বাংলার মূল্য কোথায় ?

বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের কাছে বাংলা হল মুখস্ত করে তা পরীক্ষার খাতায় ঢেলে আসার এক অতি তুচ্ছ বিষয় মাত্র | এখানে বোঝার মত কিছু নেই | অভিভাবকরাও বাংলা বিষয়ের প্রতি যথেষ্টই উদাসীন | অনেক অভিভাবক ছেলে-মেয়েকে বাংলা পড়তে দেখলে রাগারাগি করে অন্য বিষয় পড়তে বলে | পদার্থ-রসায়ন একটা চাই তিনটি প্রাইভেট পড়লেও সমস্যা নেই | কিন্তু বাংলা জন্য একজনের কাছে পড়লেই মহা ভারত অশুদ্ধ হয়ে যায় | অনেকে আবার বলেই বসে “কী ছাত্র হলে যে বাংলার মত বিষয় প্রাইভেট পড়তে হয় !”


বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের কাছে বাংলা হল মুখস্ত করে তা পরীক্ষার খাতায় ঢেলে আসার এক অতি তুচ্ছ বিষয় মাত্র | এখানে বোঝার মত কিছু নেই | অভিভাবকরাও বাংলা বিষয়ের প্রতি যথেষ্টই উদাসীন | অনেক অভিভাবক ছেলে-মেয়েকে বাংলা পড়তে দেখলে রাগারাগি করে অন্য বিষয় পড়তে বলে | পদার্থ-রসায়ন একটা চাই তিনটি প্রাইভেট পড়লেও সমস্যা নেই | কিন্তু বাংলা জন্য একজনের কাছে পড়লেই মহা ভারত অশুদ্ধ হয়ে যায় | অনেকে আবার বলেই বসে “কী ছাত্র হলে যে বাংলার মত বিষয় প্রাইভেট পড়তে হয় !”
অথচ দেখা যায় বোর্ড পরীক্ষাগুলোতে অধিকাংশ শিক্ষার্থী বাংলা বিষয়ে নম্বর কম পাওয়ার কারণেই কাঙ্খিত ফলাফল লাভ করতে পারে না | কারণ বাংলা মোটেও মুখস্ত করার মত কিছু নয় | বরং সম্পূর্ণই বোঝার বিষয় | আর বাংলা এমনই এক বিষয় যা দশ পাতা মুখস্ত করলে লিখা যায় বড়জোড় এক পাতা | কিন্তু এক পাতা বুঝতে পারলে তা নিয়ে দশ পাতা লিখাও যে সহজ হয়ে যায় তা শিক্ষার্থীরা বুঝতে পারে না |
নাহ. ….
বুঝতে পারে না বললে হয়তো অনেকটা ভূল হবে | বরং বলতে হবে বুঝতে চায় না | কারণ সবাই জানে বাংলার দৌড় এইচ. এস. সি. পর্যন্তই | চাকরির বাজারে এর কোন মূল্য নেই | তাই গুরুত্বও নেই |
সরকারের উচিত বাংলাদেশের সকল চাকুরির পরীক্ষায় বাংলা বিষয়ের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা | কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশে হয় ঠিক তার বিপরীত | এমনকি বাংলার শিক্ষক হতেও বাংলায় আর যাই হোক ইংরেজীতে পারদর্শী না হলেই নয় | বাংলা বিষয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ভাল নম্বর থাকে ইংরেজির উপরে | সেখানে ইংরেজির নম্বরের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয় | আর কেউ যদি বাংলায় পূর্ণ নম্বর পেয়েও ইংরেজিতে খারাপ করে, তাকে হয়তো আর নিয়োগ করা হয় না | কি উদ্ভট কথা যে বাংলার শিক্ষক হতে ইংরেজি লাগে !
বাঙালি আজ বাংলা সাহিত্য থেকে অনেক দূরে | তারা রীতিমত বিদেশী ভাষা, সাহিত্যের প্রতি আকৃষ্ট | অথচ তারা ভুলে যায় যে বাংলা সাহিত্যের প্রেমে পড়ে রবি ঠাকুর,মধুসূদন এর মত ব্যক্তিত্বের বাংলা ভাষায় রচিত হাজারো সাহিত্য বিদেশীরা নিজের ভাষায় অনুবাদ করে নিয়েছে | আফসোস ভিনদেশীরাও বাংলা সাহিত্যের মূল্য বোঝে কিন্তু বাঙালি বোঝে না |
অবাক লাগে !!!
যে দেশের নামের শুরু বাংলা দিয়ে , যে দেশের ভাষা মানুষের জীবনের বিনিময়ে অর্জিত , যে দেশের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সারা বিশ্ব আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে , সে দেশের মানুষের কাছে বাংলার এ কী মর্যাদা ?
যারা নিজেরা বাঙালি হয়েও সন্তানকে ইংরেজি শিক্ষায় শিক্ষিত করতে ছোট বেলা থেকে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়ায় , নিজেদের মহা শিক্ষিত জাহির করতে কথায় কথায় ইংরেজি বলে, তাদের জন্ম নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ আছে |
তবে ইংরেজির নিয়ে বাঙালির এত মাতামাতির জন্য আমি ইংরেজি ভাষাকে মোটেও দোষারোপ করব না | বাঙালি যখন নিজেই নিজের ভাষার মর্যাদা দিতে জানে না, সেখানে অন্য ভাষার দোষ দিয়ে কী লাভ !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *