প্রতিশোধ

(১)
এক্সকিউজ মি, আমি কি ডাঃ ইয়াসমিন হায়দার এর সঙ্গে দেখা করতে পারি?
আপনার কি আপয়েন্টমেন্ট নেয়া আছে?
না।
তবে তো আজকে হবে না।
দেখুন আমি নিজে একজন ডাক্তার। আর উনার কাছে রুগী হিসেবে আসিনি।
পার্সোনাল ব্যাপারে চেম্বারে দেখা করবেন?
ঠিক পার্সোনাল না। আমি ঠিক বোঝাতে পারছি না। আমার দেখা করা খুবই দরকার। প্লিজ।



(১)
এক্সকিউজ মি, আমি কি ডাঃ ইয়াসমিন হায়দার এর সঙ্গে দেখা করতে পারি?
আপনার কি আপয়েন্টমেন্ট নেয়া আছে?
না।
তবে তো আজকে হবে না।
দেখুন আমি নিজে একজন ডাক্তার। আর উনার কাছে রুগী হিসেবে আসিনি।
পার্সোনাল ব্যাপারে চেম্বারে দেখা করবেন?
ঠিক পার্সোনাল না। আমি ঠিক বোঝাতে পারছি না। আমার দেখা করা খুবই দরকার। প্লিজ।
আমি একটা কাজ করতে পারি, আপনি স্লিপ লিখে দিন। আপনার নাম আর পরিচয় দিয়ে, আমি ভেতরে পাঠিয়ে দিচ্ছি।
উনি যদি দেখা না করেন?
তাহলে তো আমার কিছু করার নাই।
একটা কিছু করা যায় না?
আপনার কি কোন আত্মীয়ের সিরিয়াল লাগবে? ডাক্তারদের রিলেটিভের জন্য আমরা সিরিয়ালে কনসিডার করি। আমিই পারবো, করে দেব?
প্লিজ, আমি উনার সঙ্গে কেবল এক মিনিট কথা বলব।
আপনি স্লিপ লিখে দিন, দেখি কি করা যায়।
প্রায় তিন ঘণ্টা হোল বসে আছি। এখন রাত নয়টা বাজে। আর রুগী আছে মাত্র দুইটা। এরপরে ডাক পড়বে কি না জানি না। কি করব বুঝে পাচ্ছি না। ভেবে রেখেছি শেষ রুগী বের হবার পরেই গার্ডকে ধাক্কা দিয়ে আচমকা ঢুকে যাব। তারপর যা হবে দেখা যাবে।
রিসেপসানিস্ট মহিলা মনে হয় চেষ্টা করছেন। বাইশ তেইশ বছরের একটা মেয়ে প্রায় তিন ঘণ্টা হোল বসে আছে, একটু বোধহয় মায়া লেগেছে। উনি দুইদিন পরে একটা সিরিয়াল দিতে চেয়েছেন। কিন্তু আমি তো আর ফারটিলিটির কোন সমস্যা নিয়ে আসি নি। শুধু তো একটা কথা জানতে চাইবো।
শেষ রুগীটার পরে আপনাকে ডেকেছেন।
আপনাকে কি বলে যে থ্যাংকস দিব।
আমাকে কিছু বলতে হবে না, আপনি সুযোগ পেয়েছেন অন্য কারণে।
কি কারণে?
ম্যাডামকে যখন বললাম, মনে হয় আপনার রিলেটিভ, তখন রাজী হলেন।
কিন্তু আমি তো রিলেটিভ না।
ওই যে, শেষ জনের হয়ে গেছে। চলুন।
এখন আর ভুল ভাঙ্গানোর সময় নাই। ছুটলাম। কি বলব, কিভাবে বলব, কিছুই তো ঠিক করে আসি নি। হুট করেই চলে এসেছি। এখন ভয় ভয় লাগছে। যদি ঠিকমত বলতে না পারি, উনাকে বোঝাতে না পারি? উনি যদি কোঅপারেট না করেন?
দরজা ঠেলে ঢুকলাম। বিশাল সেক্রেটেরিয়েট টেবিলের পিছনে বসে আছেন। উনিই ডাঃ ইয়াসমিন হায়দার? এতো…
(২)
ম্যাডাম, একটা মেয়ে দেখা করতে চায় বলেছিলাম।
এসব কেন রাখ? জানই তো আমি সিরিয়ালের বাইরে দেখা পছন্দ করি না।
মেয়েটা ডাক্তার, আর তাছাড়া…
তাছাড়া?
মনে হয় আপনার রিলেটিভ।
কেন মনে হয়?
একদম আপনার মত দেখতে। আপনার গ্র্যাডুয়েশানের ছবিটা, দেয়ালে যেটা আছে, একদম হুবহু।
তাই? ইন্টারেস্টিং! ঠিক আছে রুগী শেষ হলে পাঠিয়ে দাও।
চমকে উঠলাম মেয়েটাকে দেখে। আমার সঙ্গে সত্যিই মিল। যে কেউ বলবে আমার রিলেটিভ। কিন্তু এসেছে কেন? সত্যিই কি রিলেটিভ? আমরা দুই বোন। দুজনেরই কোন মেয়ে নেই। দুই ভাই, দুজনেরই একটি করে মেয়ে। এর বাইরের রিলেশান খুজতে গেলে তো বিশাল কাহিনী। না আর চিন্তা করব না।
বস।
ধন্যবাদ। আমি নুসরাত চৌধুরী। এবার এম বি বি এস পাশ করলাম।
কংগ্র্যাচুলেশান। এখানে কেন?
আমি বোধহয় আপনাকে ঠিক গুছিয়ে বলতে পারবো না।
বেশ তুমি সময় নিয়েই বল। এখানে ট্রেনিং নিতে চাও?
না ম্যাডাম। আমার একটা প্রশ্নের উত্তর খুজতে এসেছি।
মানে?
আমার ব্লাড গ্রুপ AB
সো?
আমার বাবার O, মায়ের ও O
এর সঙ্গে এই ফারটিলিটি সেন্টারের সঙ্গে কি কোন রিলেশান আছে?
জি ম্যাডাম। আমার মা বাবা এখানেই ট্রিটমেন্ট নিয়েছিলেন আজ থেকে ২৫ বছর আগে। অ্যান্ড আই অ্যাম অ্যা টেস্ট টিউব বেবি।
কনফিডেনশিয়াল কোন ইনফরমেশান আমি শেয়ার করব না। আই অ্যাম সরি।
সেটা আমি জানতে চাইছি না। শুধু জানতে চাইছি কোথাও কোন ভুল হয়েছিল কি না?
মানে?
আমার বাবা মা যদি এই দুইজন হন, দেন আমার ব্লাড গ্রুপ AB হতে পারে না। সো আইদার দেয়ার ইজ স্পার্ম ডোনেশান অর ওভাম ডোনেশান । আমার মায়ের সঙ্গে কথা বলে, আর এই হসপিটালের ডিসচার্জের কাগজ ঘেটে পেয়েছি, এমন কিছু ঘটে নি। সো দেয়ার মাস্ট বি এ হিউমেন এরর। আমি আমার আসল বাবা মার নাম চাই।
বেশ কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকলাম মেয়েটার দিকে। উত্তেজনায় টানটান অবস্থা। নাকের মাথায় বিন্দু বিন্দু ঘাম। উত্তর দেয়া জরুরী না। ক্লায়েন্টদের সব তথ্য গোপন রাখা হয়। স্পার্ম ডোনেশান বিশেষ করে। মেয়েটার জন্য মায়া লাগছে। ওর অবস্থায় আমি থাকলে আমিও হয়তো এমনই অস্থির হতাম। হয়তো ওর মা জানে না, বাবা সব জানে। মেয়েটাকে শান্ত করা দরকার।
তোমার বাসা কোথায়?
রংপুর।
বাবা?
উনিও ডাক্তার। প্রফেসার আসাফউদ্দৌলা চৌধুরী। সার্জন।
তুমি…
(৩)
মামুন ভাই আমার তিন বছরের সিনিয়র ছিলেন। বেশ ব্রিলিয়ান্ট। চেহারাও দুর্দান্ত। ভালো ডিবেট করতেন। আমরা অনেক মেয়েই মনে মনে তাঁকে চাইতাম। কার দিকে কতক্ষণ তাকিয়েছে, এই নিয়ে প্রায়ই আলোচনা হত আমাদের মধ্যে। কেমন করে যেন আমার ভাগ্যে শিকে ছিঁড়ল। উনি পাশ করার আগে পর্যন্ত আমরা কাপল ছিলাম। প্রতিদিন লেডিস হোস্টেলে আসা, একসঙ্গে ঘুরে বেড়ানো স্বপ্নের মত ছিল দিনগুলো।
মামুন ভাই পাশ করে গেলেন। পোস্টগ্র্যাজুয়েশানে ও একবারেই চান্স পেলেন। এরপর শুরু হল ট্রেনিং। ঢাকায় ফাঁকা না পাওয়ায় চলে গেলেন রংপুর। এর কিছুদিন পরে খবর পেলাম মামুন ভাই বিয়ে করছে। একজন বিখ্যাত সার্জনের একমাত্র মেয়েকে। কিছুদিন কান্নাকাটি করলাম। অনেকে অনেক ধরনের সান্তনা দিল। ‘বাজে ছেলে’ ‘লোভী’। একসময় সামলে উঠলাম। পাশ করলাম। চাকরীর খোঁজে যখন ঘোরাঘুরি শুরু করব তখন ম্যাডাম একদিন বললেন, আমার ফার্টিলিটি সেন্টারে চলে এসো।
ভালো লেগে গেল। এই বিষয়েই পড়াশুনা করব ঠিক করলাম। খুব মনোযোগ দিয়ে কাজ শিখতে লাগলাম। অনেক কাজ এখন একাই পারি। তারপরও ম্যাডাম পাশে থাকেন। একদিন একটা কেস হিস্ট্রি হাতে এল। ডাঃ আসাফউদ্দৌলা চৌধুরী। এতো মামুন ভাই এর। বিয়ের পাঁচ বছর হয়ে গেছে। এখনও কোন ইসু হয় নি। প্রাথমিক টেস্টে কারো কোন সমস্যা আসে নি। টেস্ট টিউব বেবী নিবেন।
কেন যেন এতদিনের চেপে রাখা রাগ ফেটে বেরোল। ঠিক করলাম প্রতিশোধ নেব। আমাকে ছুঁড়ে ফেলে দেয়ার শাস্তি দিব। আমার চিহ্ন তাঁদের ঘরে চিরস্থায়ী করে দিব। কাজটা আমার জন্য সহজ ছিল। ম্যাডাম আমার ওপর পুরপুরি নির্ভর করতেন। একদিন শখের বশে ম্যাডামকে দিয়ে আমার ওভামের স্পেসিমেন কালেক্ট করিয়ে রেখেছিলাম। রেফ্রিজারেটারে ছিল। সেদিন শুধু ওভামের স্পেসিমেন পাল্টে দিয়েছিলাম। আমার নিজেরটা দিয়েছিলাম। আজ আমার সেই প্রতিশোধ আমার সামনে দাঁড়িয়ে।

লেখাটা এর আগে সামু, নাগরিক এ দিয়েছিলাম।

১৮ thoughts on “প্রতিশোধ

  1. প্রতিশোধ ব্যাপারটা সাধারন,
    প্রতিশোধ ব্যাপারটা সাধারন, তবে এর ধরন বিশেষ্যতাই গল্পের মুখ্য উপাদান।

  2. আপনার অধিকাংশ গল্প ডায়লগ
    আপনার অধিকাংশ গল্প ডায়লগ নির্ভর। গল্পের গভীরতা কম। পাঠককে চিন্তা করাতে সাহায্য করে না।
    যা হোক এটা আমার নিজস্ব মত। সব গল্প আমার মতের সাথে মিলবে তাতো নয়।

  3. পুরান ওয়াইন এর বোতলে নতুন
    পুরান ওয়াইন এর বোতলে নতুন মন্তব্য দিলাম । – ” সিরম না তবে ভাল লেগেছে” :থাম্বসআপ:

  4. গল্পটা পড়া ছিল আগে। এখন বুঝতে
    গল্পটা পড়া ছিল আগে। এখন বুঝতে পারলাম আপনি কে?
    আগের বার পড়ে যেমন ভালো লেগেছিল, এবারো সমপরিমান ভালো লাগল। আপনার টুইস্টগুলা আসলেই ভালো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *