রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও সরকারের শুভবুদ্ধির সংকট

লোডশেডিং দিয়ে আমাদের হাড়ে হাড়ে বুঝাচ্ছে আমরা কেন রামপালের বিরোধিতা করি।
তবে আমরা এই উষ্ণায়নের জন্য বিদ্যুৎ ব্যবস্থাকে দায়ী করবো না,কারণ প্রকৃতিতে উষ্ণায়নের অন্যতম কারণ বন উজাড়করণ।
যদি বনায়ন হয় তবে উষ্ণতা হ্রাসের জন্য রামপালের বিদ্যুৎ প্রয়োজন হবে না।
প্রয়োজনে পাবলিক সৌরশক্তির ব্যবহার বাড়াবে।
তবুও রামপাল বিদ্যুৎ গড়ে উঠতে দিবে না।
উন্নয়ন কার্যক্রমগুলো কেন যে জনসাধারণের বিতর্কের সৃষ্টি করে তা আমার বোধগম্য নয়।

আর ভারতের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে গড়ে উঠা প্রত্যেকটা উন্নয়ন পরিকল্পনা কেন জনমতের বিরুদ্ধে কাজ করে,তা আজ জাতি জানতে চায়।
ভারত কেন তাদের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের চিন্তা করে না।
যারা নিজেদের ভূখন্ডে এমন আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত নেয় না,তারা কেন বাংলাদেশকে ধ্বংসের টার্গেট নিয়েছে।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী সিপিএম নেতা বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য অবৈধভাবে বলপূর্বক সিঙ্গুরে কৃষিজমি দখল করে টাটা ন্যানো গাড়ির কারখানা নির্মাণ করার যে স্বৈরাচারী পদক্ষেপ নিয়েছিল,তার পরিণতি ছিল খুবই ভয়াবহ।
জনরোষের মুখে পড়ে শুধু প্রকল্প বন্ধ করতেই বাধ্য হয়নি,৩২ বছরের শাসনামলের পর সিপিএমের ভোটের দরজায় তালা পর্যন্ত পড়ে গিয়েছিলো।
সারাবিশ্বের মত সেসময়
বাংলাদেশে প্রতিটি প্রান্তরের মানুষ বিবিসি বাংলার মাধ্যমে শুনেছিলো আমজনতার আন্দোলনের দৌরাত্ম্য কতখানি।
সেদিন জনতার পক্ষ নিয়ে আন্দোলন করায় মমতা ব্যানার্জী আজ দুইবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন,আর বুদ্ধদেব তথা সিপিএম চিরতরে বোল্ড আউট হয়েছেন।
আমাদের বর্তমান সরকার এই ঐতিহাসিক ঘটনা থেকে শিক্ষা নিতে পারেন।
তাছাড়া আঁড়িয়াল খা বিলে বিমানবন্দর নির্মানের পদক্ষেপে জনরোষ সৃষ্টি হয়েছিল, তা থেকেও শিক্ষা নিতে পারেন। অবিলম্বে জনতার সরকার জনতার পক্ষ নিয়ে ফিরে এসে চরম জনরোষের হাত থেকে বাঁচতে পারেন।
বিনিয়োগ প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে বিশিষ্টজন কর্তৃক যে হারে চিঠি ভারতীয় এক্সিম ব্যাংকের নিকট আসতেছে,হয়তো এক্সিম ব্যাংকও বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত বাতিল করতে বাধ্য হবে।
সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হোক,বন্ধ হোক সুন্দরবন ধ্বংসকারী রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান প্রকল্পের সিদ্ধান্ত।
#Go_back_NTPC
#Go_back_India
#Stop_Rampal_Coal_Power_Production_Project
#People_Solidarity_Movement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *