মুক্ত চিন্তা আর মুক্ত মনা!!! লেবু আর কচলাইয়েন না তিতা লাগে!!

মুক্ত চিন্তা এবং মুক্তমনা প্রায় একই। বর্তমানের একটা জনপ্রিয়প ইস্যু হিসেবে কাজ করছে এই টপিক টা। ব্লগাররা ভাত পাচ্ছেন তাদের মুক্তচিন্তা গুলো তার পাঠকদের কাছে পাঠাতে পেরে। এবং এই ব্লগাররাই গুণগান গাচ্ছেন মুক্তচিন্তার পক্ষে।

মুক্তচিন্তা হিসেবে আপনি বলতে পারেন যে আপনি আপনার মনের কথা গুলো, সেটি যে পর্যায়েরই হোক না কেন, কোন সংকোচ ছাড়া প্রকাশ করতে পারবেন। এবং কেউ যদি আপনার সে লেখার বিরুদ্ধে কথা বলে তাহলে বলবেন “আমি মুক্ত চিন্তার অধিকারী এবং আমার বাক স্বাধীনতা আছে। তাই আম যা খুশি বলতে পারি।” এটাকি ঠিক? এটাকি মুক্তচিন্তাকে কচলানো হয়ে গেল না? কচলে কচলে তাঁকে তিতা করা হয়ে গেল না? বুঝলেন না?


মুক্ত চিন্তা এবং মুক্তমনা প্রায় একই। বর্তমানের একটা জনপ্রিয়প ইস্যু হিসেবে কাজ করছে এই টপিক টা। ব্লগাররা ভাত পাচ্ছেন তাদের মুক্তচিন্তা গুলো তার পাঠকদের কাছে পাঠাতে পেরে। এবং এই ব্লগাররাই গুণগান গাচ্ছেন মুক্তচিন্তার পক্ষে।

মুক্তচিন্তা হিসেবে আপনি বলতে পারেন যে আপনি আপনার মনের কথা গুলো, সেটি যে পর্যায়েরই হোক না কেন, কোন সংকোচ ছাড়া প্রকাশ করতে পারবেন। এবং কেউ যদি আপনার সে লেখার বিরুদ্ধে কথা বলে তাহলে বলবেন “আমি মুক্ত চিন্তার অধিকারী এবং আমার বাক স্বাধীনতা আছে। তাই আম যা খুশি বলতে পারি।” এটাকি ঠিক? এটাকি মুক্তচিন্তাকে কচলানো হয়ে গেল না? কচলে কচলে তাঁকে তিতা করা হয়ে গেল না? বুঝলেন না?

ধরুন আপনি কোন ব্যক্তিকে পুঁজি করে অর্থাৎ যে ব্যক্তিকে এক জাতি বা গোষ্ঠী নিজেদের দলনেতা মানেন তাঁকে নিয়ে গালিগালাজ সংবলিত একটা লেখা লিখলেন এবং সেটি প্রকাশ করলেন। প্রকাহস করার পর যখন কোন পাঠক আপনার সে লেখাটি পড়ে সেখানে কমেন্ট করল যে “তুইএকটা বাল” । তখন আপনার গায়ে লাগবে এবং প্রায় সবার লাগে। অনেকের লাগে না। এই কমেন্ট পড়ার পর আপনি নিজেকে ডিফেন্ড করার জন্য আপনার টেক্কা ব্যাবহার করলেন। যেটি হচ্ছে আপনার মুক্তচিনন্তার অপব্যাবহার। আপনি বলবেন যে আপনার বাক স্বাধীনতা আছে এবং আপনি যা ইচ্ছা বলতে পারেন। তখন হয়তোবা সে পাঠক আপনাকে গালি দিয়েছিল সে চুপ করে যাবে কিন্তু এই রকম অনেক পাঠক নিজেদের মধ্যে ঠিক করে আপনার গতিবিধি অনুসরন করবে। যেটার ফলস্বরূপ অনেক কিছুই হতে পারে। সেটা আপনি জানেন। কিছু দিন আগে রাজিব ভাইয়ের কি হয়েছিল। তাকে হত্যা করা ঠিক হয় নি। তার মৃত্যুর পর অনেকেই বলেছিল যে রাজিব ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে কারন তিনি মুক্ত চিন্তায় বিশ্বাস করতেন। একমত হতে পারলাম না।

মৃত্যু পর্যন্ত না যাই। আপনার সে লেখার পর, যেটিতে আপনি কোন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নিয়ে গালিগালাজ করেছেন তখন একদল ছেলে আপনাকে ফলো করা শুরু করল। আর ধরুন আপনি নারি ব্লগার। এক পর্যায়ে আপনাকে দেখে তারা বলে বসল, “ঐ মালটারে দেখ!” এবং আপনি সেটি শুনে হয়তবা প্রথম দিন চুপ করে থাকলেন। কিন্তু পরে এক সময় না এক সময় তো প্রতিবাদ করবান? তাই না? তখন যদি ঐ ইভ টিজার আপনার মত বলে বসে যে সে তার মুক্ত চিন্তা প্রকাশ বকরল অথবা তার বাক স্বাধীনতা আছে। তখন আপনার চুপ করে যাওয়া ছাড়া কি করার আছে। হয়তোবা জুতা পেটা করবেন। আর কিছু? সেও কোর্টে গিয়ে বলবে তার বাক স্বাধীনতার কথা। লেবু কচলে গেল। এটা খুবই সাধারণ একটা উদাহরণ।

এই লেখাটা মুক্তচিন্তার বিরূদ্ধে লেখা না। আমি নিজেও মুক্ত চিন্তায় বিশ্বাসী। কিন্তু সেটার একটা লিমিট আমি বজায় রেখে চলি। যতি আমার মুক্ত চিন্তা কারো ধর্মীয় চেতনায় অথবা অন্য কোন নাজুক চেতনায় আঘাত করে তাহলে সেটি বর্জন করার চেস্টা করি। অর্থাৎ মুক্তচিন্তার একটা লিমিট থাকা উচিৎ। মনে রাখবেন আপনার কাছে যেটি লাভের বান্ডিল অন্যের কাছে সেটি বিষও হতে পারে।

১৩ thoughts on “মুক্ত চিন্তা আর মুক্ত মনা!!! লেবু আর কচলাইয়েন না তিতা লাগে!!

  1. মুক্তির প্রশ্ন যখন আসবে তখন
    মুক্তির প্রশ্ন যখন আসবে তখন কোন লিমিট বা সীমা থাকবে না!!
    মূল্যবোধ আর নৈতিকতার প্রশ্নে মুক্তচিন্তা কোন কম্প্রোমাইজ করবে না এই সত্তে…

    তবে আপনার লিখায় কেমন জানি একটা ইনোসেন্স আছে!
    ধন্যবাদ…… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা:

    এই জনেউই বলে কুত্তার পেটে খুদ শয় না…
    যথেষ্ট সুশিক্ষিত না হলে মুক্ত চিন্তা অনেকের ক্ষেত্রে তা হিতে বিপরীত হতে পারে!!

  2. সার্বিক নৈতিকতার চর্চার জন্য,
    সার্বিক নৈতিকতার চর্চার জন্য, এবং মুক্তবুদ্ধির চর্চার জন্য আপনাকে সাহসী হতেই হবে। নইলে বিকাশ ঘটবে না।

  3. মুক্ত চেতনা যুক্তি সংগ ত ও
    মুক্ত চেতনা যুক্তি সংগ ত ও বৈধ হলে গ্রহনযগ্য । ।

    বাক স্বাধিনতা ও মুক্তচেতনার নামে পাগলের প্রলাপ মেনে নেয়া যায় না

  4. দেখেন ভাই, অন্য মানুষকে
    দেখেন ভাই, অন্য মানুষকে মানসিক বা শারিরীক ভাবে আঘাত করে কেউ সাহসী হতে পারে না।

  5. মুক্তচিন্তা বলতে যে কাউকে
    মুক্তচিন্তা বলতে যে কাউকে শারীরিক বা মানুষিক ভাবে আঘাত করা বুঝায়, ইহা আমি এই মাত্র জানিলাম। :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে:

  6. উনি যা বুঝাতে চাইছেন তার সাথে
    উনি যা বুঝাতে চাইছেন তার সাথে আমি এক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে একমত….তা হলো যে বিষয়ে দেশে বিশাল জনসঙ্খার একটি বিশেষ দর্শন বা বিশ্বাস আছে,তা নিয়ে হঠাৎ কতু মন্তব্য করে খুন হয়ে যাবার মানে হয়ে না….প্রতিটা বিশশাশেরি কিছু উগ্র সমর্থক আছে, তাই আপনি যুক্তি দিয়ে, উদাহরণ দিয়ে সেনসিটিভে বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করতে পারেন, কিন্তূ আপনার বক্তব্য ও উগ্র ধাছের হওয়াটা কখনোই কাম্য নয়ে…যেকোনো বিষয় যা নিয়ে ভুল ধারণা ব্যাপক ভাবে সমাজে রয়েছে, তা হঠাৎ করেই দূর করা যায়ে না। আস্তে আস্তে এগুতে হয়ে। হঠাৎ কতু মন্তব্য করে মারা যাবার মানে হয়ে না। রাজীব ভাই বেচে থাকলে আমাদের হয়েতো অনেক কিছুই দিতে পারতেন, কিন্তূ ওনার অশাব্ধানতায়ে আজ উনি আর নেই….

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *