মহাশুন্যের মানুষ

যে আকাশ কখনও সবুজ দেখেনি-
আমি সেই আকাশের বুকে বরফ-পাথর
মেঘের নামে সঙ সেজে আজন্ম অভিনেতা
আমারও পূজারি আছে লক্ষ কোটি।

যে আকাশ কখনও বৃষ্টি দেখেনি,
আমি সেই আকাশের নীচে ধূসর তেপান্তর
ধূলোয় মাখামাখি যৌবন ঋতুমতি নদীর
সঙ্গমবিহীন সংযমে কত শত ভক্ত অনুগামী।

যে আকাশ কখনও মেশেনি নিলীমায়
আমি সেই আকাশের গায়ে নি:সঙ্গ নক্ষত্র
নিশুতি রাতে আলোর রেখা বহুদূর
গভীর শুন্যে অরণ্য চেয়ে, কত না রোদন ভক্তকূলের।

যে আকাশ কখনও জোস্নায় ভেজেনি
আমি সেই আকাশের চোখে অশ্রুজল
পূজারির ফুলে ফুলে রক্তের ঘ্রাণ-
অদৃশ্য-অসীমে বাড়ে শুধু জমাট অন্ধকার।

হে পূজারি ভক্তকূল-
আর কত হাজার বছর চলে যাবে পুরনো প্রার্থনায়!
মহাশুন্যের মানুষের কাছে যতটুকু ঋণ-
তারও বেশী দাবি আছে আমাদের
ভূত-ভবিষ্যতের দাস নয়-
এবার শুধুই মানুষ হতে চাই, মানবিক মানুষ।

রাশেদ মেহেদী
২২ জুলাই ২০১৬

২ thoughts on “মহাশুন্যের মানুষ

  1. আর কত হাজার বছর চলে যাবে

    আর কত হাজার বছর চলে যাবে পুরনো প্রার্থনায়!
    মহাশুন্যের মানুষের কাছে যতটুকু ঋণ-
    তারও বেশী দাবি আছে আমাদের
    ভূত-ভবিষ্যতের দাস নয়-
    এবার শুধুই মানুষ হতে চাই, মানবিক মানুষ।

    অসাধারণ এই লাইনগুলো। *clapping*

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *