অসৎ আস্তিক থেকে কি সৎ নাস্তিক ভাল?

কথায় বা প্রবাদ আছে “Honesty is the best policy” অর্থাৎ সততাই সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা। তাহলে সৎ হওয়ার জন্য মানুষের নিরন্তর প্রচেষ্টা হওয়া উচিত। অনেক মানুষ অবশ্য তা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।
একমাত্র মানুষের মধ্যে ধর্মের নানা ধরনের আচার পালন করতে দেখা যায়। পৃথিবীতে প্রায় ৭৫০ কোটি লোক বাস করে।। ধর্ম আছে হাজারো রকমের। প্রধান ধর্ম সমূহ বৌদ্ধ, খিষ্টান, ইসলাম ও হিন্দু ইত্যাদি। যারা ধর্মে বিশ্বাসী তারা নিজেদের ধর্মটিকে বড় ও সর্বোকৃষ্ট ধর্ম বলে মনে করে। বিশ্বে ধর্ম অবিশ্বাসীদের দল বা ধর্মে বিশ্বাস নাই বা সৃর্ষ্টিকর্তায় বিশ্বাস নাই তারা হলো নাস্তিক।

কথায় বা প্রবাদ আছে “Honesty is the best policy” অর্থাৎ সততাই সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা। তাহলে সৎ হওয়ার জন্য মানুষের নিরন্তর প্রচেষ্টা হওয়া উচিত। অনেক মানুষ অবশ্য তা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।
একমাত্র মানুষের মধ্যে ধর্মের নানা ধরনের আচার পালন করতে দেখা যায়। পৃথিবীতে প্রায় ৭৫০ কোটি লোক বাস করে।। ধর্ম আছে হাজারো রকমের। প্রধান ধর্ম সমূহ বৌদ্ধ, খিষ্টান, ইসলাম ও হিন্দু ইত্যাদি। যারা ধর্মে বিশ্বাসী তারা নিজেদের ধর্মটিকে বড় ও সর্বোকৃষ্ট ধর্ম বলে মনে করে। বিশ্বে ধর্ম অবিশ্বাসীদের দল বা ধর্মে বিশ্বাস নাই বা সৃর্ষ্টিকর্তায় বিশ্বাস নাই তারা হলো নাস্তিক।
ধর্মে বিশ্বাসী ও ধর্মে অবিশ্বাসী সবাই মানুষ। ধর্ম বিশ্বাসীদের মধ্যে নানা প্রকার ভাগ আছে। ইসলাম ধর্মে প্রধান দুইটি ভাগ শিয়া ও সুন্নী। তাদের মধ্যে বিভেদ স্পষ্ট। হিন্দুদের মধ্যে অসংখ্য জাত-পাত। খ্রিষ্টানদের মধ্যে ক্যাথলিক ও প্রটেষ্টেন্ট। কিন্তু নাস্তিকদের শধ্যে এমনভাগ অবশ্য শুনা যায় না যে, মুসলমান নাস্তিক, হিন্দু নাস্তিক ইত্যাদি।
নাস্তিক এবং আস্তিক এরা সমাজের মানুষ এবং সামাজিকভাবে বেচে থাকে। রাষ্ট্র বা দেশের জন্য কাজ করে থাকে।
যারা আস্তিক সেজে ধর্মের নামে সৃষ্টিকর্তার নামে মানুষকে বিভ্রান্ত করে কাজ-কর্মে অসততার পরিচয় দিচ্ছে, তারা কখনও ভাল মানুষ বা সৎ হতে পারে না।
বাংলাদেশ একটি মুসলিম প্রধান দেশ। এখানে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ও ধর্মে অবিশ্বাসীরা বাস করে। ধর্মের নামে যে সব মৌলবাদী গোষ্ঠী স্বার্থের জন্য মন্দির-মসজিদ ভাংগে তারা কোনভাবেই ধার্মিক বা ভাল মানুষ হতে পারে না। তারা হতে পারে নরপশু।
আর যারা ধর্মে বিশ্বাস করে না। কিন্তু অন্য ধর্মর প্রতি কটাক্ষ করে এবং লেখালেখির মাধ্যমে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়, তারাও মানূষ নয়। তারাও নরপশু।
সমাজে ধর্মে বিশ্বাসীরা বসবাস করতে পারলে, ধর্মে অবিশ্বাসীেদরও বসবাসের অধিকার আছে। এদেশ, এরাষ্ট্র শুধুমাত্র ধর্ম-ব্যবসায়ী ও মৌলবাদীদের নয়। এদেশ আমার-তোমার সকলের।

৩ thoughts on “অসৎ আস্তিক থেকে কি সৎ নাস্তিক ভাল?

  1. আতিক দা,এই দেশে মানুষ হিসেবে
    আতিক দা,এই দেশে মানুষ হিসেবে কে ভালো বিচার বিবেচনা হয় নাহ।হলে লেখক তো অফ যাইতো…

    লেখক সাব ভালোই লিখছেন।ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *