মরণোত্তর দেহদান প্রসঙ্গে

নির্বোধ ধার্মিকরা প্রায়ই বলে থাকে মরার পর নাস্তিকদের মৃতদেহ কিভাবে সৎকার করা হবে? মানবকল্যাণে একজন নাস্তিক নিকটস্থ মেডিকেলে মরণোত্তর দেহদান করে যেতে পারেন। অঙ্গীকার পত্র ও হলফ-নামায় সম্মতিদানের মাধ্যমে নোটারি-পাবলিক করলেই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করা যায়।

বাংলাদেশে আরজ আলি মাতুব্বর, ড. আহমেদ শরীফ, ড. নরেন বিশ্বাস, গায়ক সঞ্জীব চৌধুরী, অভিজিৎ রায় এবং পশ্চিমবঙ্গের জ্যোতি বসুসহ অনেক বামপন্থী নেতা যেমন, লোকসভার সাবেক স্পিকার সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়, পশ্চিমবঙ্গ বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু, প্রয়াত কমিউনিস্ট নেতা অনিল বিশ্বাস প্রমুখ নেতাগণ মানবকল্যানে মেডিকেলে দেহদান করেছেন।

মৃত্যুর ছয় ঘন্টার মধ্যে মেডিকেল কলেজ বা হাসপাতালে দেহ পৌঁছালে ১৪টি অঙ্গ প্রতিস্থাপন করা যায় এর মধ্যে রয়েছে- চোখ (কর্নিয়া), হৃৎপিণ্ড, যকৃত, কিডনি, চামড়া, স্টেমসেল সহ বহু অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ।

পরিবার ও সামাজিকতার চাপে অনেক ভীতু নাস্তিক মরণোত্তর দেহদানে বিরত থাকেন। তারা কেবল মরণোত্তর চক্ষুদান করে একজনের অন্ধকার জগতে আশার আলো জ্বলতে পারেন। উল্লেখ্য চক্ষুদান বলতে পুরো চক্ষু না কেবল কর্নিয়া নেওয়া হয় যাতে মৃত ব্যাক্তির চেহারা অবিকৃত থাকে।

প্রক্রিয়াটি খুব জটিল কিছু নয়। অঙ্গীকার পত্র ও হলফ-নামায় সম্মতিদানের মাধ্যমে নোটারি-পাবলিক করলেই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করা যায় তাই যে কেও খুব সহজে তাদের সাথে যোগাযোগ করে এই ব্যাপারে আর ও জানতে পারে। আপনি মরণোত্তর দেহদান করতে চাইলে নিচের ঠিকানাগুলোতে যোগাযোগ করতে পারেন।

জনবিজ্ঞান ফাউন্ডেশন ১০৮ কাজী নজরুল ইসলাম এ্যাভিনিউ ৪তালা বাংলামটর, ঢাকা মোবাইল : ০১৫৫২৩৫৮০১৮ / ০১৭১২২৯৬৮১৮ email- janabigganfaoundation@gmail.com

বাংলাদেশে অন্ধত্ব মোচনের প্রত্যয় নিয়েই ১৯৮৪ সালে সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান। অন্ধত্ব মোচন (চক্ষুদান) আইন, ১৯৭৫ অনুসারে এটি পরিচালিত হয়। যোগাযোগের ঠিকানা-প্রধান কার্যালয়-৮/২, পরীবাগ, মোতালিব টাওয়ার (তৃতীয় তলা), বি হাতিরপুল, ঢাকা। হাতিরপুলে মোতালিব প্লাজার সাথেই মোতালিব টাওয়ারের তৃতীয় তলায় সন্ধানী চক্ষু সমিতি অবস্থিত। ফোন- ০২-৮৬১৪০৪০ ফ্যাক্স- ৮৬২০৩৭৮ ই-মেইল- info@sneds.org ওয়েব সাইট www.sneds.org ঢাকা মেডিকেল কলেজ শাখা সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতি, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা – ১০০০।

অথবা, নিকটস্থ কোন মেডিকেল কলেজ/হাসপাতালে যোগাযোগ করতে পারেন।

১ thought on “মরণোত্তর দেহদান প্রসঙ্গে

Leave a Reply to Ankit Sarkar Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *