শৈশবের স্মৃতির অনেকটা অংশ জুড়েই তুমি জড়িয়ে আছো সালমান শাহ্ !!

কেন জানিনা আমার শৈশবের প্রায় সব কিছুই খুব ভালো ভাবে মনে আছে,অথচ এখনকার কিছু মনে রাখতে পারিনা।
একদিন কটের হাফপ্যান্ট আর টিশার্ট পড়ে ঘুমাইতেছিলাম হঠাৎ ঘুম ভাঙ্গলে দেখি রবিউল মামা (তখন দোকানে কাজ করতো) টিভি দেখছে,আর কেউ নাই।মা মা করে ডাকার পড়ে দেখি কেউই আসে না।
তখন রবিউল মামা এসে বলে মা একটু বাইরে গেছে এখনি আসবে তুমি ঘুমাও।সাথে সাথে কান্না শুরু,পড়ে বাধ্য হয়ে আমাকে কোলে নিয়ে বের হইলো।
আনোয়ারের দোকান থেকে আমাকে দুইটা সকাল-বিকাল আইসক্রীম কিনে দিলো।
দুই হাতে আইসক্রীম ধরে আমি রবিউল মামার কোলে….
পড়ে হলের সিঁড়ি দিয়ে সোজা উপরে গেলো,অন্ধকার কারো মুখ দেখা যায় না,বাম পাশে পর্দায় মুভি চলে ডান পাশের ছোট একটা স্কয়ার ফুটো দিয়ে সবুজ সবুজ আলো বের হয়ে আসছে,টিকিট চেকারের(পরিচিত) কাছে লোকেশন শুনে আমাকে সোজা নিয়ে গেলো,তারপর দেখি আমাদের বাসার সবাই সিরিয়াল দিয়ে বসে আছে।আমাকে রবিউল মামার কোলে দেখে সবাই কি কি যেন বলেছিল।তারপর মার কোলে বসে মুভির কিছু না বুঝেই তাকিয়ে তাকিয়ে দেখলাম।
বিরতির সময় বাদাম আর ডিমও খেয়েছিলাম।বের হয়ে টাসকি খাইলাম দেখি বাসায় যাওয়ার একি রাস্তা দুইটা,আমাকে কোলে নিয়ে যে রাস্তা যাচ্ছে ওই রাস্তাটাই বিপরীত দিকে বিস্ময় নিয়ে দেখতে দেখতে মধ্যেরাতে এতোটা আনন্দ নিয়ে বাসায় আসলাম!!

আজকের এইদিনে তোমাকে শ্রদ্ধা,ও ভালোবাসা জানাই।সত্যিই তোমার সমতূল্য এখনো কেউ হয়নি আর কখনোই কেউ হবে না,।তুমি বেঁচে থাকলে ঢালিউড অবশ্যই টলিউড বলিউডের থেকে অনেক এগিয়ে থাকতো।দেশের মানুষ প্রেক্ষাগৃহ বিমুখ হতো না।প্রেক্ষাগৃহ অশ্লীলতার আখড়া হতো না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *