তাসলিমার ফেমিনিজমঃ যৌনবসন্ত

১২ ঘণ্টা আগে প্রসব করা তাসলিমা নাসরীনের সাম্প্রতিক পোস্টটি একটি নির্দিষ্ট মহলে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে । এ মহলের বাসিন্দারা ১২ ঘণ্টার বাসি হাগা যেভাবে চেটে চলেছেন তাতে করে এ প্রজাতিকে ঠিক “আবাল” বলা চলে না । কোন আকাট আবালও এ উৎকট হাগায় দু চাটা দিয়েই পেছন ফিরে বমি করতে বসে যাবে ।

এরা আবাল ও বালধারীদের মধ্যবর্তী একটি প্রজাতি যাদের গুপ্তস্থানে বসন্তের কুঁড়ির মত নব্য ভেদো লোম উঁকিঝুঁকি মারছে ।
মহামতীর নিজস্ব টাইমলাইন । হাগবেন না মুতবেন; হেগে-মুতে পানিটাও ঠিকভাবে ঢালবেন কিনা তাও জনাবার মর্জি । সমস্যাটা হল নতুনকুঁড়ি আর পক্বকেশের জড়াজড়িতে ।
জনাবার নিত্যনতুন থিওরি এই সকল নতুনকুঁড়িদেরকে এক একটা যৌন বিপ্লবীতে পরিণত করছে । Post menopausal পিরিয়ডে এসেও জনাবা যদি সপ্তাহের কিস্তিতে নিত্যনতুন বয়ফ্রেন্ড যোগাড় করতে পারেন তো টলমলে যৌবন নিয়ে জনাবার বিপ্লবী জোলাপখোর নতুনকুঁড়িরা যৌন বসন্তের সূচনা করতেই পারে ।

ব্যাক্তিজীবনে কে কারে লাগাইল এ নিয়ে আমার মাথা ব্যাথা নাই । সমস্যা তখনই যখন দেখি বিপ্লব যা তার সবই যোনিতে আটকে আছে ।
উদ্দাম যৌবনে যৌন স্বাধীনতা যে কারও কাছেই সোনার হরিণ । কিন্তু বাকিটা? বাকিটা ফেমিনিজমের ঝোড় হাওয়ায় উড়ে গেছে । প্রথম যৌবনে স্বাধীনভাবে যৌনচর্চাকারী যৌনবসন্তের অধিকাংশ বাসন্তীকেই দেখেছি জীবনের ক্রিটিক্যাল মোমেন্টে স্বাধীন সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে টালমাটাল হতে । প্রথম যৌবনে বিপ্লবী বাসন্তী মধ্য যৌবনে চুপ আর শেষ যৌবনে হিজাবি । অনেকটা “হ্যাপী থেকে আমাতুল্লাহ”।
কিছু উদ্দাম যৌবনা আরেক কাঠি উপরে । বছর’খানেক আগে কোন এক দুর্যোগকালে একবার এক ভদ্রমহিলাকে “মেয়ে” সম্বোধন করে পড়েছিলুম মহাবিপদে । ফেমিনিজমের বিপ্লবের কাঁচিতে আমার ধড় থেকে মাথা নেমে যাওয়ার মত অবস্থা । আগে “মানুষ” তারপর “মেয়ে” । হক কথা । “মানুষ”টার শেষ খবর- রসের টিলা যৌন নির্বাচনের শক্ত মেঝেতে আছড়ে ভেঙ্গেছে ।
না, আরও আছে । পরেরটুকু পড়ার আগে নিদেনপক্ষে একটা “ডমপেরিডোন” খেয়ে নিন । এক কিটি কিংবদন্তি তার ফেসবুক টাইমলাইনে তার আঠালো সিক্ত অঙ্গুলি প্রদর্শনপূর্বক স্ট্যান্ট মেরেছিলেন-“পুরুষরা পারলে আমি পারবোনা কেন?”

স্বাধীনতা আর উচ্ছৃঙ্খলা সম্পূর্ণ ভিন্ন জিনিস । পার্থক্য বুঝতে শিখুন ।
প্রাতঃস্মরণীয় হলেও কারও সমালোচনা করা যাবে না- এ তত্ত্বকে আমি লাথি দিয়ে ঠেলিয়া দিই ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *