প্রথম আলোর ভন্ডামী… বিবেক কি ঘুমিয়েই থাকবে?

প্রথম আলোর যাত্রা শুরু প্রায় দেড় যুগ। এর মাঝে বাংলাদেশে শুধু সংবাদপত্রের জায়গাতেই যে শক্ত স্থান দখল করে নিয়েছে তা নয়। বরং তা সীমানা ছাড়িয়েছে অনেক। সুশীল সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে, হলুদ সাংবাদিকতার প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার এক নেপথ্য কারিগর প্রথম আলো। আর তা হয়েছে আমাদের ব্যাপক ভিত্তিক সমর্থনের জন্যে- যে সমর্থন তারা আদায় করে নিয়েছিল প্রথম ক’বছরে তাদের একনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে। একটু চেষ্টা করলেই মনে করতে পারবেন প্রথম আলো জন্মের পর থেকে বেশ কিছুদিন পর্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠীর চক্ষুশূল হয়ে ছিল। এখন অবস্থা বদলেছে। শেষ কবে ওই গোষ্ঠী প্রথম আলো সম্পর্কে বিষোদগার করেছে তা খুজতে প্রচুর ঘাটাঘাটি করতে হবে। কিন্তু এখন ক্যানো ঐ একই গোষ্ঠী চুপচাপ তার জন্যে বেশী ঘাটাঘাটির প্রয়োজন হয় না। এক সূক্ষ সমঝোতা যে প্রথম আলো গং আর জামাত-শিবির এর সাথে হয়েছে তা এখন সবার জানা।কিন্তু এই বিষয়টা কি সবার জানা যেটা নিয়ে লিখতে বসলাম? তার আগে জামাতের আজকের হরতাল পূর্ব ভাংচুর এর ঘটনা নিয়ে প্রথম আলোতে ছাপা হওয়া ছবি দুটো দেখুন।

প্রশ্ন হচ্ছে কি দেখবেন ছবিতে। ক্যাপশন দেখুন। দুটো জায়গাতেই জামাতের কর্মীদেরকে সম্বোধন করা হয়েছে ‘আপনি’ বলে। আর কে না জানে সম্বোধনে ‘আপনি’ বলা হয় শুধু সম্মান প্রদর্শনের জন্যই। তারা ভাংচুর ‘করেছেন’ আর আগুন ‘দিয়েছেন’ গাড়িতে।

চলুন এই রকম আরো কিছু ছবি আর ক্যাপশন দেখে আসি। নিচের ছবিগুলো সাঈদির রায়ের পরদিন প্রকাশিত প্রথম আলোর ৩য় পৃষ্ঠার।

নিকট অতীতে দেখলে মনে করতে পারবেন রেলের উপর জামাতের ছিল নগ্ন হামলা। রেলে আগুন দেয়া,রেল লাইন উপড়ে ফেলা ছিল তাদের নিত্য দিনের কাজ। হাজার হাজার মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলতে ওদের এতটুকু বাধে নি। এমনই এক ট্রেনে আগুন দেয়ার ঘটনায়ও করতে হল কি নিদারুন সম্মান

হিন্দুদের বাড়ীতে আগুন দেবার ঘটনায়ও প্রথম আলো নির্লজ্জ সম্মান প্রদর্শন করে গেল।

ইসলামের দোহাই দিয়ে একের পর এক হত্যাযজ্ঞে যখন মেতে উঠেছে জামাত তখন কি অপরুপ সম্বোধন।কিন্তু কিভাবে? এমন নৃশংস ঘটনার এমন আপনি সুলভ ক্যাপশন দিতে এতটুকু বাধলো না প্রথম আলোর? কি ম্যসেজ দিতে চায় তারা আমাদেরকে?অথচ এই আচরন বদলে যায় যখন বিএনপি হরতাল দেয়। গত ১৮-১৯ মার্চ বিএনপি ৩৬ ঘন্টা হরতাল ডাকে। হরতালের মান সম্মান রক্ষা করতে তারাও একই ভাবে ধ্বংসযজ্ঞ চালালেও প্রথম আলোর কাছ থেকে সেই সম্মান আদায় করতে পারেনি বিএনপি। খুব সচেতনতার সাথে ভাষার প্রয়োগ পরিবর্তিত হয়ে গেল সূক্ষভাবে।

কি বুঝলেন? না এখানেই শেষ না। প্রথম আলোর চরিত্র আরো নগ্নভাবে প্রকাশ পায় গত ২রা এপ্রিলের প্রথম পাতার ছবি থেকে। সেখানে একসাথে তিনটি ছবি থাকলেও ক্যাপশন ছিল ভিন্ন ভিন্ন।

এই বীভৎস দুইটি ছবির ক্যাপশনও ঠিক একই রকম।কারন কাজ দুটি জামাত শিবির দ্বারা সংঘটিত। এই ছবিতেও আপনি আপনি করতে ওদের এতটুকু বাধে নি। অথচ ঠিক পাশের ছবিতে অন্যরকম ক্যাপশন। কারন এটা করছে বিএনপি।

ঠিক একই উদাহরন দেয়া যায় গত ৮ই মে ১৮ দলীয় জোটের ডাকা হরতালের খবরে।সেখানেও দুই দলের জন্যে দুই ধরনের আচরন।উল্লেখ্য নিচের দুটো ছবিও একই পাতায় প্রকাশিত।

এমন উদাহরন আরও দেয়া যায়।গত ৮,৯,১০ই মার্চ টানা হরতাল চলাকালে এই পত্রিকায় ছাপা হুয়া আরো দুটো ছবি থেকে।

আর পরের ছবিতেই সেই সম্মান প্রদর্শন

বাকী থাকে হেফাজত। জামাত শিবিরকে সম্মান করতেই যাদের এতটুকু বাধে না তারা হেফাজতকে নিয়ে কিছু বলবে না তা তো সহজেই অনুমেয়। তার বহিঃপ্রকাশ ছিল ছবির ক্যাপশনেও। ওদের তান্ডব, ধ্বংসলীলা, ভাংচুর এর যে যতসামান্য কাভারেজ প্রথম আলো দিয়েছে তাতে সম্মান কেমন ছিল তার কয়েকটি নমুনা নিচে দেখুন।

প্রিয় পাঠক উপরের সবই হচ্ছে নমুনা। আমি কিছু উদাহরন দেবার চেষ্টা করেছি মাত্র। আপনি যদি আজ থেকে এর সত্যতা যাচাইয়ের চেষ্টা করেন তাহলে দেখবেন কি আশ্চর্য রকম ভাবে মিলে যাবে প্রতিটা কথা। মানুষকে সম্মান করা উচিত অবশ্যই। তাই বলে তাদেরকেও কি যারা একের পর এক ধবংসযজ্ঞ চালিয়ে যাবে? যারা প্রকাশ্যেই দেশের প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করে, দেশের সংবিধানকে ছুড়ে ফেলার ধৃষ্টতা দেখায়, ইসলামের নামে মেতে ওঠে অনাচার সৃষ্টিতে। শুধু একবার আপনার মনকে প্রশ্ন করুন। আর দেশের প্রভাবশালী এই পত্রিকা যে বর্তমানে বাস্তবায়ন করার চেষ্টায় ব্যস্ত রয়েছে সেই জামাত-শিবিরের এজেন্ডা, একের পর নিদর্শন রাখছে হলুদ সাংবাদিকতার তার কি আর প্রমানের অপেক্ষা রাখে? আপনার মনকেই প্রশ্ন করুন না একবার। প্রথম আলোর এই আচরনে আমাদের বিবেক কি ঘুমিয়েই থাকবে?

১৫ thoughts on “প্রথম আলোর ভন্ডামী… বিবেক কি ঘুমিয়েই থাকবে?

  1. শুধুমাত্র সম্মোধন-এর ওপর
    শুধুমাত্র সম্মোধন-এর ওপর ভিত্তি করে এরকম একটা পোস্ট কতটা যুক্তি সংগত তা ভেবে দেখার দাবী রাখে।
    তবে “প্রথম আলো” যে হলুদ সাওংবাদিকতার আইডল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে তা বিগত এক-দেড় বছরের বিচ্ছিন্ন কিছু সংবাদ থেকে সহজেই অনুমেয়!

    (মিথ্যা তা যত স্বযত্নেই প্রকাশ করা হোক না কেন, সত্যের কাছে একদিন তা হার মানবেই!)

    1. ব্যাপারটা আপাত দৃষ্টিতে খুব
      ব্যাপারটা আপাত দৃষ্টিতে খুব সিলি মনে হতে পারত যদি এটা বিচ্ছিন্নভাবে দুইএকবার করা হতো। কিন্তু দেখা যাচ্ছে প্রথম আলো এটা রেগুলার করছে। তার মানে এটা খুব গুরুত্ব দিয়েই মেনে চলে প্রথম আলো। আর প্রথম আলো যে জামাতের নির্লজ্জ দালালীর এজেন্ডা নিয়ে নেমেছে সেটা তাদের কিছুদিন আগের একটা প্রকাশিত জরীপ থেকেই স্পষ্ট হয়। তার আগে হাসনাত আব্দুল হাই এর গল্প। সুতরাং সম্বোধনের ব্যাপারটা সিলি ভাবে নিতে পারলাম না।

    2. আতিক ভাইয়ের সাথে একমত। আর
      আতিক ভাইয়ের সাথে একমত। আর শফিক ভাই এই লেখাটা একদিন বা দুইদিনের অব্জার্ভেশনের ফল নয়। গত প্রায় ৫-৬ মাস ধরে প্রথম আলো এটা করে আসছে। এবং বারবার করার মাধ্যমে তাদের আন্তরিকতার প্রকাশ পায় নিঃসন্দেহে। কতটা নির্লজ্জ হলে পুলিশের মাথা থেতলে দেয়ার ছবিতে বলতে পারে ‘থেতলে দিয়েছেন।’ আর এখানে কয়েকটা স্যাম্পল হাজির করা হয়েছে মাত্র। দুনিয়ার সবচাইতে কঠিন কাজ হচ্ছে জিপি ইন্টারনেট থেকে নেট সার্ফিং করা। তারপরও চেষ্টা করলাম।আপনার সন্দেহ থাকলে আজ থেকে আপনিও দেখুন। দেখবেন আমার কথাগুলো কিভাবে মিলে যাচ্ছে। আই রিপিট প্রতিটা ক্ষেত্রে মিলে যাবে।

      1. না, “হলুদ সাংবাদিকতার”
        না, “হলুদ সাংবাদিকতার” ব্যাপারে কোন কথা হবে না। ওটাতে আমি পুরোপুরি একমত। আমি শুধু বলতে চেয়েছিলাম শুধু সম্মোধন-এর ওপর ভিত্তি করে “জামাতপুষ্ট” ট্যাগ দেয়াটা যুক্তি তর্কে টিকবে কিনা সেটা ভেবে দেখার দাবী রাখে…
        যা হোক, আপনার ‘জিপি ইন্টারনেট’ সাফল্য প্রশংসার দাবিদার।

        কিন্তু একটা কথা বলুন তো- আপনারা (অনেকেই) আমাকে “শফিক” বলেন কেন? আপনাদের কি ধারনা আমি ভুল করে আমার নাম ‘সফিক এহসান’ লিখেছি? নাকি ইস্টিশন মাস্টার প্রিন্টিং মিস্টেক করেছে? :ভেংচি: :হাসি:

  2. প্রথম আলোর ভণ্ডামির মুখোশ
    প্রথম আলোর ভণ্ডামির মুখোশ উন্মোচন হচ্ছে। জামাত-শিবির প্রথম আলোর দুলাভাই লাগে। তাই আপনি আজ্ঞে না করলে দুলাভাইয়ের সম্মান যায়। একেবারে চোখে আঙুল দিয়ে দেখায়ে দিছো। :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

  3. ওরাই বদলাতে পারে সংবাদ, ওরাই
    ওরাই বদলাতে পারে সংবাদ, ওরাই সংবাদ তৈরী করে নিজেদের মত করে। আদর্শ ওরা অনেক আগেই বিক্রি করে দিয়েছে টাকার কাছে। এই মহুর্তে প্রথম আলোর সবচেয়ে বড় ডোনার হচ্ছে জামায়াত। আপনার দেওয়া ছবিগুলোই তার প্রমাণ।

    চমৎকার একটি কাজ করেছেন। :থাম্বসআপ:

  4. প্রথমআলো-র চরিত্রের এই পর্দা
    প্রথমআলো-র চরিত্রের এই পর্দা ফাঁস। চোখে আঙুল দাদা। বেশ লিখেছেন।

  5. বদলে দাও , বদলে যাও – প্রথম
    বদলে দাও , বদলে যাও – প্রথম আলো নিজেদের নীতি অনুসারেই নিজেদের ভল পাল্টাচ্ছে । চমৎকার যুক্তি সম্বলিত এই পোস্ট এর জন্য ধন্যবাদ । লাইক শেয়ার ২ টায় দিলাম । লিখতে থাকুন । :ফুল:

  6. চমৎকার যুক্তি সম্বলিত এই
    চমৎকার যুক্তি সম্বলিত এই পোস্ট এর জন্য ধন্যবাদ :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল:

  7. কি আর কব কন! কলি পরেই তো;
    কি আর কব কন! কলি পরেই তো; আমাক; অশ্লীল বুইলবে; লুকে। পরথম আলু যদি; ইরাম; “আপনি” সম্বোধন না কইরত; তালি পরে; বাংলার সুশীল, ভদ্দর সমাজ; চিক্কুর পাইড়ে কয়ে উঠতো, “বদলে যাওয়ার কথা কইয়ে এ আপনারা কোন ধরনের অশ্লীলতা করতিছেন?”
    তয়; পোস্ট কলাম; প্রিয়তে নিলাম।

  8. এটা শুধু জামাত শিবিরের জন্যই
    এটা শুধু জামাত শিবিরের জন্যই না, বরং কোন ঘটনায় নির্দিষ্ট কেউ জড়িত থাকলে সেখানে আপনি সম্বোধন্‌, আর দুর্বৃত্ত কিংবা অনির্দিষ্ট হরতাল সমর্থকদের সময়ই শুধু সাধারন সম্বোধন করা হয়েছে…

    পক্ষপাত দুষ্ট ব্লগ পোস্ট 😛

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *