বাংলাদেশে’র রিকার্সিভ দুঃখ !!

“তুফানের মত ঝড় আইল , তারপর আমগো সবাইরে কই লইয়া গেল ” এই বলেই কাঁদতে থাকলেন এক জন নারী গার্মেন্টস কর্মী ।

“বাবা আমগোরে বাঁচান , আমগোরে বাঁচান বাবা ” –আটকে পরে থাকা আরেক নারী গার্মেন্টস কর্মী ।

“আমরা এখানে পাঁচজন আটকা পইরা আছি ভাই ” –আটকে পরে থাকা এক পুরুষ গার্মেন্টস কর্মী ।

“আমি এই জায়গায় সাত মাস ধইরা চাকরী করতেছি । গত সাত মাস ধইরা অনেক বার এই বিল্লিং এ আগুন লাগছে , কাইপ্পা উঠছে । তাই চিন্তা করছিলাম বেতন পাওনের পর চাকরী ছাইরা দিমু ”- উদ্ধারকৃত এক নারী গার্মেন্টস কর্মী ।


“তুফানের মত ঝড় আইল , তারপর আমগো সবাইরে কই লইয়া গেল ” এই বলেই কাঁদতে থাকলেন এক জন নারী গার্মেন্টস কর্মী ।

“বাবা আমগোরে বাঁচান , আমগোরে বাঁচান বাবা ” –আটকে পরে থাকা আরেক নারী গার্মেন্টস কর্মী ।

“আমরা এখানে পাঁচজন আটকা পইরা আছি ভাই ” –আটকে পরে থাকা এক পুরুষ গার্মেন্টস কর্মী ।

“আমি এই জায়গায় সাত মাস ধইরা চাকরী করতেছি । গত সাত মাস ধইরা অনেক বার এই বিল্লিং এ আগুন লাগছে , কাইপ্পা উঠছে । তাই চিন্তা করছিলাম বেতন পাওনের পর চাকরী ছাইরা দিমু ”- উদ্ধারকৃত এক নারী গার্মেন্টস কর্মী ।

“ভাই আমি সাত তলায় কাজ করি ।এই গার্মেন্টসে আমার দুইটা ছোট বোন তিনতলায় চাকরী করে ”-এই বলে ডুকরে কেঁদে উঠলেন এক ভাই ।

মিলি নামের এক গার্মেন্টস কর্মী আটকা পরে আছে ,যার সাথে পরে আছে তার সহকর্মীর লাশ আর লাশের উপর পিলার ।

এখন পর্যন্ত সাত তলাতেই ১০০ জনের কাছা কাছি লাশ পাওয়া গেছে ।লাশ ঘরে লাশ রাখার জায়গা হচ্ছে না তাই গ্যারেজ ঘরে লাশ গুলো এলোমেলো ভাবে রাখা ।মুখগুলো কোন মতে কাপড়ে ঢাকা কিন্তু শ্যমলা শ্যামলা হাত-পা গুলো উকি দিয়ে আছে । গত রাতেও ওগুলোতে রক্ত চলাচল করছিল ।কিন্তু এখন তারা নির্জীব আর যারা সাত তলার নিচে আছে তাদের ভেতর হয়তো বেশির ভাগই মৃত ; হয়তো কয়েক ঘন্টার মধ্যে তাদের শরীরে পাঁচন ক্রিয়া শুরু হবে দুর্গন্ধ বের হতে থাকবে তখন আশে-পাশের সবাই নাক ধরে রাখবে ।কালকে জাতীয় শোক পালন হবে । পতাকা অর্ধ নমিত রাখবে সবাই ।তারপর অনেক দিন কেটে যাবে আর হয়তো আরেকটি রানা প্লাজা ধসে পরবে । আমরা সবাই আবার পতাকা অর্ধ নমিত রাখব !!

১ thought on “বাংলাদেশে’র রিকার্সিভ দুঃখ !!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *