ভোগান্তি নিরসনে মহাসড়ক হচ্ছে চার লেন

সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য সামনে রেখে মহাসড়কগুলোকে চার লেনে উন্নীত করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার
দেশের যোগাযোগ অবকাঠামোর উন্নয়নে সরকার গত কয়েক বছরে অনেকগুলো প্রকল্প শেষ করেছে। সড়ক-মহাসড়কের উন্নয়নে হাতে নেওয়া হয়েছে বেশ কিছু বড় প্রকল্প। তবে সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য সামনে রেখে সরকার বিশেষ করে চার লেনে দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে। সড়কপথে ভবিষ্যতে অভ্যন্তরীণ যানবাহনের চাপ সামলাতে, এ পথে দেশের যোগাযোগ যুগোপযোগী করতে, দুর্ঘটনার হার কমিয়ে আনতে এবং শিল্প-বাণিজ্যসহ অর্থনৈতিক গতিশীলতা আনতে এশিয়ান হাইওয়ে, বিমসটেক রোড, সাসেক হাইওয়ে করিডোরসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক-উপআঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক করিডোরে অন্তর্ভুক্ত হতে চার লেনে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হয়েছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আকাশ ও নৌপথের পাশাপাশি সড়কপথে আন্তঃদেশীয় যোগাযোগ অবকাঠামোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব মহাসড়কই চার লেনে উন্নীত করার মহাপরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে দেশের অর্থনীতির লাইফলাইন হিসেবে সুপরিচিত ঢাকা-চট্টগ্রাম এবং অন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ময়মনসিংহ-জয়দেবপুর- এই দুটি চার লেন প্রকল্প শেষ হয়েছে। এখন নতুন করে এলেঙ্গা-রংপুর, ঢাকা-সিলেট এবং ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা মহাসড়কগুলোকে চার লেন করতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অতি সম্প্রতি ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা চার লেন এবং এলেঙ্গা-রংপুর চার লেন প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া চার লেন করার জন্য চিহ্নিত মহাসড়কগুলোর মধ্যে আছে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার, সিলেট-তামাবিল-জাফলং, ঢাকা-মাওয়া, মাওয়া-ভাঙ্গা, গাজীপুর-আজমতপুর-ইটাখলা, টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড, ফরিদপুর-বরিশাল ও বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়ক। চার লেনের পরিকল্পনায় আরো আছে ময়মনসিংহ-জামালপুর-শেরপুর, হাটিকুমরুল-বনপাড়া-রাজশাহী, বনপাড়া-ঈশ্বরদী, কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ-যশোর, জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-হাটিকুমরুল ও ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *