‘দ্য বব্স-বেস্ট অফ অনলাইন অ্যাক্টিভিজম’ এওয়ার্ড-এ ইস্টিশন’কে ভোট দিন

নগরের কানাগলি-ঘুপচি-রাজপথ, গাঁয়ের শস্যখেত-মেঠোপথ পেরিয়ে আমরা মানুষ ছুটে চলেছি সভ্য সমাজের খোঁজে। আমাদের ভেতরেই আবার আছে সেই মানুষ, যারা অসভ্যতার মাঝেই আটকে রাখতে চায় সবকিছুকে, শুধু হীন ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থের জন্য। মানুষ লড়ে চলেছে তারই অংশ অমানুষদের বিরুদ্ধে। দুই পক্ষই শান দিচ্ছে নিজ নিজ হাতিয়ার। দুর্ভাগ্য, আজো সর্বত্র অমানুষদেরই জয়জয়কার। আমরা ব্লগার, আমাদের হাতিয়ার হচ্ছে কলম ও কি-বোর্ড। আমরাও খুঁজে ফিরছি মানুষের সেই প্রত্যাশিত সমাজ।

সেই অনুসন্ধান থেকে প্রানে প্রান মেলাতে ২০১৩ সালে যাত্রা শুরু করেছিল ইস্টিশন ব্লগ। ইস্টিশনের প্ল্যাটফরমে জমে ওঠা আড্ডায়, আলোচনায় এতদিন একে অপরকে দিক নির্দেশনা দিয়েছি, সহযোগিতা দিয়েছি, প্রাণে প্রাণ মিলিয়েছি……..। আজ সময় এসেছে ইস্টিশনকে কিছু দেবার।

ডয়চে ভেলের ‘দ্য বব্স – বেস্ট অফ অনলাইন অ্যাক্টিভিজম’ অ্যাওয়ার্ডের চূড়ান্ত প্রতিযোগীদের ভোটাভুটি শুরু হয়েছে৷ বিশ্বের ১৩টি ভাষার প্রতিযোগীদের সঙ্গে বাংলা ভাষার চার প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে, যারা বাকস্বাধীনতা ও সমাজের উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য আবদান রাখছেন৷

চলতি বছর ‘দ্য বব্স’ প্রতিযোগিতার জন্য দু’হাজার তিনশোর বেশি মনোনয়ন জমা পড়েছে৷ এ সব মনোনয়ন যাচাই-বাছাইয়ের পর দ্য বব্স-এর আন্তর্জাতিক জুরিমন্ডলী ১৪টি ভাষার চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বীদের বাছাই করেন৷ বাংলা ভাষার যেসব প্রতিদ্বন্দ্বী মিশ্র ভাষা বিভাগগুলোতে রয়েছে, তারা হচ্ছে সামাজিক পরিবর্তন বিভাগে সুন্দরবন বাঁচাও আন্দোলন, প্রগতির জন্য প্রযুক্তি বিভাগে মায়া অ্যাপ, নাগরিক সাংবাদিকতা বিভাগে রেজর’স এজ ভিডিও তথ্যচিত্র এবং শিল্প ও সংস্কৃতি বিভাগে জিএমবি আকাশের ইন্সটাগ্রাম পাতা৷

এছাড়া বাংলা ভাষা বিভাগে রয়েছে পাঁচটি ব্লগ৷ এগুলো হচ্ছে ইস্টিশন ব্লগ, জার্মান প্রবাসে, ইতুর ব্লগ, অগ্নি সারথির ব্লগ এবং প্রবীর বিধানের ব্লগ৷ আগামী ২ মে পর্যন্ত তাদের অনলাইনে ভোট দেয়া যাবে৷ ভোট দিতে ভিজিট করুন: http://thebobs.com/bengali/

ইস্টিশন ব্লগকে চুড়ান্ত মনোয়ন লাভে ভোট দেওয়ার জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। এবার ইস্টিশন চুড়ান্ত প্রতিযোগীতায় লড়ছে। এই লড়াইয়ে টিকে থেকে বিজয়ী হওয়ার জন্য প্রয়োজন অনলাইনে আপনাদের সকল ভোট। প্রতিদিন ফেসবুক, টুইটারসহ ডয়েচে ভেলের নির্ধারিত সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে লগইন করে ভোট দিয়ে সকলের প্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফরম ‘ইস্টিশন’কে চুড়ান্ত বিজয় অর্জন করার পথে এগিয়ে নিন।

কিভাবে ভোট দেবেন:
ডয়চে ভেলের দ্য বব্স প্রতিযোগিতার চলতি আসরের চূড়ান্ত প্রতিযোগীতায় ভাষাভিত্তিক বিভাগে বাংলা ক্যাটাগরীতে ‘ইস্টিশন’ ব্লগ ‘ইউজার’র চয়েস অ্যাওয়ার্ড৷’ এর জন্য মনোনীত হয়েছে। ইস্টিশনের সকল লেখক, পাঠক ও শুভ্যানুধায়ীদের আগামী ২ মে ২০১৬ পর্যন্ত প্রতিদিন অনলাইনে একটি করে ভোট দিয়ে প্রতিযোগীতায় বিজয়ী করার জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে। ভোট দেওয়ার নিয়মাবলী খুবই সহজ। নীচের লিংকে ক্লিক করে আপনার ফেসবুক বা টুইটার একাউন্টের মাধ্যমে লগিন করে ‘ইউজার এওয়ার্ড বাংলা’ সিলেক্ট করে পাশের ট্যাব থেকে ‘ইস্টিশন ব্লগ’ ক্লিক করে ভোট দিতে পারেন। আপনাদের ভোট দেওয়ার পদ্ধতি বুঝার সুবিধার্থে নীচে দুটি ছবি দেওয়া হল।

প্রাণে প্রাণ মিলাতে সবার কাছে আমরা সহযোগীতা কামনা করছি।

ভোট দিতে ক্লিক করুন: http://thebobs.com/bengali/


ছবি-১: ক্লিক করুন লালবৃত্ত চিহ্নিত ফেসবুক বা টুইটারের মাধ্যমে ভোট দেওয়ার জন্য


বি-২: প্রথম ট্যাব থেকে সিলেক্ট করুন ‘ইউজার এওয়ার্ড বাংলা, পাশে বাছাই করুন ট্যাব থেকে সিলেক্ট করুন ইস্টিশন ব্লগ। এরপর ভোট দিন-এ ক্লিক করুন।

অনলাইন ব্যবহারকারীদের ভোটে ‘ইউজারস প্রাইজ’ বিজয়ীদের পাশাপাশি দ্য বব্স-এর জুরিমন্ডলী জার্মানির রাজধানী বার্লিনে এক বৈঠকের মাধ্যমে প্রতিযোগিতার ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হবে, যাদের আগামী জুন মাসে জার্মানির বন শহরে পুরস্কার গ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে৷ ইতোমধ্যে পাঁচটি বাংলাদেশি ব্লগ এবং প্রকল্প ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ জয় করেছে, যা এক রেকর্ড৷

১৬ thoughts on “‘দ্য বব্স-বেস্ট অফ অনলাইন অ্যাক্টিভিজম’ এওয়ার্ড-এ ইস্টিশন’কে ভোট দিন

  1. ৪ এপ্রিল থেকে প্রতিদিন একটি
    ৪ এপ্রিল থেকে প্রতিদিন একটি করে ভোট দিচ্ছি। আগামী ২ মে পর্যন্ত দিয়ে যাব। ইস্টিশন পুরুস্কার জিতবেই।

  2. প্রতিযোগীতায় অন্যদের মধ্যে
    প্রতিযোগীতায় অন্যদের মধ্যে ইস্টিশনকেই যোগ্য মনে করছি। বিগত ৩ বছর মুক্তচিন্তা চর্চায় ইস্টিশনের ভুমিকা অন্য যে কারো চাইতে অনেক সাহসী ও কার্যকর ছিল। ভোট দিচ্ছি প্রথম দিন থেকেই। অন্যদেরও ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ করলাম।

    ডয়েচে ভেলের প্রতিযোগীতার পদ্ধতিটি পরিচ্ছন্ন মনে হচ্ছে না। প্রতিদিন একটি করে ভোট দেওয়ার সুযোগ যোগ্যদের চিটকে দিতে পারে। তাছাড়া সাইটে প্রতিদিন প্রবেশ করা যায় না। দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করতে হয়। এখানে কোন প্রতিযোগী যদি ১০০টি ফেইক ফেসবুক আইডি ও ১০০টি টুইটার আইডি করে একমাস ধরে ভোট দেয় তাহলে একমাসে একজনই ৬০০০টি ভোট দিতে পারবে। মুল প্রতিযোগীতা আরো স্বচ্ছ ও সুন্দর করার প্রয়োজন ছিল। এছাড়া জুরিদের মুল্যায়ন থাকার প্রয়োজন ছিল।

    যোগ্য প্রার্থী হিসাবে ইস্টিশন জিতে আসবে বলে আশা করছি।

    1. অতিরিক্ত ট্রাফিকের কারণে অনেক
      অতিরিক্ত ট্রাফিকের কারণে অনেক সময় এদের সাইটে প্রবেশ করা যায় না। সকালের দিকে খুব সহজে ভোট দেওয়া যায়। আপনি পরে চেষ্টা করে দেখতে পারেন।

  3. ভোট দিয়ে এলাম। পাশাপাশি রেজর
    ভোট দিয়ে এলাম। পাশাপাশি রেজর’স এজের জন্য ভোট চাইছি। মুক্তচিন্তকদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে চলমান ভয়াবহ হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে জনমত গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবী

  4. জাতিকে সভ্য ও সুশিক্ষায়
    জাতিকে সভ্য ও সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে উঠতে হবে। তাছাড়া তারা অমানুষ থেকে মানুষে রূপান্তরিত হতে পারবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *