জীবনের গল্প

কেউ চায় প্যারিসের আকাশ, কেউ বা একটু সুখ। আবার কেউ একটু ভালো করে বাঁচতে। জীবনটা খুবই ক্ষুদ্র। তবে এই ক্ষুদ্র জীবনটাই প্রতিদিন নতুন কিছু শেখায়। কাউকে স্বপ্ন দেখতে আবার কারোও স্বপ্ন ভাঙতে। তারপরেও মানুষেরা হাসে। আচ্ছা একটা হাসির পেছনে কতগুলো কারণ থাকে? কতটা কারণ সুখী হওয়ার আর কতটা স্বপ্ন ভাঙার??
কয়েকদিন আগে এক রিকশা চালক মামা তার স্বপ্ন নিয়ে কথা বলছিলো। মানুষটা চেয়েছিলো সিনেমার অভিনেতা হতে। পারে নি। আজ নতুন কোন সিনেমা আসলেই হলে গিয়ে দেখে আসে। সিনেমা চলাকালীন সময়ে অবশ্যই সে হিরোর জায়গায় নিজেকে কল্পনা করে। ভুলে যায় সে একজন রিকশা চালক। কিন্তু তিন ঘন্টার সিনেমার পরে যখন পাঁচ টাকা বেশি চাওয়ায় নিজের বাবা-মাকেও তার সাথে করে গালি শুনতে হয় তখনই তার হিরোর ঘোরটা কেটে যায়। মনে পড়ে যায় একজন রিকশা চালকের গল্প।
আরোও একটা ছেলে আছে। একটু একটু করে স্বপ্ন দেখে একটা ব্যান্ড হবে তার। স্টেজে দাঁড়িয়ে যখন সামনে তাকায়, হাজার হাজার ছেলে-মেয়ের চিৎকার তার কানে পৌঁছানো মাত্রই ওর মা ধাক্কা দিয়ে বলে কলেজের সময় হয়ে গেছে, রেডি হয়ে কলেজে যা। আহারে এরই নাম জীবন।
একটা মেয়ে আছে যার একটাই স্বপ্ন ছিলো তার স্বামী প্রতিদিন নতুন নতুন কবিতা লিখে ঘুম থেকে ডেকে তুলে কবিতা শুনাবে। কিন্তু ঐ মেয়েরই এমন একটা মানুষের সাথে বিয়ে হয়েছে যে কবিতা লিখে শুনানো তো অনেক দূর, অফিস থেকে ফিরে তার সাথে ভালো করে কথাই বলতে পারে না।
যে ছেলেটা একদিন অনেক বড় লেখক হওয়ার স্বপ্ন দেখে ডায়রি লিখতো সেই ছেলেটারই একদিন কলম ধরতে গিয়ে হাত কাঁপতে থাকে। এরই নাম জীবন। তবুও কেউ হারতে চায় না।
এক বলে চল্লিশ রান লাগবে এমন সময়েও মানুষেরা স্বপ্ন দেখে কিছু একটা ঘটবেই। জয়টা আমাদেরই হবে। কিন্তু এই স্বপ্নটা দেখা মাত্রই শেষ বলটা সোজা গিয়ে স্ট্যাম্পে আঘাত করে। আহা!! এরই নাম জীবন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *