অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে গতিশীল করতে নির্মিত হচ্ছে লেবুখালী সেতু

দীর্ঘদিনের জল্পনা-কল্পনা আর অপেক্ষার পালা শেষে বরিশাল-পটুয়াখালী-কুয়াকাটা-বরগুনা মহাসড়কের লেবুখালীর কাছে পায়রা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ হতে যাচ্ছে। সংযোগ সড়কসহ ১ হাজার ৪৭০ মিটার দীর্ঘ এই সেতুটি নির্মাণ এবং তীর সুরক্ষা নির্মাণের কার্যাদেশ হয়েছে। এক হাজার ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করে ২০১৮ সালের মধ্যেই তা সম্পন্ন করার টার্গেট নিয়েছে। সেতুটি শুধু কুয়াকাটার জন্যই নয়, বরং এটি পায়রা সমুদ্র বন্দরের কারণে নির্মাণ অতি জরুরি হয়ে পড়েছিল। লেবুখালীতে সেতু নির্মাণ সম্পন্ন হলে পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে পণ্যবাহী ট্রাক, লড়ি বিনা ফেরিতেই উত্তরবঙ্গে যাতায়াত করতে পারবে। আর খুলনা হয়ে পশ্চিমাঞ্চলে যেতে বাকী থাকবে একটি মাত্র বেকুটিয়া ফেরি। এই সেতু নির্মাণ কাজ ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে শেষ করা হবে। ২০১১ সালে কুয়েত উন্নয়ন তহবিলের সাথে খসড়া ঋণ চুক্তি এবং ২০১২-এর ১৩ মার্চ চূড়ান্ত চুক্তি স্বাক্ষর হয়। সেতুটি নির্মাণে ৮০ ভাগ অর্থই কুয়েত উন্নয়ন তহবিল থেকে দেয়া হবে। ২০১৩ এর মার্চে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লেবুখালী সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১২-এর মে মাসে প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি-একনেক এর চূড়ান্ত অনুমোদন লাভ করে। নানা আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রতার রাস্তা শুধু লম্বা হয়েছে গত কয়েক বছরে। নদীর দু’পাড়ে ‘সংযোগ সেতু বা ভায়াডাক্ট’ থাকছে ৮৪০ মিটার। সেতুটির দু’প্রান্তে ৮৯০ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণের লক্ষ্যে প্রায় ১২ হেক্টর জমি হুকুম দখল প্রক্রিয়াও ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *