গণতন্ত্র মানে কি?

গণতন্ত্র মানে কি?
হরতাল আর বোমার আঘাতে , উড়ে যাওয়া পুলিশের কব্জি?
গণতন্ত্র মানে কি?
সংখ্যালঘুর উপর, গরিষ্ঠের আক্রমণের হুমকি?
গণতন্ত্র মানে কি?
দায়িত্বহীন রাজনৈতিক কর্মসুচী ঘোষনা আর শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ক্ষতি?
গণতন্ত্র মানে কি?



গণতন্ত্র মানে কি?
হরতাল আর বোমার আঘাতে , উড়ে যাওয়া পুলিশের কব্জি?
গণতন্ত্র মানে কি?
সংখ্যালঘুর উপর, গরিষ্ঠের আক্রমণের হুমকি?
গণতন্ত্র মানে কি?
দায়িত্বহীন রাজনৈতিক কর্মসুচী ঘোষনা আর শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ক্ষতি?
গণতন্ত্র মানে কি?
পিকেটিংয়ের নামে জবরদস্তি !
আর ব্যস্ত রাস্তা শুণ্য হয়ে যাবার স্মৃতি
ও পটকার ধোঁয়া এবং বোমা ফাটাফাটি?
গণতন্ত্র মানে কি?
স্বাধীনতা বিরোধীর আস্ফালন
আর মুক্তিযোদ্ধার আক্রান্ত হবার ভীতি?
গণতন্ত্র মানে কি?
জাতির পিতার মৃত্যু ও স্বাধীনতা বিরোধীর শক্তিবৃদ্ধি?
গণতন্ত্র মানে কি?
ডিজিটাল বাংলাদেশের নামে
স্বল্প শিক্ষিতকে দেয়া যন্ত্রের ফাঁকি?
গণতন্ত্র মানে কি?
উচ্ছৃংখল ও ধর্মান্ধদের হাতে দেশ প্রেমিককে নাস্তিক ঘোষনার নথি?
গণতন্ত্র মানে কি?
সন্ত্রাস, জ্বালাও, পোড়াও এবং বিচ্ছৃংখলা সৃষ্টি করে
গৃহযুদ্ধের ভীতি?
গণতন্ত্র মানে কি?
এখন জরুরী হয়েছে আগে, গণতন্ত্রের স্বরূপ বুঝি।
গণতন্ত্র মানে কি?
অন্যের অধিকার মেনে,
পরমত সহিষ্ণু হয়ে;
গণতন্ত্রের চর্চা করি।
কিন্তু বলতে পারেন গণতন্ত্র কি?
গণতন্ত্র মানে কি?
গণতন্ত্রকে কোলে পিঠে নিয়ে
কেয়ারটেকার সরকারের নানা তদারকি।
গণতন্ত্র মানে কি?
নির্বাচিত সরকারের অধীন
বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন না হওয়ার
অমোঘ নিয়তি?
গণতন্ত্র মানে কি?
অন্যের ভোট দিয়ে দেওয়া ও ব্যালট বাক্স হাইজ্যাক করে
ফলাফল পালটে দেবার ভেলকি?
গণতন্ত্র মানে কি?
পেছনে দিয়ে এসে গদিতে বসে
হ্যাঁ-না ভোটে মসনদে
থাকার মহাবুঝরুকি।
গণতন্ত্র মানে কি?
এই গণতন্ত্র মানে কেয়ারটেকার সরকারের জন্য
জ্বালিয়ে, পুড়িয়ে মানুষকে মেরে
ক্ষমতায় যাবার কান্নাকাটি?

১৮ thoughts on “গণতন্ত্র মানে কি?

  1. আশা করি শহীদ নুর হোসেনের অধরা
    আশা করি শহীদ নুর হোসেনের অধরা কাজটা আপনাকে দিয়ে পূরণ হবে ……………… :থাম্বসআপ:

    1. এ উক্তিটি অসত্য বলে মেনে নেব
      এ উক্তিটি অসত্য বলে মেনে নেব না। তবে এর মাঝে লুকিয়ে আছে একটি দুঃখ অনিশ্বেষ- এটুকু মানব

    1. গণতন্ত্রের শিকড় নষ্ট হয়ে
      গণতন্ত্রের শিকড় নষ্ট হয়ে গেছে,এখন নতুন তন্ত্রেরি যদি দরকার হয় সে তন্ত্রের শেকড়ের আকড়টা কেমন হবে, সেটাই সবার আগে নির্ধারণযোগ্য। গ্রিক নগররাস্ট্রের গণতন্ত্রের থেকে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী গণতন্ত্র হয়ে, ভারতীয় আধা সামান্ততান্ত্রিক গণতন্ত্র ও সাম্প্রদায়িক গণতন্ত্র – কোন উদাহরণটি আমাদের জন্য সুখকর?

  2. কোনটাই আমাদের জন্য সুখকর নয়,
    কোনটাই আমাদের জন্য সুখকর নয়, দেখুন আপনি জেনে থাকবেন যে,একটি দেশের সার্বিক (অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক) অবস্থার উপর নির্ভর করে তার তন্ত্র গড়ে ওঠে।। যেখানে আমাদের তন্ত্র ঘুনে ধরা সমাজ ব্যবস্থাকে দিন থেকে দিন আরো বেশি ভংগুর করে দিচ্ছে, সেখানে এখন সময় হয়েছে পুরনো তন্ত্রকে অবসরে পাঠাবার ।।

    আমাদের এই সমাজ ব্যবস্থাকে রিফরম্যাসনের মাধ্যমে এমন যুগপোযোগী তন্ত্রের আবির্ভাব ঘটাতে হবে যা অনাগত ভবিষ্যৎ মডেল হিসেবে নিতে পারে।। আর সেই তন্ত্রের ধারক এবং বাহক হব আমি,আপনি অথবা আমরা সবাই ।।

    1. সুপ্রিয়, আপনার প্রতিমন্তব্যটি
      সুপ্রিয়, আপনার প্রতিমন্তব্যটি প্রথমেই চিত্রাকর্ষক। তবে আপনার মন্তব্যে একটি শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে, তা হল ‘রিফরম্যাসন’। অর্থাৎ পুনর্গঠন। যার অর্থ দাঁড়ায় কিনা, পুর্বের বিষয়াদিকেই নতুন করে নতুনভাবে নানা আকারে ভিন্ন প্রত্যয়ে সাজিয়ে নেওয়া। এখানে কতগুলো শব্দ খুঁচিয়ে দেখতে চাই।- সংস্কার, নির্মাণ, পুনর্নির্মাণ, গঠন, পুনর্গঠন, সৃষ্টি, নবসৃষ্টি, বিপ্লব, প্রতিবিপ্লব প্রভৃতি। শব্দগুলো অনেক ক্ষেত্রেই খুব কাছাকাছি মনে হলেও, প্রায়গিক বিন্যাসে দেখা যেতে পারে এদের অবস্থান যোজন যোজন দূরে। সেক্ষেত্রে আমাদের নিশ্চিত হতে হবে আমরা কোনটা চাই এবং কি চাই? পার্থিব সমাজ অলৌকিক কোন অবকাঠামো নয় যে হঠাত করে উপর থেকে তা নাযিল হবে। এক্ষেত্রে যা কিছু আছে তার মধ্য দিয়েই আপনাকে আমাকে trial & error এর ভিত্তিতেই সমাজ কাঠামো নির্মাণ করতে হবে। সেখানে আপনার মন্তব্যে মার্ক্সিয় শ্রেনীহীন সমাজ বিপ্লবের কথাকে উতসাহিত করতে পারে। কিন্তু মার্ক্সিয় তত্বের প্রয়োগও পৃথিবীতে বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন ভাবে হয়েছে ( চীন, রাশিয়া) তাই বোধকরি সমস্ত পুরনোকে ফেলে দেওয়া অনুচিত হবে। যেমন ধর্মীয় ক্ষেত্রে দেখবেন বিভিন্ন কেতাবের মাঝে একটি অন্তর্নিহিত মিল আছে, আমাদেরও তেমনি বর্তমানের পঁচাগলা যাই থাক না কেন দাদ্বিক বিচারে সেগুলোকেই বৈপ্লবিকভাবে স্থাপন করে নতুন সম্পর্ক সৃষ্টির মাধ্যমে একটি নবীন কাঠামো ও তরতাজা স্বপ্ন বিনির্মান করে এগিয়ে যেতে হবে। তাই অতীতের যা বর্জ তা ফসলের সার হিসেবে ব্যবহার হতে পারে, আর যা পরিত্যাহ্য তা ম্যানহোল দিয়ে বাইরে বাহিত করা যেতে পারে। ধন্যবাদ আপনাকে

  3. গণতন্ত্র হচ্ছে সমাজতান্ত্রিক
    গণতন্ত্র হচ্ছে সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যাবস্থায় যাওয়ার একটি ধাপ…
    এই বুর্জোয়া অর্থনীতির পরিপূর্ণ বিকাশ ছাড়া মানুষ শ্রেণীহীন সমাজের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করতে পারবে না! তাই আপাতত এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়া ছাড়া উপায় নাই আর এই গণতন্ত্রকে আরেকটু সফল দেখতে চাইলে শিক্ষিতের (সুশিক্ষিত) হার বাড়ানো আবশ্যক!!

    1. দান্দ্বিক শক্তির বিজয়
      দান্দ্বিক শক্তির বিজয় অনিবার্য, সেই সত্যের পথে এবং সেই বিকাশের রথেই আমরা এগুবো।আপনার মন্তব্য খুব ভাল লেগেছে। শন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *