ছাত্র শিবির যে কারনে রাজাকার

“ইসলামী ছাত্র শিবির ধর্মের নামে মৌলবাদী একটি ছাত্র সংগঠন। অনেক সময় তারা যুক্তি করে, আমরা কি করে রাজাকার হলাম, ৭১ সালে আমাদের বেশিরভাগেরই জন্ম হয় নাই বা তখন আমাদের বয়স একবছর কি দুই বছর। আমরা রাজাকার নই, আল-বদর নই। আমি তোমাদের বিবেকের কাছে একটা প্রশ্ন রেখে যাই। অধ্যাপক গোলাম আজম ১৯৫২ রাজাকার ছিলেন না, মতিউররহমান নিজামী ১৯৬২ সালে রাজাকার ছিলেন না। কিন্তু যে ভাবমানসকে ধারন করার জন্য, যে রাজনীতিকে ধারন করার জন্য ‘৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা রাজাকার,আলবদর, আলশামস ঘাতকবাহিনীর পরিচালকে পরিণত হয়েছিলেন সেই একইভাবমানস ধারণ করার কারণে তোমরা রাজাকার, আলবদর, আলশামসের উত্তারাধিকার বহণ করছ। আজকে রগকাটা, হাতকাটা, গলাকাটা ইত্যাদিনৃশংস কার্যকলাপ তোমাদেরকে সেদিকেই নিয়ে চলেছে। এ কথাটা ভাবতে হবে। মীর জাফর এখন বেঁচে নেই, কিন্তু তারপরও মানুষ বিশ্বাসঘাতককে মীরজাফর ডাকে। কারণ বিশ্বাসভঙ্গকারীর নাম মীরজাফর। মীরজাফর এখন জীবিত কি না বা মীরজাফরের সময়ের পরে বিশ্বাসঘাতককে মীরজাফর ডাকা যাবে কি না সেটা বিবেচ্য হয় না। ফলে আজকে ছাত্র শিবিরের ছেলেরাও ঘাতক বাহিনী হিসেবে চিহ্নিত হয়ে গেল। এর মধ্যে অনেক ছেলে হয়তো ধর্মীয় মূল্যবোধ বা ন্যায়-নীতির আকর্ষণে এ সংগঠনের সাথে যুক্ত হয়েছিল। কিন্তু বিজ্ঞানমনস্কতারঅভাবে এবং প্রতিক্রিয়ার পক্ষে, ধর্মের নামে পুঁজিবাদের পক্ষে দাঁড়াতে গিয়ে তাদের এই হাল হয়েছে।”
:কমরেড খালেকুজ্জামান

৬ thoughts on “ছাত্র শিবির যে কারনে রাজাকার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *