আইএস আতংক

গত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত বিড়বিড় করে বলে যাচ্ছি-
‘দেশে কোনো জঙ্গি নাই’।
ঈদের আগের দিন রাতে দেরি করে ঘুমাইছিলাম তাই আজ ঘুম থেকে একটু দেরিতে উঠেছিলাম।ঘুম থেকে উঠার কিছুক্ষণের মধ্যে আমার খৃষ্টান বস এসে হাত মিলিয়ে ঈদ মোবারক জানিয়ে বললো-
“আপনার ভাইয়েরা তো শোলাকিয়া ঈদ জামাতে বোমা মারছে”!
বস জানে আমি নাস্তিক আমি সবসময় জঙ্গিদের বিপক্ষে কথা বলি তাই একটু ঠিসি করে একথা বললো।
হাত মিলাতে মিলাতে আমি উত্তর দিলাম-
“সাবধান স্যার এরা খৃষ্টান খুঁজতেছে”!
এর পর দেখলাম স্যারের মুখ চুপসে গেলো।
কিছুদিন আগেও স্যারকে একথা বলছিলাম তিনি তখন মোটেও ভয় পাননি উলটো হা হা করে হেসেছিলেন, কিন্তু আজ তার মুখমন্ডলে স্পষ্টতই ভয়ের ছাপ দেখতে পেলাম।
শুধু বিধর্মী না,দেখলাম সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মনে আজ আতংক।
এক বড় ভাই ঈদের আগের দিন গিয়েছিলো বসুন্ধরা শপিং মলে।ফিরে এসে বললো শপিং করতে আসা প্রায় প্রতিটা মেয়েই হিজাব পড়ে এসেছে,কারণ হিসাবে তিনি বললেন একমাত্র জঙ্গিদের ভয়েই নাকি মেয়েদের এমন পরিবর্তন।
ঈদের খুশিতে এলাকার পিচ্চি পোলাপান বাজী ফুটাচ্ছে আর আমি উঠে উঠে দেখি,মনে হয় এই আইএস আসলো বুঝি!
আমরা কী কখনো এর হাত থেকে মুক্তি পাবো? কত লাশ আর দেখতে হবে?
চারিদিকেই আইএস আতংক।কোথায়,কখন,কার উপর এরা হামলা করে মৃত্যু নিশ্চিত করে টুইটারে টুইট করবে এটা কেউ জানেনা।
দেশের কোনো স্থানে,কোনো মানুষের মনে এখন শান্তি নাই।বাসা-বাড়ী থেকে শুরু করে শপিংমল গুলোতেও মানুষের মনে আতংক এই বুঝি আইএস আসলো! ঈদের জামাতেও হামলা করলো।ঈদের ঘোরাঘুরিতেও ভয়ে তটস্থ থাকবে এদেশের মানুষ।
প্রিয় স্বদেশ আজ আতংকগ্রস্থ,মনে হয় ইচ্ছে করেই দেশকে আইএসের হাতে তুলে দেয়া হইছে।বিগত দিনগুলিতে একটু সতর্ক হলেই হয়ত আজ এমন দিন দেখতে হতোনা।
এখনো হয়ত কিছুটা সময় বাকী আছে।দেশ সিরিয়া, আফগানিস্তান হবার আগেই সঠিক ব্যবস্থা নিন।

৪ thoughts on “আইএস আতংক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *