স্যার জাফর ইকবাল স্মরণে

কিছু প্রাক্তন ফুটো সহ বামে ছাগলের পোস্ট দেখে আমি কিঞ্চিৎ না হেসে আর পারলাম’ই না।
তেনারা লিখেছে, এরকম এক’টা ঘটনা বহু আগেই হওয়া উচিৎ ছিল তাহলে সে বুঝতে পারতো।
কত বড় আবাল একবার ভেবে দেখুন!
বলে এই ঘটনাই তাকে শুভবুদ্ধি’র দিকে ধাবিত করবেন
কত বড় রাম ছাগল একবার ভেবে দেখুন!

গতকাল স্যার জাফর ইকবালের সাথে যে নেক্কার জনক ঘটনা ঘটেছে তাতে অতো’টা উদ্বিগ্ন নই বা হওয়ার কারনও নেই।
কারন এরূপ ঘটনা বহুবার ঘটেছে এ অভাগা দেশে।
তবে জাতি হিসেবে ফের কলঙ্কজনক অধায়ে নতুন করে নতুন অধ্যায়ের সূচনা করলো।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র মদিনা সনদে দেশ চলার ঘোষণা’র এটা বোধহয় প্রথম বহিঃপ্রকাশ।

জাফর ইকবাল স্যারের এই ঘটনা’টা আমি একটু অন্যভাবে দেখি।
গত যে মুক্তচিন্তক,ব্লগার,লেখক,সাহিত্যিক যারা খুন হয়েছেন সেটা অতটা ভাবে সাধারন,মোডারেট’দের ভেতর আঘাত হানতে পারেনি।
কিন্ত, আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি স্যারের এই আক্রম’নের আঘাত যেমন স্থান করে নিয়েছে সকল মুক্তচিন্তাশীল, প্রগতিশীল মানুষের হৃদয়ে। তেমনি ভাবে মোটামুটি ভাবে স্থান করে নিয়েছে অগণিত তার পাঠক শ্রেণী’র মাঝেও।
অতএব, অনুধাবনের যায়গা দুই স্থানেই হবে বলে আশাকরি।

কিছু প্রাক্তন ফুটো সহ বামে ছাগলের পোস্ট দেখে আমি কিঞ্চিৎ না হেসে আর পারলাম’ই না।
তেনারা লিখেছে, এরকম এক’টা ঘটনা বহু আগেই হওয়া উচিৎ ছিল তাহলে সে বুঝতে পারতো।
কত বড় আবাল একবার ভেবে দেখুন!
বলে এই ঘটনাই তাকে শুভবুদ্ধি’র দিকে ধাবিত করবেন
কত বড় রাম ছাগল একবার ভেবে দেখুন!

হ্যা, আমি অস্বীকার করব না আমিও এর আগে স্যারের ব্যক্তিগত অভিমতের সাথে আপোষ করি নি।
সব ব্যাপারে সহমত পেষনেও করেছি দ্বিধা।
তাই বলে এই কামনা কখনোই ছিলো না তার এই দশা হোউক।

নিরাপত্তাঃ
আমরা সবাই জানি স্যার জাফর ইকবাল গতবছর শিশুতোষ বই শয়তানের রাজা সোলায়মান লিখে সে না না ভাবে বিতর্কিত হয়েছেন, পেয়েছে মৃত্যু চিঠি।
এছাড়া, কিছুদিন আগে আল্লার অস্তিত্ব নেই বলে সারাদেশ কাঁপিয়ে দিয়েছেন।
সর্বশেষ অবস্থায় এসে স্যার প্রধানমন্ত্রী পুত্র জয়ের বক্তব্যের করা সমালোচনা করেন।
তবুও কেন স্যার কোন নিরাপত্তা নিলেন না?
এটা যেমন প্রশ্ন ঠিক তেমন প্রশ্ন আর একটি
গতকালে যে স্থানে বসে স্যার কথা বলছিলেন তার ঠিক পেছনেই ছিল মানুষ রূপি শুকোর ছানা’টা।
প্রশ্ন হল ঘাতক সেখানে ধারালো অস্ত্র বহন কি করে করলো?
সেখান’কার নিরাপত্তা কেন জোরদার করা হলো ন?
পুলিশ, র‍্যাব এবং গোয়েন্দা বিভাগের লোকেরাও বা কি বাল ফেলাচ্ছিলেন?

পরিশেষে,
স্যারের এই আঘাতের কারনে আমার চোখের জল এখনো টলমটল করছে।
তবুও আমি এই ঘটনা’কে ইতিবাচক ভাবে নিয়ে প্রত্যাশা করব এই ঘটনা যেন স্যারের লেখাকে শাণিত করবে,ধারালো করবে।
লেখাস্ত্র দিয়ে ঘায়েল করবে সকল কূপমণ্ডূক’তা।

ধন্যবাদ
–টিটপ হালদার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *