না, তারা আর পুলিশ মারবেনা, আওয়ামীলীগ মারবে।

আমরা সাভার শোকে শোকাহত।
আমরা সবাই ব্যস্থ আহত-নিহতদের সেবা , দাফন কাফন নিয়ে।
আর হেফাজতিরা?
জামাতিরা?
বি এন পি?
কি করছে তারা?
ছক কষছে মানুষ মারার।



এবারের টার্গেট বাশখালি, রাউজান এবং রাঙ্গুনিয়া।
এর যে কোন একটিতে অথবা একই সাথে তিন জায়গায় মানুষ মারার পরিকল্পনা সাজিয়ে রেখেছে জামাত-বি এন পি- হেফাজতি।
না, তারা আর পুলিশ মারবেনা।
এবার তারা মারবে আওয়ামীলীগ।
এই কাজে তারা হয় ধর্মকে ব্যবহার করবে নয়তো অন্য কোন ইস্যু।
কখন ঘটাতে পারে তারা এই ঘটনা?
গোলাম আযম সহ যে দু’জনের রায় ঘোষণার অপেক্ষায় আছে সে রায় ঘোষণার আগে অথবা পরে।
অথবা যে কোন হরতালের দিন।
আমরা সরকারের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি হেফাজতিদের ব্যাপারে চোখ কান খোলা রাখুন। জামাত-বি এন পি এদের কাঁধে বন্ধুক রেখে তাদের স্বার্থ উদ্ধারে ব্যস্থ।
বি এন পি হেফাজতিদের ইতোমধ্যে লোভ দেখানো শুরু করে দিয়েছে। টোপ দিচ্ছে আগামী নির্বাচনে কয়েকটি আসন তারা হেফাজতিদের দিবে। এই লোভে হেফাজতিরা মরণ খেলা খেলতে পিছপা হচ্ছেনা।
এই দেশের সাধারন মানুষের জান মাল রক্ষার্থে সরকার তথা আওয়ামীলীগকে কাণ্ডারির ভুমিকা পালন করতে হবে।
আমরা এই দেশে আর কোন জামাত-বি এন পি-হেফাজতির তাণ্ডবলীলা দেখতে চাইনা।
ভালো থাকুক আমার প্রিয় বাংলাদেশ।

২ thoughts on “না, তারা আর পুলিশ মারবেনা, আওয়ামীলীগ মারবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *