জিহোভার সাক্ষীদের সাথে কথোপকথন

জিহোভার সাক্ষীদের সাথে একদিনঃ
—————————————————————————————
কিছুদিন ধরেই জিহোভার সাক্ষীরা পিছনে লেগেছে।

জিহোভার সাক্ষী হল খ্রিস্টানদের আরেকটা অংশ, যারা আসল হিব্রু বাইবেলে বিশ্বাস করে এবং প্রচলিত খ্রিস্টানদের রীতিনীতিতে বিশ্বাস করে না।

তারা বিশ্বাস করে ঈসা নবী আবার পুনর্জন্ম লাভ করবেন, এবং তার অনুসারীদের নিয়ে তারা খারাপ মানুষদের সাথে যুদ্ধ করে পৃথিবী মুক্ত করবেন, এবং পরবর্তী ১০০০ বছর শাসন করবে ঈসা নবী।

প্রতি সপ্তাহেই আমাকে ফোন দিয়ে বিরক্ত করে, শেষমেশ না পেরে গেলাম।
আমি তাদেরকে প্রথমেই বলে দিয়েছি, যে আমি যুক্তি ও বিজ্ঞানে বিশ্বাস করি, অলৌকিক অথবা কোন রুপকথার গল্পে বিশ্বাস করিনা।

যিনি আমাকে ধর্মান্তরিত করার দায়িত্ব নিয়েছেন তার নাম প্যাস্টর অরি। তো তারা তো মনে মনে খুশি, যাক একটা মুরগি পাওয়া গেছে, কিন্তু আমি তো মনে মনে রেডি।

তো প্রথমেই শুরু করলেন, পৃথিবী যে গোল ১৬০০ বছর আগেই বাইবেলে বলা আছে। রেফারেন্স?
Isaiah 40:22 It is he who sits above the circle of the earth, and its inhabitants are like grasshoppers; who stretches out the heavens like a curtain, and spreads them like a tent to live in;

তো আমি প্রশ্ন করলাম, Circle মানে তো গোল চাকতির মত, যেমন প্লেট। এখানে পৃথিবী গোল কোথায় বলা আছে?

ইসলামে বলা আছে, পৃথিবী উটপাখির ডিমের মত, যদিও সেটাও গ্রহনযোগ্য নয়, কারন পৃথিবী স্ফেরিকাল। এবং অনেক জায়গায় বলা আছে পৃথিবী সমতল। সেগুলো আরও গ্রহণযোগ্য নয়।
প্যাস্টর বললেন মুসলিমরা তাদের বাইবেল থেকে চুরি করেছে।

আমি বললাম পৃথিবী যে গোল এটা পিথাগোরাস ষষ্ঠ শতাব্দীতেই বলে গেছেন। সুতরাং ফুলস্টপ।

তারপর আমি রেফারেন্স বের করলাম,
Isaiah 11:12
And he shall set up an ensign for the nations, and shall assemble the outcasts of Israel, and gather together the dispersed of Judah from the FOUR CORNERS OF THE EARTH. (KJV)
Revelation 7:1
1 And after these things I saw four angels standing on FOUR CORNERS OF THE EARTH, holding the four winds of the earth, that the wind should not blow on the earth, nor on the sea, nor on any tree. (KJV)
Job 38:13
13 That it might take hold of the ENDS OF THE EARTH, that the wicked might be shaken out of it? (KJV)

কিন্তু এখানে তো বলা আছে, পৃথিবীর চারটা কোনা আছে, এমনকি পৃথিবীর শেষও আছে। এটার উত্তর কি?
তখনই শুরু হল আসল খেলা।

প্যাস্টর অরি বললেন, ঈশ্বর অনেক কিছুই ইশারা দিয়ে বোঝান, মেটাফোরিকা্লেন, এগুলোকে তেমন পাত্তা না দিলেও চলবে। চারটা কোনা বলতে উত্তর, দক্ষিন, পূর্ব, পশ্চিম বোঝানো হয়েছে।
আমি বললাম, আপনি যেগুলো বললেন ওগুলো দিক, কোনা নয়। পৃথিবীর শেষ বলতে কি বোঝানো হয়েছে? আগে খ্রিস্টানরা সমুদ্রভ্রমন করত না, তারা ভাবত, পৃথিবীর কিনারায় গিয়ে পড়ে যেতে পারে, সেই ভয়ে। তাহলে কি তারা ভুল জানত?

যাই হোক, পরবর্তী অধ্যায় শুরু।

ঈশ্বর এডাম ইভকে হ্যাভেন থেকে শাস্তি দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। একটি ছবিও দেখালেন। এই এডাম ইভ মানুষের আদিম পিতামাতা।
আমি ছবিটা দেখিয়ে বললাম, যদি এডাম ইভ পৃথিবীর প্রথম নারী পুরুষ হয়ে থাকে, তাদের নাভি থাকে কি করে?

উনি চশমা দিয়ে ভাল করে দেখে বললেন, আসলেই আছে নাকি? পরে বললেন, আমরা এটা নিয়ে পরে আলোচনা করব।
আর বিবর্তন?
ওটা আরেকদিন।
আমি বললাম, ওকে।

তারপর শুরু হল আরেক অধ্যায়।
পৃথিবী কখনই ধ্বংস হবেনা, এক সময় ঈসা নবীর শাসনে পৃথিবী স্বর্গে পরিনত হবে। সব খারাপ মানুষকে মেরে ফেলা হবে, শুধু ভাল মানুষ তথাপি ঈসা নবীর ফলোয়াররাই বেঁচে থাকবেন।
আমি বললাম, বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা করছে প্রায় ১ বিলিয়ন পরেই পৃথিবী ধংসের উপক্রম হবে। সূর্য আলো দেওয়া কমিয়ে দেবে। তার উপর যদি কোন এস্ট্রয়েড পৃথিবীর উপর আছড়ে পরে তাহলে তো কথাই নেই। সম্ভাবনা অনেক প্রবল।

বাইবেলেও আছে,
Peter 3:10: “The heavens will disappear with a roar; the elements will be destroyed by fire, and the earth and everything in it will be laid bare.” This is the culmination of a series of events called “the day of the Lord,” the time when God will intervene in human history for the purpose of judgement. At that time, all that God has created, “the heavens and the earth” (Genesis 1:1), He will destroy.

প্যাস্টর অরি বললেন, আজকে একটু তাড়া আছে, আমরা পরে আবার আলোচনা করব।
আমিও মুচকি হেসে বাসার দিকে রওনা দিলাম।

পুনশ্চঃ ধর্ম বড়ই আনন্দদায়ক।

১ thought on “জিহোভার সাক্ষীদের সাথে কথোপকথন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *