গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান: আমার গবেষনা ও সুপারিশ-১ প্রস্তাবনা

আজকের বিষয়: সূচনা ও প্রস্তাবনা। ‘জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গনতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা আমাদের সংবিধানের মূলনীতি। এই সব মূলনীতি কোনো ভাবেই উপেক্ষিত হবার নয়। অনুচ্ছেদ:৮, এ বলা হয়েজে এই সব নীতি হবে রাষ্ট পরিচালনার মূলনীতি। ধর্ম নিরপেক্ষতা রাষ্ট পরিচালনার একটি মূলনীতি। বাংলাদেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে রাষ্ট কোনো ধর্মকে একক ভাবে প্রধান্য দিবে না। ধর্মের বিষয়ে রাষ্ট নিরপেক্ষ থাকবে। কিন্তু সংবিধানের সূচনায় আছে “[বিস্ মিল্লাহির রহ্ মানির রহিম (দয়াময়, পরম দয়ালু, আল্লাহর নামে)/পরম করুণাময় সৃষ্টি কর্তার নামে]”। এর দুইটি অংশ আছে-প্রথমটি ‘বিস্ মিল্লাহির রহ্ মানির রহিম (দয়াময়, পরম, দয়ালু আল্লাহর নামে)’ অথবা দ্বিতীয়টি ‘পরম করুণাময় সৃষ্টি কর্তার নামে ‘। প্রথম অংশটি শুধু মাত্র ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা ব্যবহার করে। কিন্তু দ্বিতীয় অংশটি ইসলামসহ সকল ধর্মের অনুসারীরা ব্যবহার করতে পারে এবং করে। যেখানে দ্বিতীয় অংশটি দ্বারা সকল ধর্মের আশা আকাঙ্খার প্রতিপলন ঘটে, সেখানে আলাদা করে প্রথম অংশের ব্যবহারের কারণ কি? এটির ব্যবহারে কি ইসলম ধর্মের প্রধান্য প্রকাশ পায় না? এখানে ইসলাম ধর্মকে প্রধান্য দেওয়ায় সংবিধানের মূলনীতি ধর্মনিরপেক্ষতা উপেক্ষিত হয়েছে। এভাবেই সংবিধান পরস্পর বিরোধী। আমার সুপারিশ: শুধুমাত্র “পরম করুণাময় সৃষ্টিকর্তার নামে” থাকাটাই যৌক্তিক, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং গণতান্ত্রিক রাষ্টের প্রতিচ্ছবি।

১ thought on “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান: আমার গবেষনা ও সুপারিশ-১ প্রস্তাবনা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *