ভাষার জাতীয়তাবাদঃ যে কারনে বাংলার জন্য গর্বীত হবেন

যারা মনে করেন, বাংলা এবং বাংলাদেশের আসলে বিশ্ব সভ্যতায় কোন অবদান নেই, কোন সৃষ্টি নেই,পোস্টটি সেই হতাশা বাদী বাঙ্গালী জ্যেষ্ঠ-অনুজ ও বন্ধুদের জন্য।

-বাংলা ভাষা ইউনেস্কো স্বীকৃত পৃথিবীর সবচেয়ে শ্রুতিমধুর ভাষাগুলোর মাঝে প্রথম স্থানে আছে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে আছে স্প্যানিশ ও ডাচ।

-বাংলা হরফ দেখতে সুন্দর এরকম ভাষার মাঝে নবম।

-বাংলা ভাষা পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি মানুষ কথা বলে এরকম প্রথম দশটির মাঝে সপ্তম।

-বাংলাই পৃথিবীতে একমাত্র ভাষা যাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে পাবার জন্য বা স্বাধীনভাবে বলার অধিকার আদায়ের জন্য সেই ভাষাভাষীরা জীবন দিয়েছেন। ঐ বিশেষ দিনটিতে পুরো পৃথিবী নিজের মাতৃভাষাকে ভালবাসার দিন হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

-বাংলাই পৃথিবীর একমাত্র ভাষা যাকে ঘিরে সুদীর্ঘ লড়াইয়ের ধারাবাহিকতায় জন্ম হয়েছে একটি দেশের।

-বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যে দেশের নামের শুরুই হয়েছে সেই দেশের মানুষের ভাষার নামে।

অতএব মাতৃভাষা বাংলাকে ভালবাসুন। দিন শেষে এটাই আপনার পরিচয়।স্বকীয়তা ও স্বাজাত্যবোধের একমাত্র নিরপেক্ষ আশ্রয়। আপনি একজন বাংলাভাষী ও বাঙ্গালী প্রথমে। তারপর অন্যকিছু।

এই ভাষায় যখন মাত্র ১৫০ বছর আগে রবীন্দ্রনাথ লেখা শুরু করেছিলেন, তখনো ভাষাটি ছিল পতিত জমির মত। তিনি এই উপলব্ধি থেকেই লেখা শুরু করেছিলেন যে ভাষাটিকে সহজ করতে হবে। লোকের মুখের ভাষা আনতে হবে কলমের আগায়। খালি ও পাথুরে জমিতে লাঙ্গল চষে গেছেন। এবং সফল ও হয়েছিলেন। তার হেটে যাওয়া পথ ধরেই এসেছেন কালজয়ী শতাধিক কবি-সাহিত্যিক-ব্যাকরণবিদ। কিন্তু এখনো বাকি বহু পথ। এখনো মাটিতে মিশে আছে পাথুরে কাঁকড়। ভাংতে হবে। বুনতে হবে। ফলাতে হবে আরও সোনালী ফসল। সুযোগ অবারিত। তাই লিখুন, অনুবাদ করুন অন্য ভাষায়। ভালবাসুন নিজের মত। এর চেয়ে একনিষ্ঠ জিনিস আর পাবেন না যে আপনার ভালবাসার সঠিক প্রতিদান দিতে পারবে।

১৯৫২ সালের ২১ তারিখ যারা শহীদ হয়েছিলেন ভাষার জন্য তাদের জন্য ভালবাসা, শ্রদ্ধা। ঐ বুলেটের সীমানায় দাড়িয়ে তাদের মৃত্যু ভয়হীন গর্জনের প্রতি অজস্র পলাশের অঞ্জলি। বাঙ্গালীর বসন্ত মানেই একুশ আর আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো মায়ের ভাষার প্রতি ভালবাসা। এমন সৌভাগ্য কারো হয়নি আজো আমাদের ছাড়া। তাই গর্বিত হউন বাংলার জন্য, বাঙ্গালীত্বের জন্য, বাংলাদেশের জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *