু ও মানবতার প্রতি উপহাস আর কটাক্ষ… তীব্র প্রতীবাদ জানালাম!!
      চেতনা বিবেকের আর বুদ্ধিমত্তার কোন মালিকানা নাই তাই এইসব স্বাধীন…

  1. রাষ্ট্র প্রার্থনা করবে না
    রাষ্ট্র প্রার্থনা করবে না তাঁর ইহকাল পরকালও নাই…
    ধর্মের উৎপত্তি বিশ্লেষণ করলে তাই দেখা যায় যে তা নাজিল হয়েছে তাবৎ দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ প্রাণী মানুষের জন্যে অর্থাৎ কোন প্রতিষ্ঠানের ধর্মের দরকার নাই!
    আর তাই রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নাই কথাটা যথার্থভাবেই সঠিক ও বাস্তব।।
    যারা এর ব্যত্যয় করতে চাই তারা সুযোগ সন্ধানী আর রাষ্ট্র বিরোধী…

    ভাল লিখেছেন… লিখতে থাকুন… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

  2. আমি তো চোদনা হয়ে গেলুম ।
    ধর্ম

    আমি তো চোদনা হয়ে গেলুম ।
    ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার এতে কোন দ্বিমত নাই কিন্তু এর মানে ধর্মের কোন ভ্যালুই নাই একথাও তো মানতে পারি না ।যাক
    আমি তো এইখানে ধর্ম প্রচার বা ধর্ম নিয়া যুদ্ধ করতে আসিনি ।আমি তো শুধু আমার ব্যাক্তিগত মত প্রকাশ করেছি ।আর স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার বলতে কি শুধুই ধর্মের বিপক্ষে মত প্রকাশের অধিকার বুঝায় ??আপনি কি করবেন বা কি করেন বা কি ভাবেন বা কি ভাববেন না সেটা সম্পূর্নই আপনার ব্যাক্তিগত ।সে ব্যাপারে আমার কোন মাথা ব্যাথা নেই ।আপনার চেতনা বা বিশ্বাসের পক্ষে যেমন হাজারো যুক্তি আছে তেমন আমার চেতনা বা বিশ্বাসের পক্ষেও কিন্তু যুক্তি আছে ।আর মানুষের মুক্তি কি শুধু ধর্ম পরিচয় বাদ দিলেই হবে ।থাক এসব নিয়ে তর্ক করতে চাই না ।শুধু এটুকু স্পষ্ট করে বলতে চাই আমি সম্পূর্ন আমার ব্যাক্তিগত মত প্রকাশ করেছি ।আর তা কারো পক্ষে বা বিপক্ষে গেলে আমি দায়ী নই ।কেননা স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার সবারই আছে ।আর এটুকু মানতে না পারলে বলতে হবে আপনি এখনো প্রগতিশীল হতে পারেননি শুধু প্রগতিশীল হবার ভান করেছেন ।

    1. শুধু এটুকু স্পষ্ট করে বলতে

      শুধু এটুকু স্পষ্ট করে বলতে চাই আমি সম্পূর্ন আমার ব্যাক্তিগত মত প্রকাশ করেছি ।আর তা কারো পক্ষে বা বিপক্ষে গেলে আমি দায়ী নই ।কেননা স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার সবারই আছে ।

      এটুকু বলার প্রয়োজন নাই ভাই । লেখা আপনার অধিকার । কিন্তু কথা হল শুরুতেই

      আমি তো চোদনা হয়ে গেলুম ।

      এটার কি খুব দরকার ছিল । অশালীন শব্দ ব্যবহার ত্যাগ করুন । আর পোস্ট এ. নিরপেক্ষতার কথা বলা হয়েছে । ধর্মের বিপক্ষে নয় । ভাল করে পড়ুন । বুঝতে পারবেন ।

      1. ধর্ম নামক শব্দটি কিছু
        ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থানেষী মানুষের হাতে সৃষ্ট দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য।ধর্ম মানুষের থেকেই তৈরী।কথাটা আমার কাছে ধর্মের পক্ষের কথা বলে মনে হয়নি ।তবে একথার জন্য কাউকে দোষারোপ করবোনা ।কেননা এটা সম্পূর্নই উনার ব্যাক্তিগত মতামত ।

      2. ধর্ম নামক শব্দটি কিছু
        ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থানেষী মানুষের হাতে সৃষ্ট দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য।ধর্ম মানুষের থেকেই তৈরী।কথাটা আমার কাছে ধর্মের পক্ষের কথা বলে মনে হয়নি ।তবে একথার জন্য কাউকে দোষারোপ করবোনা ।কেননা এটা সম্পূর্নই উনার ব্যাক্তিগত মতামত ।

      3. ধর্ম নামক শব্দটি কিছু
        ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থানেষী মানুষের হাতে সৃষ্ট দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য।ধর্ম মানুষের থেকেই তৈরী।কথাটা আমার কাছে ধর্মের পক্ষের কথা বলে মনে হয়নি ।তবে একথার জন্য কাউকে দোষারোপ করবোনা ।কেননা এটা সম্পূর্নই উনার ব্যাক্তিগত মতামত ।

      4. ধর্ম নামক শব্দটি কিছু
        ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থানেষী মানুষের হাতে সৃষ্ট দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য।ধর্ম মানুষের থেকেই তৈরী।কথাটা আমার কাছে ধর্মের পক্ষের কথা বলে মনে হয়নি ।তবে একথার জন্য কাউকে দোষারোপ করবোনা ।কেননা এটা সম্পূর্নই উনার ব্যাক্তিগত মতামত ।

      5. ধর্ম নামক শব্দটি কিছু
        ধর্ম নামক শব্দটি কিছু স্বার্থানেষী মানুষের হাতে সৃষ্ট দুর্বল মানুষদের পরকালের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা কায়েম করার জন্য।ধর্ম মানুষের থেকেই তৈরী।কথাটা আমার কাছে ধর্মের পক্ষের কথা বলে মনে হয়নি ।তবে একথার জন্য কাউকে দোষারোপ করবোনা ।কেননা এটা সম্পূর্নই উনার ব্যাক্তিগত মতামত ।

  3. আমি তো চোদনা হয়ে গেলুম ।
    এই

    :আমারকুনোদোষনাই:
    আমি তো চোদনা হয়ে গেলুম ।
    এই অংশটুকুর জন্য আমি দুঃখিত ।আর আমি কিন্তু বলিনি কেউ ধর্মের বিপক্ষে বলেছে ।আমি আমার দেখা কিছু মানুষ এবং নিজের সম্পর্কে আমার পর্যালোচনার কথা বলেছি ।আমার কথা গুলো ধর্মে যারা অবিশ্বাস করে শুধু তাদেরকে উদ্দেশ্য করে নয় বরং আমি নিজে এবং যারা ধর্মে বিশ্বাস করে তাদের উদ্দেশ্যে করা ।কারন আমি ধর্মে বিশ্বাস করি কিন্তু স্বার্থের জন্য অনেক সময় তা পালন করি না ।আর যে ধর্মে বিশ্বাস করে না তার তো ভুলে যাওয়া বা ধর্ম না মানা স্বার্থের জন্য নয় ।আশা করি আমার দৃষ্টিভঙ্গি আমি পরিস্কার করতে পেরেছি ।আর অশালিন ভাষা ব্যাবহার অনিচ্ছাকৃত ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *