একজন রাসেল রহমান যেভাবে হয়ে গেলেন ব্রাসেল রহমান

সময়কাল ১৯৭৮ মে ১৫ রোজ সোমবার পৃথীবি আলোকিত করে পয়দা বরন করেন আমাদের মহা মান্য রাসেল ভাই, ও উনার জম্মস্থানতো বলা হয়নি রাসেল ভাইয়ের পৈতৃক নিবাস কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোট থানার শুভপুর ইউনিয়নের শুভপুর গ্রাম হলেও ভাইয়ের মহান পয়দা বরন হয় ফেনীতেই, ফেনীর মহিপাল টা উনার বার্থ প্লেস, ফেনীর মহিপালস্থ বৌদ্ধ বাড়ী ই উনার বাপের শশুড়ালয় এইখানেই উনি পৃথীবি গমন করেন প্রথমবার, তখনো নাকি মহিপালে সেভাবে জনবসতি গড়ে উঠেনি, যাই হোক উনার শৈশব কৈশর এই মহিপালেই কেটেছে খুব স্বাভাবিক যৌবন কালটাও এই মহিপালেই কেটেছে উনার। বাপের বংশ রহমান বংশ হলেও নানার বংশ চৌধুরী বংশ। তো উনি বংশের ডাবল স্ট্যান্ডার্ড বজায় রেখে চলতেন বিশেষ করে মেয়েদের ক্ষেত্রে উনি রাসেল চৌধুরী আর পুরুষ বা বন্ধুবান্ধব কিংবা পুরা মহিপালে উনি রাসেল রহমানেই চলতেন, বর্তমানে মহিপালস্থ জিয়া মহিলা কলেজের ঠিক উল্টা দিকে সাবেক সী লাইন বাস কাউন্টারের ফিছনে রাসেল ম্যানশনেই উনি অবস্থান করতেছেন, ব্যাক্তি জীবনে রাসেল ভাই পরিবারের তিন ভাইবোনের সদস্যদের মধ্যে উনি ই সবার বড় তার পর উনার বোন নিশিতা রহমান বর্তমানে মিঃ আজাদের সহ ধর্মীনি তার পরে উনার ছোট ভাই বাবু রহমান, উনার মামা মহিপাল বি এন পির প্রভাবশালী নেতা শহীদ উদ্দীন চৌধুরী ভাইয়ের বাপের নাম তফাজ্জল হোসেন মা মিসেস শাহিদা বেগম, ভাইয়ের বাবা মহোদয় যথেষ্ট ভদ্র মানুষ হলেও উনার আম্মু আবার প্রভাব বিস্তারকারী মহিলা পাড়ায় কেউ কেচালে জড়ালে কেউ ডাক না দিলেও উনি স্বেচ্ছায় বিচারক সাজতে যাবেন ই যাকে বলে গায়ে মানেনা আপনি মোড়ল। আমাদের মহা মান্য রাসেল ভাইয়ের মহান জীবনী আজ এই পর্যন্ত বাকিটা চলবে

৭ thoughts on “একজন রাসেল রহমান যেভাবে হয়ে গেলেন ব্রাসেল রহমান

  1. ব্রা সেল করেই খেতে হবে, বাট
    ব্রা সেল করেই খেতে হবে, বাট করবে কোথায়?? কিউরিয়াস মাইন্ড ওয়ান্ট টু নো

  2. দূর মিয়া ভাই আপনার কিউরিয়াস
    দূর মিয়া ভাই আপনার কিউরিয়াস মাইন্ড তো অনাগত সত্য প্রকাশ করে দিচ্ছে সেলের ব্যাপারটি কাহিনিতে আছে। হতাশ পন্থি ভাই কি মহিপাল বা তার আসে পাশে ছিলেন নাকি কোন এক সময়?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *