মুক্তমনাদের নিরাপত্তাহীন জীবনযাপনের ফলে বাড়ছে মানষিক যন্ত্রনা

দেশে এখন দুইটা ধারা রয়েছে। একদল প্রগতিশীল তথা ঘুনে ধরা কুসংস্কারাচ্ছন্ন সমাজ ভেংগে নতুন করে বিনির্মাণ করতে চায়, অন্য দল পুরোনো সমাজব্যবস্থাকে আঁকড়ে ধরে ধর্মব্যাবসা চালিয়ে যেতে চায়। এরা ধর্মকে ব্যাবহার করে সাধারন জনগনকে নিজেদের বসে আনার সহজ কৌশল হিসেবে।

আমরা প্রগতিশীলরা যখনই কুসংস্কার এর বিরুদ্ধে কোনো যুক্তি দেখাই তখন ধর্মান্ধ মৌলবাদীরা যুক্তি খন্ডন করতে ব্যার্থ হয়ে চাপাতি নিয়ে ঝাপিয়ে পরে।একের পর এক মুক্তমনাদের হত্যা করে চলছে অথচ দেশের সরকার তাদের বিরুদ্ধে তেমন কোনো তৎপরতা দেখাতে পারছে না।চাপাতিওয়ালাদের ধরার কথা তো দুরের কথা বরং মুক্তমনাদের লেখার উপর বা মুক্ত মত প্রকাশের উপর সীমারেখা টেনে দিয়েছে। এর ফলে চাপাতিওয়ালাদের দিন দিন খুন করার সাহস বেড়ে যাচ্ছে এবং বুক ফুলিয়ে খুন করে বেড়াচ্ছে।

দেশের নতুন প্রজন্মের বুদ্ধিজীবী তথা মুক্তমনাদের নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রে সরকার উদাসীন ভাব করছে। এদেশ দিন দিন আমাদের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠছে। রাস্তা ঘাটে বের হতে ভয় লাগে। স্বরাস্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যগুলো থেকে আমরা হতাস হই কারন সে একের পর এক বিচ্ছিন্ন ঘটনা আখ্যা দিচ্ছে কিন্তু চাপাতিওয়ালাদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে পারছে না।

আমার নাম মারুফ,বয়স ২০ বছর।[ www.facebook.com/pressmaruf01 ] ফেসবুকে লেখালেখি করার অভ্যাস আছে। তবে কিছুদিন ধরে আমাকে বিভিন্ন লোকে এবং বিভিন্ন ফেইক আইডি থেকে হুমকি দেওয়া হচ্ছিল।হুমকির এভিডেন্সগুলো আমার ফেসবুকে দেখতে পাবেন। প্রাথমিকভাবে গুরুত্ব দিতাম না। তবে ইদানিং হুমকির পরিমান বেড়ে গেছে আশংকাজনকভাবে।ফ্যামিলিতে ফোন করে যা তা বলেছে আমার বিষয়ে । এখন খুবই নিরাপত্তাহীনতায় এবং প্রচন্ড মানষিক যন্ত্রনা অনুভব করছি। দেশকে আমরা স্বাধীন করেছি কিন্তু স্বাধিনতার মান অক্ষুন্ন রাখতে পারি নাই। রাস্তাঘাটে বের হতে ভয় লাগে। চারদিকে আতংক বিরাজ করছে।

দেশকে বসবাসের উপযোগী করার জন্য সরকারের কাছে আপনাদের মাধ্যমে অনুরোধ জানাচ্ছি। *diablo*

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *