সময়ের গতিবেগে সাময়িক ঘটনা গুলো যেন পিছনেই পরে গিয়েছে।

যখন কোন ঘটনা ঘটে মিডিয়া সহ সকলের দৃষ্টির কেন্দ্রবিন্দু থাকে সেগুলো কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় তা দৃষ্টিগোচর হয়ে যায়। মিডিয়া গুলোও তা নিয়ে প্রচার প্রচারনা বন্ধ করে দেয়।

২০১২ সালের ২রা ফেব্রুয়ারি নিজ বাসায় খুন হয় সাগর-রুনী সাংবাদিক দম্পত্তি। সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনী ছিলে খ্যাতিমান দুই সাংবাদিক। এই সাংবাদিক দম্পত্তির খুনের ঘটনা নিয়ে প্রথম অবস্থা মিডিয়া গুলোর নানা প্রতিবেদন থাকলেও বর্তমানে তা নেই বললেই চলে। এযেন এক ছোট ঘটনা তাই ভুলে গিয়েছে সবাই।


যখন কোন ঘটনা ঘটে মিডিয়া সহ সকলের দৃষ্টির কেন্দ্রবিন্দু থাকে সেগুলো কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় তা দৃষ্টিগোচর হয়ে যায়। মিডিয়া গুলোও তা নিয়ে প্রচার প্রচারনা বন্ধ করে দেয়।

২০১২ সালের ২রা ফেব্রুয়ারি নিজ বাসায় খুন হয় সাগর-রুনী সাংবাদিক দম্পত্তি। সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনী ছিলে খ্যাতিমান দুই সাংবাদিক। এই সাংবাদিক দম্পত্তির খুনের ঘটনা নিয়ে প্রথম অবস্থা মিডিয়া গুলোর নানা প্রতিবেদন থাকলেও বর্তমানে তা নেই বললেই চলে। এযেন এক ছোট ঘটনা তাই ভুলে গিয়েছে সবাই।

এর পর আশুলিয়ায় অবস্থিত তাজরিন গার্মেন্টসে ভয়াবহ আগুন। ২৪ শে নভেম্বর ঘটে এই বড় দুর্ঘটনাটি। যা কেরে নেয় ১২১ টি গার্মেন্টস কর্মীর প্রান। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে আগুনের সম্ভাব্য কারন বৈদ্যুতিক সর্টসার্কিট। এ ঘটনাটির বেলায় ও প্রথম দিকে প্রচার প্রচারনা ও নানা আলাপ আলোচন থাককেও বর্তমানে কোন কিছু চোখে পড়ে না এ বিষয় নিয়ে।

এর পর ৯ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে ছাত্রলীগের কিছু কর্মীর হাতে খুন হয় বিস্বজীত। সংবাদ মাধ্যম সহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে হত্যা কান্ডটির ভিডিও ফুটেজ থাকলেও তাদের ধরতে তেমন কোন পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। তবে ২৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট করা হয়। সেই সময়কার আলোচনার শীর্ষে থাকলে তা যেখন আজ শুধু ইতিহাস হয়েই রয়ে গেছে।

এর পর হল দেশের ইতিহাসের ভয়াবহ ভবন ধ্বস । ২৪ শে এপ্রিল ২০১৩ তারিখে সকাল ৮:৪৫ মিনিটে ধ্বসে পরে সাভারে অবস্থিত রানা প্লাজা। প্রধান মন্ত্রির নির্দেশে কিছুক্ষনের মধ্যেই উদ্ধার অভিযানে যোগ দেয় বাংলাদেশ সেনাবাহীনি।
উদ্ধার অভিযানে সেনাবাহীনি , ফায়ারব্রিগেডের পাশাপাশি উদ্ধার কাজে সহায়তা করেন সাধারন মানুষ। দেশের বিভিন্ন সংগঠন ও সাধারন জনগন খাদ্য পানি টর্চ লাইট রক্ত ইত্যাদ সরবরাহ করে উদ্ধার কার্যে সহায়তা করেন ।
কিন্তু দু:খের বিষয় এই যে এত প্রচেষ্টার পর ও দুর্ঘটনাটি কেরে নিয়েছে প্রায় ১১২৭ জনের প্রান। তাদের মধ্যে অধিকাংশ ই ছিলেন গার্মেন্টস কর্মী। তবে জীবিত উদ্ধার হয় প্রায় ২৫০০ জন।
রানা প্লাজার ধ্বংস স্তুপে চাপা পড়া শাহীনাকে উদ্ধার করতে গিয়ে অগুন লেগে গেলে সেনা কর্মকর্তা ইয়াজ উদ্দীন আহমেদ কায়কোবাদ অগ্নি দগ্ধ হন তার শরীরের প্রায় ৫৫শতাংশ পুরে যান। এত কিছুর পরেও শাহীনাকে উদ্ধার করা যায় নি । যা পুরো দেসবাসীকে অশ্রুসিক্ত করেছে। সাহসী উদ্ধার কর্মী কায়কোবাদ কে উন্নত চিকিতসার জন্য সিঙ্গাপুরে পাঠানো হলেও বাচানো যায় নি তার প্রান।

এর পর মহান আল্লাহ এর রহমতে ধ্বংস স্তুপে ১৭ দিন আটকে। থাকার পর ও একজন কে জীবিত পাওয়া যায়। গার্মেন্ট কর্মী রেশমার বাচার আর্তনাদ শুনে উদ্ধার কর্মীরা তাকে উদ্ধারে আত্মনিয়োগ করেন।
প্রায় একঘন্টার এ শ্বাস্রুদ্ধকর উদ্ধার অভিযানে উদ্ধার হয় রেশমা ।
যা উদ্ধার কর্মীদের শাহীনা কে উদ্ধারের ব্যর্থতা লাঘব করতে কিছুটা সহায়তা করে। এবং নতুন উদ্দীপনা যোগায়। কিন্তু এটাই ছিল ধ্বংস স্তুপে শেষ জীবিত মানুষ ।
১৩ মে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত করে দেয়া হয়।

এছাড়া নিমতলার ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ,শেয়ার বাজার ধ্বস, পদ্মাসেতু দুর্নীতি, হলমার্ক কেঙ্গারি, হেফাজত ইসলামের সমাবেশ এ সহিংসতা কোরা-আন পুড়ানী সহ রাজনৈতিক নানা অস্থিতিশীলতা যা বিস্ব বাজারে দেশের ভাব মুর্তী নষ্ট করেছে ।

কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় তা শুধু খাতা কলমে ও খবরের কাগজের টুকরায় যেন আবদ্ধ হয়ে গিয়েছে। ।

৬ thoughts on “সময়ের গতিবেগে সাময়িক ঘটনা গুলো যেন পিছনেই পরে গিয়েছে।

  1. এই অভিযোগটি আমরা সবাই করে
    এই অভিযোগটি আমরা সবাই করে আসছি। আমিও নিজেও এর কোন সমাধান খুঁজে পাই না। আপনি নিজেই চিন্তা করে দেখুন একটার পর একটা এতো বড় বড় ঘটনা ঘটে কিন্তু কোন বিচার আদৌ হচ্ছে কিনা তার আপডেট আমরা পাই না, বা পত্রিকায় আপডেট ছাপা হলেও আমদেড় নজর এড়িয়ে যায়। কারন ওইসময় আমরা ব্যস্ত থাকি তাৎক্ষণিক কোন হট ইস্যু নিয়ে। এভাবে চলতে থাকলে দেশের আইন ও বিচার বিভাগের উপর আস্থা কমে যেতে বাধ্য।

    1. আমি ও তাই ভেবে চুপ। কিন্তু
      আমি ও তাই ভেবে চুপ। কিন্তু ভাই দেখুন এখন তো কোন ঘটনা ঘটছে না। আমি সকল দোষ দেব এই মিডায়া গুলোর্। তার সঠিক তথ্য আমাদের দিতে পারেন না।

      কোন এক পায়ে ঘা থাকার পর নতুন করে অন্য পায়ে ঘা হলে নতুন ঘা এর দিকে নজর যাবে এটা স্বাভাবিক। কিন্তু পুরাতন ঘা এর দিকেও একবার হলেও নজর যাবে।

      দেশের সার্বক্ষনিক দুই টি সংবাদ চ্যনেল এটিএন নিউজ ও সময় তারা এখন কি করছে??।

      এটা ভেবে দেখুন।
      আমি এই লেখা লেখির যগতে নতুন । কিন্তু আপনারা অনেক আগের্।

      আপনারা চাইলে অনেকের ই দৃষ্টি আকর্ষন করতে পারবেন। তাই এই ব্যপারে আপনাদের যথাযথ পদক্ষেপ কামনা করছি।

  2. অল ইস পলিটিকাল গেইম ।।
    অল ইস পলিটিকাল গেইম ।। গেইনার হচ্ছে ” পলিটিশিয়াল ” রা ,আর কা কা করে কাঁদছে ” মেংগো জনগণ ” রা ।।

    নীড ফর সিসটেম রিফরম্যাসন ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *