সমালোচনা নয়, অপেক্ষায় থাকুন !!

ফেসবুকে চোখ রাখতেই দেখি সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ শিরিন নাহার লিপিকে নিয়ে নানা রকমের সমালোচনা। শিরিনকে খুলনা থেকে আওয়ামীলীগের মহিলা সাংসদ হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন।

সমালোচনা করছে, কারণ- শিরিন নাহার লিপির স্বামী কুখ্যাত রাজাকার কাদের মোল্লার আইনজীবী ছিলেন। বুঝতেই পারছেন, আদর্শগত সমস্যা না থাকলে এই ধরনের জাতীয় অপরাধীদের পক্ষে কে যাবে..?

আবার অনুসন্ধানে দেখা যায়, শিরিন নাহার লিপির স্বামী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম সজল সরাসরি বিএনপির রাজনীতির সাথে স্বক্রিয়। শুধু তাই নয়, খালেদা জিয়া তাঁর মা-এই ধরনের কথা বলার পুত্রবধুকে আওয়ামী লীগ মনোনীত করেছে-এটা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের জন্য লজ্জার, হতাশার; এটাও সত্য!!
অনুসন্ধানে অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম সজলের ফেসবুক থেকে আরও আওয়ামী বিরোধী, শেখ হাসিনা বিরোধী, বঙ্গবন্ধু বিরোধী বিস্ময়কর আদর্শ বেরিয়ে এসেছে। ইতামধ্যে সরাসরি আঘাত করা কিছু ফেসবুক পোস্ট ডিলেটও করেছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে, এগুলোর স্ক্রিন শর্ট হাতে চলে এসেছে।

শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগকে মন থেকে ভালোবাসে-এমন নেতাকর্মীরাই মুলত রাগে-ক্ষোভে সমালোচনাগুলো করে আসছে।

আমি ব্যক্তিগতভাবে এটাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। এই নেতাকর্মীরা- দল ও দলের ভিতরের, বাইরের খবর রাখে-এটা সত্যিই প্রসংশার দাবি রাখে।

তবে আমাদের একটু পিছনে যেতে হবে-
চট্টগ্রাম মহিলা আওয়ামী লীগ থেকে যাঁকে বহিঃস্কার করে সেই রিজিয়াকে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটিতে জায়গা করে দিয়েছিল কাঁরা..?

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা আমির মজলিশে শূরা সদস্য মুমিনুল হক চৌধুরীর মেয়ে রিজিয়া। জামাতের সহযোগী সংগঠন ছাত্রী সংস্থার নেত্রী ছিলেন এই রিজিয়া। রিজিয়ার বাবা মমিনুল হক চৌধুরী সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসন থেকে ১৯৯১ সালে এবং পরে বাঁশখালী আসন থেকে জামায়াতের পক্ষে নির্বাচন করেন।

আর রিজিয়ার পক্ষে সরাসরি সাফাই বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। মাহমুদা বেগম ক্রিক বলেছেন, “রিজিয়ার বর্তমান পরিচয় বিবেচনা করে আমরা তাকে পদ দিয়েছি। সে আগে কার মেয়ে ছিল, সেটা কি আর এখন আছে, এখন সে আমাদের এমপির বউ (https://bit.ly/2WPVkiK)।”

আসলেও তাই, সে আগে কাঁর মেয়ে ছিল, কী ছিল তাঁর আদর্শ?-এটা বিবেচ্য বিষয় নয়। আপনারা কি বলেন…?

আবার নাটোরে জামায়াত আমিরের ছেলেকে ছাত্রলীগের উপজেলা সভাপতি বানিয়েছে বর্তমান তথ‌্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলক! কারণ, পলকের বড় বোন হলেন জামায়াতে ইসলামীর পৌর আমির রওশন আলীর স্ত্রী, পলকের দুলাভাই!! জামায়াত নেতা রওশন আলীর ছেলে ছাত্রলীগের সভাপতির স্বীকৃতি দিয়েছে স্বয়ং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন (https://bit.ly/2MVjl3q)!!

বুঝতেই পারছেন…!! আর এই ধরনের অনেক তথ্য-প্রমাণ দেওয়া যাবে। এতো লম্বা কাহিনী অনেকে পড়তে চায় না।

এখন আপনারাই বলুন, খালেদা জিয়াকে মা ডাকা অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলামের স্ত্রীর এই শিরিন নাহার লিপির এমন কী অপরাধ তাঁকে সংরক্ষিত আসনে সাংসদ বানানো যাবে না..?

আমি তো মনে করি, আগেরগুলোর ধারাবাহিকতা হচ্ছে শিরিন নাহার লিপি! আগেরগুলো যেভাবে যাবে, পিছনেরগুলোও সেভাবে যাবে। আগে যাঁরা দল ও বঙ্গবন্ধু আদর্শের সাথে বেইমানী করেছে, তাঁরা বরং পুরস্কার পেয়েছে।

আর আপনি দলের জন্য, শেখ হাসিনার জন্য সময়, স্রোত, অর্থ নষ্টসহ জীবন দিয়ে দিলেও; এই আপনিই ১২তম খেলোয়ার।

তাই সমালোচনা নয়, অপেক্ষায় থাকুন…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *