ইশ্বরের কি প্রয়োজন?

ইশ্বর আছে কি নেই বিতর্কের আগে ইশ্বরের প্রয়োজনীয়তা কি সেটা জানা দরকার।বিজ্ঞান বলে মহাবিশ্ব তৈরিতে ইশ্বরের বা কোন আলৌকিক সত্তার কোন ভুমিকা নেই।মহাবিশ্ব তৈরিতেই এই ইশ্বর নামের সত্তার কোন কাজ নেই তাহলে তাকে মহা ক্ষমতাধর বলা যায় না।এমন কি তার ক্ষমতার প্রশংসাও করা যায় না।এখানেই ইশ্বর অক্ষম।প্রত্যেকটা ধর্মগ্রন্থেই বলে ইশ্বর দয়াময়।আসলেই কি তাই।ইশ্বর যদি দয়াময় হয় তাহলে পৃথিবীতে কি গরিব অসহায় মানুষ থাকত।
একটা গল্প বলি,জাহাজে করে কিছু লোক সাগর পারি দিচ্ছিল।ঝড়ে জাহাজ ডুবে গেলে এক জন কোন ভাবে একটা দ্বীপে আসে।বাকি সবাই মারা যায়।বেচে যাওয়া লোকটা তার প্রাণ বাচানোর জন্য ইশ্বরকে অনেক ধন্যবাদ জানায়।
এ থেকে কেউ যদি ইশ্বরের দয়ার প্রমান পায় তাহলে তাকে নির্বোধ বলা ঠিক হবে।ইশ্বর দয়াময় ঐ বেচে যাওয়া লোকের কাছে।মৃত ব্যক্তির কাছে ইশ্বর কি নিষ্ঠুর নয়?কোন দুর্ঘটনা হতে যদি ইশ্বর তার তৈরি মানবকে বাচাতেই না পারে তাহলে সে কিসের ক্ষমতাবান।কিংবা প্রয়োজনে যদি তাকে না পাওয়া যায় তাহলে কেনই তার উপাসনা কর হয়।
বিশ্বের প্রায় ৮০ কোটি মানুষ না খেয়ে রাত্রি যাপন করে যা মোট জনসংখ্যার ১১%।এই ১১% মানুষের কাছে ইশ্বর কি কাজে আসে।এদের কাছে ইশ্বরের প্রয়োজনীতাই বা কি?ইশ্বর ক্ষমতাশীল,দয়াময়।গ্রন্থগুলো ঠিক এ রকমটাই ইশ্বরের বর্ননা দেয়।ইশ্বরের কি ক্ষমতা নেই এই ১১% মানুষের খাবার দিতে,কিংবা তার কি দয়া হয় না এদের প্রতি।
মহাবিশ্বে ইশ্বর যেমন বেকার তেমনই ভয়ংকরী। বেকার ইশ্বরের জন্য মানুষ হত্যা হয়।ইশ্বরের তুষ্টির জন্য পশু হত্যা হয়।তখন এদের কাছে ইশ্বরের প্রয়োজনীয়তা কি?এদের কাছে ইশ্বর নিষ্ঠুর,ভয়ংকর নয়?
কোন ধর্মের ইশ্বর স্বয়ং বলে নাই ইশ্বর আছে।কিছু অসুস্থ মানুষিকতার মানুষ ইশ্বরের প্রবক্তা।আর এদের অনুসারী মুর্খ মানুষ বোঝে না ইশ্বর কেই মানুষ সৃষ্টি করেছে,ইশ্বর মানুষকে নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *