হুড আর হুজুরের গল্প

ছেলে বেলায় পড়া সেবা’র প্রকাশক কাজী আনোয়ার হোসেনের অনুবাদিত “রবিন হুড” বইটা এখনো পর্যন্ত আমার পড়া সবচেয়ে প্রিয় ৩ টা বইয়ের একটা …….. কাজীদার লেখনী শক্তি নিয়ে কথা বলার ধৃষ্টতা আমার নাই,  পাবলিক মাত্রই জানে যে কাজীদা কি জিনিস !! তবে কেবলমাত্র কাজীদার লিখার স্টাইলের কারণেই যে আমার কাছে এই বইটা অসম্ভব প্রিয় – তা নয় ,সেই  সাথে রবিন হুডের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য গুলোর কারণে ও বইটা আমার মন ছুঁয়েছিল এবং এখনো ছুঁয়ে আছে….


ছেলে বেলায় পড়া সেবা’র প্রকাশক কাজী আনোয়ার হোসেনের অনুবাদিত “রবিন হুড” বইটা এখনো পর্যন্ত আমার পড়া সবচেয়ে প্রিয় ৩ টা বইয়ের একটা …….. কাজীদার লেখনী শক্তি নিয়ে কথা বলার ধৃষ্টতা আমার নাই,  পাবলিক মাত্রই জানে যে কাজীদা কি জিনিস !! তবে কেবলমাত্র কাজীদার লিখার স্টাইলের কারণেই যে আমার কাছে এই বইটা অসম্ভব প্রিয় – তা নয় ,সেই  সাথে রবিন হুডের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য গুলোর কারণে ও বইটা আমার মন ছুঁয়েছিল এবং এখনো ছুঁয়ে আছে….

নটিংহ্যামের শেরউড জঙ্গলে রাজত্ব করা রবিন হুড ছিলেন ধনিক শ্রেণীর রক্ত চোষাদের জন্য এক  মূর্তিমান্‌ আতঙ্ক……  তাদের কাছ থেকে ধন রত্ন লুট করে তা গরীবদের বিলিয়ে দিতেন এই কিংবদন্তী …… তাই তাদের কাছে তিনি ছিলেন মহানায়ক,  কালক্রমে পুরো পৃথিবীর কাছেই তিনি মহানায়ক হয়ে গেলেন এবং এই একবিংশ শতকেও এ ধারা অব্যাহত আছে !!  তাকে নিয়ে কত গল্প গাঁথা, কত গান কবিতা নাটক সিনামা হৈছে তার ইয়াত্তা নাই….  এমন কি সাম্প্রতিক সময়েও ঢালিউডে  “গরীবের রাজা রবিন হুড” নামে ১ পিস সিনেমা রিলিজড হয়……

এই সেক্সী জমানায় ঢালিউডে এই টাইপের সিনেমার পেছনে অর্থ লগ্নি করা এক জন প্রযোজকের জন্য মোটামুটি “টেরিবল ডিসিশন” তবুও তিনি তা করেছেন, সুতরাং এটা বেশ সহজেই অনুমেয় যে এখনো এই কিংবদন্তির জনপ্রিয়তা কেমন !

সম্প্রতি আমরা রবিন হুডের সাথে তুলনীয় এমনই এক বঙ্গীয় কিংবদন্তি আবিস্কার করলাম, তিনি হচ্ছেন সুপার স্টার মোহাম্মদ আশরাফুল  ! তবে তিনি “হুড” হতে না পারলেও  “হুজুর” হতে  পেরেছেন ঠিকই !!! রবিন হুড ধান্ধাবাজি থেকে প্রাপ্ত অর্থ সম্পদ গরীবদের মাঝে  বিলিয়ে দিতেন আর আমাদের আশরাফুল “অশেষ নেকি হাসিলের” মহান  উদ্দেশ্যে ধান্ধাবাজির টাকা হুজুর আর মুয়াজ্জিনদের মধ্যে বিতরণ করেন, সেই সাথে তিনি আবার বনশ্রী জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি ও বটে !!!
অতএব এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে , গরীবের রাজা রবিন হুড, আর হুজুরের রাজা আশরাফুল হুজুর !!

আজ প্রাইম নিউজ নামে একটা অন লাইন নিউজ পোর্টালে আশরাফুলের বাপের বক্তব্য  দেখে ”পুরাই আবুল হোসেন” হৈ গেলাম ! আশা করি তার বক্তব্য টা শুনলে আমার মতো আপনারাও “নিঃশর্তে ” আবুল হোসেন হয়ে যাবেন ……তার সংক্ষিপ্ত  বক্তব্যের চুম্বক অংশ ->

“এমন একটা ঝড়ের পরও ঘরবন্দী হয়ে নেই আশরাফুল . সামাজিক কাজের পাশাপাশি নিয়মিত বসছেন নিজের রেস্টুরেন্টেও। জানালেন তার বাবা মতিন, ‘আশরাফুল কিন্তু ঘরে বন্দী থাকছে না।।  বনশ্রী জামে মসজিদ কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছে ও, কদিন আগে বেতনও দিয়েছে মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনকে। নিয়মিত যাচ্ছে রেস্টুরেন্টেও”  ……

২৮ thoughts on “হুড আর হুজুরের গল্প

    1. জয় ভাই , আশরাফুল আমার সবচেয়ে
      জয় ভাই , আশরাফুল আমার সবচেয়ে প্রিয় খেলোয়াড় , জাতীয় লীগে প্রথম বার খেলার সময় থেকেই সে সবার দৃস্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হৈছিল … আমার মতে এদেশের সর্ব কালের সেরা ব্যাটসমান এই আশরাফুল , তার দিনে সে প্রতিপক্ষের যে কোন বোলার কেই দুমড়ে মুচড়ে দিত , ন্যাচারাল স্ট্রোক প্লেয়ার , কপি বুক শট খেলে , তবে স্লোগিং ও সে অসাধারণ আইটেম …
      যে হার্মিসন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান দের নাকের জল চোখের জল এক করে ছেড়েছেন , সেই হার্মিসনের ক্যারিয়ার টাই প্রায় শেষ করে দিছিল সে …… কিন্তু এই লোক আমাদের সাথে যে ধরণের প্রতারণা করছে, তাতে তার সাথে থাকা আমার পক্ষে কোন ভাবেই সম্ভব না ….

        1. আপনার সাথে একমত, তার বিরুদ্ধে
          আপনার সাথে একমত, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ টা প্রমানিত না হলে ,আমিও আপিনার চেয়ে কম খুশি হতাম না ভাই …… কিন্তু তিনি যে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন, তাতে অভিযোগ প্রমানিত হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র …… আর ১৯৯৪ সাল থেকেই আমি ক্রিকেটের নিয়মিত খোঁজ খবর রাখি, আশরাফুলের এই বিষয় টা নিয়ে উৎপল শুভ্র না লিখে অন্য কেউ লিখলে তেমন একটা পাত্তা দিতাম না, কিন্তু উৎপল শুভ্র অন্য জিনিস , তাকে কখনোই আজাইরা কথা বার্তা লিখতে দেখি নাই ….. ড্যাম শিওর না হয়ে তিনি কখনোই এত টা সেনসেটিভ ইস্যু নিয়ে লিখবেন না, এব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে পারেন 🙂
          আর রফিকের একটা সাক্ষাৎকার দেখলাম কাল, সেখানে ম্যাচ পাতানোর ব্যাপারে বেশ কিছু তথ্য দিয়েছেন। সাবেক খেলোয়াড় সানোয়ার হোসেন কে তিনি ম্যাচ ফিক্সিং ও জড়িত থাকতে দেখেছেনবলে ও স্বীকারোক্তি দেন

        2. আর কি প্রমান চান?
          সে তো ভুল

          আর কি প্রমান চান?
          সে তো ভুল স্বীকারই করল?
          তবে আমিও আশরাফুলকে বলির পাঁঠা বানানোর বিপক্ষে…
          সমাজ ধ্বংসকারী দুর্নীতিবাজেরা ছাড় পাবে আর এমন সরল স্বীকারোক্তি করার পর তাঁকে ক্ষমা করাই জেতে পারে!!

  1. (No subject)
    :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    1. মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি
      মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি মাথা ঠুকি …khikzz

    1. বলেন কি ভাই, এখনো শ্রদ্ধা
      বলেন কি ভাই, এখনো শ্রদ্ধা থাকবে !!! মানুষ হিসাবে তিনি এখন আর শ্রদ্ধা পাবার যোগ্য না , আশরাফুলের এই কেলেঙ্কারী পুরা দুনিয়ার সামনেই আমাদের ল্যাংটা কইরা দিল ……..

  2. আমরা বাঙ্গালীরা যে কোন বিষয়েই
    আমরা বাঙ্গালীরা যে কোন বিষয়েই যে অন্ধ ভক্ত তা আশরাফুলের ভক্তকুলকে দেখলেই তা পরিষ্কার হয়ে যায়…

    1. বাংলা দেশের এ এক দানবিক
      বাংলা দেশের এ এক দানবিক সমস্যা , ৭১ এ জামাত কি করছে সে টা এদেশের মানুষ কত সহিজেই ভুলে গেল, হয়ত যে পরিবারের ২/৪ জন মানুষ পাখিদের হাতে মারা গেছে বা ধর্ষিত হৈছে, সেই পরিবারের ই লুকিন আরামসে এবং খুশি মনে জামাতিদের ভোটে দিছে !!! যা খালেদার জামাই এরশাদের অঙ্গুলি হেলনে মারা গেছে , সেই এরশাদের লগে পরে আবার জোট বাঁধার জন্য, হাতে পায়ে ধরতেও কসুর করেন নাই আমাদের মাননীয় বিরোধী দলীয় নেত্রী….. তাদের অবস্থাই অন্ধের মতো আর আমরা একেবারেই সাধারণ মানুষ! !! অন্ধ বিশ্বাসী না হৈ উপায় নাই !!!

  3. সব অপরাধীরই বিচার হওয়া
    সব অপরাধীরই বিচার হওয়া উচিৎ।।
    তবে সে যদি অনুতপ্ত হয়ে থাকে তবে ক্ষমা করাই জেতে পারে
    কেননা এরা বড় রাগববয়ালদের কারণে আজ বলির পাঁঠা…

    1. তারেক ভাই, ক্ষমা করা হলে এটা
      তারেক ভাই, ক্ষমা করা হলে এটা নতুন প্রজন্মের জন্য একটা বাজে দৃষ্টান্ত হিসাবে পরিগণিত হবে না তো আবার! !

  4. যুবায়ের তানিম নামটা পরিচিত
    যুবায়ের তানিম নামটা পরিচিত লাগে, দি ডিটেকটিভস গ্রুপের যুবায়ের তানিম নাকি??!! :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :-B :-B :-B :-B

    1. নারে ভাই, আমি ডিটেকটিভ গ্রুপ
      নারে ভাই, আমি ডিটেকটিভ গ্রুপ তো দূরের কথা, “সন্ত্রাসী গ্রুপেও” নাই ……:P
      আর যুবায়ের নাম টা খুব কমন, ব্লগ বা ফেস বুকে সার্চ মারলে এই নামের লাখ লাখ পাবলিক পাওয়া যাবে 😀

  5. আমি আর আশফুলের পক্ষে নাই।
    আমি আর আশফুলের পক্ষে নাই। জানি এর চেয়েও বড় বড় চোর বাংলাদেশে আছে। কিন্তু সেইসব চোরদের আমরা কেউ ভালোবাসি নাই। আশরাফুলরে আমরা ভালবাসছিলাম। সে সেই ভালোবাসার মূল্য টাকার কাছে বেঁচে দিয়েছে। আমি তার বিচার চাই। সাথে জড়িত সকল রাঘব বোয়ালেরও বিচার চাই। বন্ধ হোক বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়ে বাজী খেলা।

    1. আতিক ভাই অসাধারণ বলছেন,
      আতিক ভাই অসাধারণ বলছেন, পুরোপুরি একমত ….. পোলা-পাইন যখন তাকে নিষিদ্ধ না করার দাবী তে মানব বন্ধন করে আর তা ফলাও করে বৈশ্বিক মিডিয়া আলোচিত হয় তখন আসলে দুঃখ লাগে…… আরে যে নিজেই স্বীকার করছে যে সে ম্যাচ ফিক্সিং এ জড়িত ছিল, তার জন্য আবার এতো কিসের সিমপ্যাথি !!!!
      পোলা-পাইন যখন এমন আন্দোলন চালিয়ে যায় , তখন রাগটা আরো বেশি লাগে , সেক্ষেত্রে এদেরকেও আশরাফুলের দোষর মনে হয় ……..

      ফিক্সিং যে করে আর ফিক্সিং যে সহে
      তব ঘৃণা তারে যেন তৃনসম দহে…

    2. আতিক ভাই আশরাফুল আলাদা বলেই
      আতিক ভাই আশরাফুল আলাদা বলেই তো তার জন্য সবার আলাদা একটা স্থান থাকবে।যেটা শুধুই ক্ষমার ।

      1. রাইয়ান ভাই, তার নাম আশরাফুল,
        রাইয়ান ভাই, তার নাম আশরাফুল, এটাই সবচেয়ে বড় সমস্যা….. ফিক্সারের নাম আশরাফুল না হয়ে অন্য যে কেউ হলে এইটা নিয়ে তেমন ভাবে কেউ আলোচনাও করত না এবং আমাদের এতটা খারাপ ও লাগত না হয়তো ….
        যেমন গত বারের বিপিএলে ফিক্সিং এ জড়িত থাকার অভিযোগে প্লাবন নামে সাবেক এক ক্রিকেটার কে নিষিদ্ধ করা হয় … এটা নিয়ে কেউ চিন্তাই করতেই রাজি ছিল না তখন এবং তেমন ভাবে আলোচনা ও হয় নাই …..কারণ সে আশরাফুল না ….

        আরেকটা ব্যাপার – হানসি ক্রনিয়ে কেবল সাউথ আফ্রিকা না, পুরা বিশ্বেই ক্রিকেটারদের একজন রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হতেন …..সাধারণ মানুষের কাছে তিনি ছিলেন ক্রিকেটের দেবদূত …. এবং বর্তমানে বাংলাদেশের জন্য আশরাফুল যতটা গুরুত্ব পূর্ণ, সাউথ আফ্রিকার জন্য ক্রনিয়ে তার চেয়ে অনেক বেশী গুরুত্ব পূর্ণ ছিলেন ……. ক্রিকেটের আধুনিকায়নে তার বিশাল অবদান, ক্রিকেটে সফিস্টিকেটেড টেকনোলজির আমদানিকারক ছিলেন তিনি আর বব উলমার …… ক্রিকেট কে সমৃদ্ধ করেছেন – এই বিবেচনায় কি তার ৭ খুন মাফ হয়ে যাবে! !!!!
        না হবে না, কারণ ক্রিকেট কে তিনি যত টা মহিমান্বিত করেছেন , তার চেয়ে অনেক বেশী কলঙ্কিত করেছেন ….. তার যথাযোগ্য শাস্তি তিনি জীবদ্দশাতেই ভোগ করতে বাধ্য হৈছেন, কারণ আইন সবার জন্যই সমান ….

        পাশের দেশ ভারতের দিকে একটু নজর দিলে দেখবেন, তাদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসমান এবং অধিনায়ক ছিলেন মুহাম্মদ আযহার উদ্দীন, ডেব্যু টেস্টেই সেঞ্চুরী সহ টানা ৩ টেস্টে সেঞ্চুরী করে তার স্বপ্নিল ক্যারিয়ার শুরু হইছিল … কিন্তু যখনই তার সাথে বাজিকরদের সংস্লিষ্টতা পাওয়া গেলো, সাথে সাথেই থেকে সাময়ক বাবা বরখাস্ত করে দ্রুত গতিতে বিচার শুরু করা হলো & রায়ে তাকে আজীবনের জন্য ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করা হলো… যখন তাকে বহিষ্কার করা হয় , তখন তিনি ছিলেন ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক ….. ৯৯ টা টেস্ট খেলার পর বহিস্কৃত হওয়া এই ব্যাটস ম্যান মাত্র একটা টেস্ট খেলতে চেয়েছিলেন, শততম টেস্ট খেলে ইতিহাস গড়ার জন্য …. কিন্তু সুযোগ পান নাই এবং এটাই যথার্থ বিচার….
        একই শাস্তি তার তত্‌কালীন সহ অধিনায়ক অজয় জাদেজার জন্য ও প্রযোজ্য হইছে…..
        এমনকি পাকিস্তানের মত দুর্নীতি গ্রস্থ দেশ ও সেলিম মালিকের মত ক্রিকেটার কে বহিষ্কার করতে পিছ পা হয় নাই ! আর আমির-আসিফ-বাট দের ঘটনা তো এখন তরতাজা…..
        আমাদের উচিত তাদের কে ফলো করা ও , নৈলে বাংলদেশে এই ক্যানসার চিরস্থায়ী আস্তানা গাড়বে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *