দালাল ও স্বার্থপরদের ভীড়ে ডুবন্ত আসিফ মহিউদ্দিন

তথাকথিত ব্লগাররা যারা আজ
দিব্বি টকশো করে বেড়াচ্ছে, তাদের মধ্যে আর আজকের
রাজনীতিবিদদের মধ্যে আমি তেমন কনো পার্থক্য
দেখি না, সব
ক্ষমতা ও স্বার্থের দালাল ।।

যদি তারা দালাল না ই হতেন তবে কেনো তাদের
সহকর্মীদের মুক্তির দাবি পরিষ্কার
ভাবে জানাতে এতো গড়িমশি?? কেনো তাদের
কোনো প্রতিবাদী কর্মকান্ড আমাদের চোখ
এরিয়ে যাচ্ছে ?? কেনো আসিফ মহিউদ্দিন টপিক আসলেই তারা নো কমেন্ট করে এরিয়ে যান ?? কি দ্বন্দ্ব রয়েছে তাদের ?? আমরা যেনো সবাই বুঝেও না বোঝার ভান করে পালিয়ে যাচ্ছি ।
জাতির কাছে সব কিছু পরিষ্কার করে বলুন।
যেখানে সকল পত্রিকাগুলোর সম্পাদকরা মতের অমিল
থাকা সত্ত্বেও মাহমুদুর রহমানের মুক্তির দাবি জানাতে একটু
ও দ্বিধা বোধ করছে না, যেখানে
ব্যক্তি মাহমুদুর রহমান মুখ্য নয়,
বরং সহকর্মী সম্পাদকীয়তাই মুখ্য হয়ে দারিয়েছে ।
তারা যদি বুঝতে পারে একটি পত্রিকা বন্ধ
করে দেয়া মানে স্বাধীন প্রিন্ট মিডিয়ার অস্তিত্বের
সংকট , তবে তথাকথিত উঁচু শ্রেনীর ব্লগারদের
বুঝতে কেনো এতো সময় লাগছে?? কেনো আপনারা বুঝতে পারছেন না,সরকারের স্বার্থে আঘাত হানলে আপনাদের লেখার কলম নিয়ে যেতেও সরকারের বেশি সময় লাগবে না।

আসলে নাস্তিক, মুক্তমনা, প্রগতিশীল হলেই মানুষ হওয়া যায় না ।।

১৮ thoughts on “দালাল ও স্বার্থপরদের ভীড়ে ডুবন্ত আসিফ মহিউদ্দিন

  1. যেসব ব্লগার আসিফের প্রসঙ্গ
    যেসব ব্লগার আসিফের প্রসঙ্গ এড়িয়ে যায় তারা তথকথিত প্রগতিশীল। ভিতরে তারা ততটাই ভণ্ড। আসিফ এমন কোন ধর্মীয় আঘাত মূলক লেখা লিখে নাই যে তার জন্য তার পক্ষ নেওয়া যাবে না। আসিফের চেয়েও অনেকে অনেক ভয়ংকর লেখা লিখেছে। কিন্তু তাদের বেলায় সবাই খুব পক্ষ নেয়। আসিফের পক্ষ নিলে যদি আবার কিছু সমর্থন হারাতে হয় !!!!

    ব্লগারদের মধ্যেই অনেক বিষয়ে তীব্র রেষারেষি চলছে, এই কারণেই তারা মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছে। এরা নিজেদের দেশপ্রেমিক ভাবে , কিন্তু সহযোদ্ধার বিপদে ১০০ হাত দূরে থাকে। দেশের জন্য আন্দোলনও তারা জনপ্রিয় হওয়ার জন্যই করছে।
    ব্যক্তিগত দন্ধের কারণে আজ অনেকেই আসিফের বিনা অপরাধে জেলে যাওয়াকে সমর্থন করছে।

  2. যত দিন ধরে আসিফ মহিউদ্দিনজেলে
    যত দিন ধরে আসিফ মহিউদ্দিনজেলে আছেন,তিনি এই সময় বাইড়ে থাকলে কি এমন করতে পারত যে তার ভয়ে তাকে জেলে রাখতে হচ্ছে, এমন কি অনেক ব্লগাররাই তার মুক্তির কথা বলতে চাচ্ছেন না বা এরিয়ে যাচ্ছেন। আসিফ থাকলে কি বিওএএন এর উপর প্রভাব বিস্তার করাটা খুব কঠিন হয়ে যেত? নাকি তাদের দুর্বলতা আছে,যা ফাঁস হয়ে যেত। নাকি অনলাই এন্ড ব্লগ একটিভিটির উপর এক ধরনের নিয়ন্ত্রনের প্রভাব টিকিয়ে রাখতেই তাদের এই অবস্থান। আসিফ মহিউদ্দিন এখন থাকলে কি হতে পারত তা আমি জানি না, তবে একটা বিশেষ পক্ষের ব্লগারদের আচরনে এটা নিসন্দেহে বোঝা যায় আসিফের বাইরে থাকা তাদের জন্য সুবিধা জনক না অধিকন্ত অসুবিধা জনকও। ওই বিশেষ পক্ষিয় ব্লগারদের যে একটা পরক্ষ সমর্থন আছে অনলাইন একটিভিস্ট ও ব্লগারদের ধরা ও জেলে নেবার ব্যাপারে তা কি এখনও নিসন্দেহ না?

    আসিফ মহিউদ্দিন সহ সকল অনলাইন একটিভিস্ট ও ব্লগারদের মুক্তি চাই।।।।।।

  3. সরকারের পাছা চাটা নেড়ী
    সরকারের পাছা চাটা নেড়ী ব্লগাররা, সময় থাকতে মানুষ হোন, এই স্বাধীন বাংলায় আর কোনো মীরজাফর কে সহ্য করা হবে না ।

    আবার তোরা মানুষ হো ।।।

  4. কারনঃ
    ১) এমনিতে সাধারন জনগন

    কারনঃ
    ১) এমনিতে সাধারন জনগন ব্লগার সম্পর্কে খারাপ ধারনা নিয়ে আছে। আমরা সবাই আমাদের সহ-ব্লগারের মুক্তি চাই। তার অর্থ এই না আমরা নিজেদেরকে আরও অন্তর্মুখী করে জনবিচ্ছিন্ন করে ফেলব। আগে জনগণকে বুঝাতে হবে ব্লগার আসলে কি তারা কেমন মানুষ বা কেমন লিখক। ের জন্যে ইলেক্ট্রনিক ও প্রেস মিডিয়াতে ব্লগারদের সরব উপস্থিতি খুবই দরকার।

    ২) মূলধারার ইলেক্ট্রনিক ও প্রেস মিডিয়ার সাথে আপনি বিকল্পধারার সিটিজেন জার্নালিজমকে এক করলে হবে না। আমরা কোন সিন্ডিকেট করি না, আজীবনও আমি বিশ্বাস করব না একজন মুক্ত ব্লগারকে টাকা দিয়ে কিনা যায়। আমাদের মনে যা আসে যৌক্তিক আর কল্যাণকর আমরা তাই লিখি… আর সাংবাদিকদের আজ বাজারে কিনতে পাওয়া যায়… (আমি সবাইকে বলছি না)!!

    ৩) আমরা যদি আজ আসিফ মহিউদ্দিনের মুক্তির দাবীতে লিখা লিখি বন্ধ করে দেই বা টিভিতে কথা বলে অফ করে দেই তবে যারা ব্লগারদের সাথে বিরুদ্ধাচার করতেছে তারাই লাভবান হবে…

    তাই আপনাকে বলি অযথায় চটকদার চমকপ্রদ বিতর্ক সৃষ্টি না করে আমাদের দাবীতে সোচ্চার হউন… তাতেই আমাদের মুক্তি! আমাদের প্রথম দাবী রাজাকারের বিচার তথা সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা আর সকল ব্লগারদের নিঃশর্ত মুক্তি দেয়া। শুভ ব্লগিং…

    1. ১, “ব্লগার মুক্তির দাবি ” কি
      ১, “ব্লগার মুক্তির দাবি ” কি করে নিজেদের অন্তর্মুখী করে ?? কেমন কথা বললেন আপনি ,ব্যাপার টা পরিষ্কার করেন। আর জন বিচ্ছিন্নতার তো প্রশ্নই আসে না।। তা হলে প্রশ্ন আসে এখন আপনারা কি এমন গন সংযোগ করছেন?? তার মূল্যায়ন ও বা কতটুকু?


      আর হে ব্লগারদের মিডিয়ার মুখোমুখি হওয়া দরকার,তার মানে কি এই মিডিয়া তে যেয়ে কতিপয় বিশেষ দের প্রসঙ্গ আসলে শিয়ালের মতো ফাঁকি দিয়ে চলে আসবেন,যারা কিনা কিছুদিন আগ পর্যন্তও আপনাদের ই সহযোদ্ধা ছিল।।
      জনগনকে ব্লগ বোঝানোর জন্য আপনারা কতিপয় দের বলির পাঠা বানিয়ে স্বার্থ সিদ্ধি করবেন?

      ৩,
      আমি তো লেখালেখি বন্ধ করতে বলি নি, বরং বলেছি, আপনাদের লেখা লেখি তে আসিফ মহিউদ্দিনরা বার বার আসুক।। কই আমি তো আপনাদের লেখালেখি তে আপনাদের কুতু কুতু জীবনের অভিলাশ ছাড়া আর কিছুই দেখছি না !
      আপনার ৩নং পয়েন্টাতে আপনি পক্ষপাত দুষ্টতায় আক্রান্ত,ভালভাবে আরেকবার তলিয়ে দেখুন। কারন আপনি ৩নং এ যা বলতে চেয়েছেন আমি সেটার বাস্তবায়নই চাচ্ছি।

      আর সমাপ্তিতে আপনি “আমাদের, আপনাদের ” বলে বিভেদ তৈরি করেছেন। যা আমি চাই বলেই এতো কথা।

      1. ১) আপনি ক্ষোভ দেখালেন কিছু
        ১) আপনি ক্ষোভ দেখালেন কিছু ব্লগারারা টিভি-মিডিয়ায় কথা বলে বলে… এই যায়গায় আমি বললাম আপনার মত করে যদি সবাই মূলধারার মিডিয়াকে ত্যাগ করে তবে সাধারণ মানুষ ব্লগারদের চিনবে কীভাবে? এই ব্যাপারটাই বুঝেও এড়িয়ে গেলেন কেন বুঝলাম না!!

        ২) ব্যাপারটা আপনি পুড়াই একপাক্ষিকভাবে দেখেছেন… যারা এই ব্লগারদের ইস্যু সামনে এনে যুদ্ধাপরাধিদের বিচারের শাহ্‌বাগের আন্দোলনকে প্রভাবিত করতে চাইছিল আপনার এমন বিদ্বেষে তারাই লাভবান হবে। আমরা সবাই জানি কোন সরকার কি করতে পারে! আপনি হুমায়ূন আজাদের ‘আমি কি এই বাংলাদেশ ছেয়েছিলাম’ পড়লেই বুঝতে পারবেন। আমাদের এখন বৃহত্তর স্বার্থে কিছু স্বার্থকে আপাতত ছাড় দিতে হবে। আমি তবুও মন থেকে চাই আসিফ মহিউদ্দিন আগামী কালই ছাড়া পাক…

        ৩) খামোখা নিজেদের মধ্যে বিবেদ সৃষ্টি করতে পারে এমন ব্লগ আমি পছন্দ করি না বলে আপনার প্রতীবাদ করা। আজ ব্লগারেরা কেন জেলে বলেন তো? কেন রাজীব কে হত্যা করা হল? ৫ ফেব্রু ২০১৩ এর শাহ্‌বাগ আন্দোলন না হলে এই ঘটনাগুলো ঘটত না। কি বলতে চাইছি বুঝছেন?

        আমাদের মূল দাবী পুরন হলেই সব দাবী সফলভাবে পুরন হবে… আশায় থাকলাম!!

  5. ব্যক্তিগতভাবে আসিফ
    ব্যক্তিগতভাবে আসিফ মহিউদ্দিনকে পছন্দ করিনা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারণে। তার মানে এই না যে অনলাইনের একজন মুক্তমনা ও যোদ্ধার এই বিপদে আমি ঢুগডুগি বাজাব। একজন লেখক কি নিয়ে লিখবে, একজন মানুষ কোন বিষয়ে মত প্রকাশ করবে সেটা তাঁর ব্যক্তিগত স্বাধীনতা ও অধিকার। অনলাইনের একদল হনু বেশ কয়েকদিন ধরেই মুক্তিযুদ্ধে স্বপক্ষের শক্তি ও মুক্তমনাদের মধ্যে কৌশলে বিভক্তি আনার চেষ্টা করছে। এরাই নাস্তিক-আস্তিক বিতর্ককে এখনো জিঁইয়ে রেখেছ।

    গ্রেফতারের প্রথম দিন থেকে বলছি এবং এখনো বলছি- মুক্তিচিন্তা ও স্বাধীন মত প্রকাশের দায়ে প্রেফতারকৃত সকল ব্লগারের মুক্তি চাই। দুইজন মুক্ত হয়েছে, বাকি দুইজনকেও আমাদের মাঝে ফিরে পেতে চাই।

  6. আপনার পোস্ট টা ফেসবুকেই
    আপনার পোস্ট টা ফেসবুকেই পড়েছি। এখানে কিছু বলা দরকার, আজকে আসফকে নিয়ে কেউ কোন কথা বলছে না এইটা যে ব্লগারদের কি পরিমান নিচু মানুষিকতার পরিচয় তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর তারিক লিংকনের কথায় আমি সম্পুর্ন সহমত। শুনেছিলাম কাকে নাকি আকের মাংস খায় না। কিন্তু ব্লগাররা এই ধারনা ভেঙ্গে দিল। কাক চাইলেই কাকের মাংস খেতে পারে।

    আর আসিফের মুক্তির দাবীতে কোন কথা বলা হচ্ছে না এর দায় আমাদেরও নিতে হবে নিঃসন্দেহে। এবং এ দায় আমার।

  7. মাহমুদুর রহমানকে আটক করার
    মাহমুদুর রহমানকে আটক করার প্রতিবাদ শুধু সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরাই জানাচ্ছেন না বরং আইন ও চিকিৎসা পেশার মত অনেক পেশার মানুষই এর প্রতিবাদ করেছেন এবং এখন করচ্ছেন..……সেটা সবাই না..…একটা বিশেষ এবং স্বার্থন্বেষী মহলের তাঁবেদাররা এই খেমটা নাচ দেখাচ্ছে..…।কিন্তু আমি আপনার সাথে একমত একটা বিষয়েঃ ব্লগারদের গ্রেপ্তার ও মুক্তির বিষয়ে সেলিব্রেটি ব্লগারদের সাক্ষী গপালের ভূমিকা আসলেই প্রশ্নবিদ্ধ হয়।শুধু তাই না এক্ষেত্রে বিওঈনের মত ব্লগার ও অন্লাইন একটিভিষ্টদের কর্মকান্ডো বাংলাদেশের সর্ববৃহত সংগঠনের ভুমিকাও হতাশাজনক।শুরুর দিকে এদের মধেয় কয়েকজন কিছুটা ফরমালিটি দেখালেও এখন তারা নীরব।তারা একতা ভুলে এখন জলকেলীতে মগ্ন।যতটুকু বোধ হয় এরা এখন রাজত্ব বিস্তারে মগ্ন।ভাল কথা…চালিয়ে যাক..……তবে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে আমাদের পিছু হাঁটলে কিন্তু চলবে না..…! ! !

  8. শেষ পর্যন্ত আজব চিড়িয়াদের
    শেষ পর্যন্ত আজব চিড়িয়াদের খাতায় নাম লেখালো আমাদের প্রান প্রিয় সেলিব্রেটি ব্লগাররা ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *