রাস্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়ায় ভবিষ্যৎ বাংলাদেশে কিছু পরিবর্তন

অবশেষে মহামান্য আদালত বাংলাদেশের রাস্ট্রীয় ধর্ম হিসেবে ইসলামকে শীলমোহর দিয়ে দিলেন। তবে ইহা সহিহ মুসলমানদের আন্দুলুনের ফসল নাকি হাসু বুবুর দুর্নিতি ঢাকার কৌশল তা একটু তলিয়ে দেখা আবশ্যিক।
তবে এটা বলাই বাহুল্য এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়ন ও সামাজিক ও অর্থনৈতিক সব দিকের অগ্রগতির কফিনে শেষ পেরেকটিও পোতা হয়ে গেলো।

এবার আসি শিরোনামে, অর্থাত রাস্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়ায় বাংলাদেশে ভবিষ্যতে যেসব পরিবর্তন হতে চলেছে-


অবশেষে মহামান্য আদালত বাংলাদেশের রাস্ট্রীয় ধর্ম হিসেবে ইসলামকে শীলমোহর দিয়ে দিলেন। তবে ইহা সহিহ মুসলমানদের আন্দুলুনের ফসল নাকি হাসু বুবুর দুর্নিতি ঢাকার কৌশল তা একটু তলিয়ে দেখা আবশ্যিক।
তবে এটা বলাই বাহুল্য এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়ন ও সামাজিক ও অর্থনৈতিক সব দিকের অগ্রগতির কফিনে শেষ পেরেকটিও পোতা হয়ে গেলো।

এবার আসি শিরোনামে, অর্থাত রাস্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়ায় বাংলাদেশে ভবিষ্যতে যেসব পরিবর্তন হতে চলেছে-

১, রাস্ট্র যেহেতু একটি বিশেষ ধর্মকে প্রাধান্য দিয়েছে সেহেতু সমাজে বাড়তে পারে ব্যাপক বৈষম্য এছারা বাড়তে পারে এক সম্প্রদায়ের প্রতি আরেক সম্প্রদায়ের অসহিষনুতা যা সর্বদাই জন্ম দেয় রক্তাক্ষয়ী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার, ফলস্বরুপ সংখ্যালঘুদের ভারত পলয়নের পরিমান বাড়তে পারে।

২,রাস্ট্রধর্ম যেহেতু ইসলাম তাই তার সুযোগ নিয়ে মুসলিম ধর্মগুরুরা ধর্মের দোহাই দিয়ে দেশের রাস্ট্র পরিচালন ব্যাবস্থায় হস্থক্ষেপ করতে পারে। যার ফলে ভেঙ্গে পড়তে পারে আমাদের রাস্ট্র পরিচালন ব্যাবস্থা।

৩, রাস্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়ায় ইসলাম বিরোধীতাই হবে রাস্ট্র বিরোধীতা। ফলে মুক্তচিন্তাধারার মানুষ ও সাধারন মানুষ যারা ইসলামের কঠোর রিতিনিতি গুলি মানতে নারাজ, তারা সমাজে ব্যাপক ভাবে হেনস্থার স্বিকার হতে পারেন। এবং তথাকথিক নাস্তিকদের কল্লা কর্তন বাড়ার বিপুল সম্ভাবনা। আর সব থেকে বড় কথা মৌলবাদিদের রাজত্বে তারা বিচার কতটা পাবে তা সবার জানা।

৪, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম প্রধান লক্ষ ও সংবিধানের চতুর্থ স্তম্ভ “ধর্মনিরুপেক্ষতা বাদ যাওয়ায় তা সরাসরি আঘাত হানতে পারে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়। ফলে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তিগুলির মাথাচারা দেওয়ার প্রবল সম্ভাবনা।

৫, সর্ব প্রকার শিক্ষা ব্যাবস্থায় ব্যাপক ভাবে ধর্মীয় শিক্ষা বাড়তে পারে,যার ফলে আমরা বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির তুলনায় বহুগুন পিছিয়ে পড়বো। এছারা আমরা পাবো এমন একটি প্রজন্ম যারা ধর্ম ছারা আর কিছুই বুঝবে বা চিনবে না। যেমনটা দেখা যায় মধ্যপ্রাচ্য সহ সকল মুসলিম রাস্ট্রে।

৬, ইসলামকে ঢাল হিসেবে ব্যাবহার করে বাড়তে পারে ব্যাপক দুর্নিতি।

৭, এছারা ব্যাপক হারে বাড়তে পারে জঙ্গী ততপরতা। এমনিতেই বাংলাদেশ আইএস,আল কায়েদার জন্য উর্বর জমি।

তবে পরিশেষে নিজের ব্যাক্তিগত মতামত বলি-
“মুসলমানদের ঈমানের আগায় ইসলাম নামক গাজরটি ঝুলিয়ে হাসু বুবু বাংলাদেশ রিজার্ব ব্যাঙ্কের টাকা চুরি, তনু হত্যা সহ বাকি সকল প্রকার কাটা গুলি অতি সুনিপুন কায়দায় ঝারলেন”।

৯ thoughts on “রাস্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়ায় ভবিষ্যৎ বাংলাদেশে কিছু পরিবর্তন

    1. এত অল্প সংখ্যক মালাউন নিয়ে এত
      এত অল্প সংখ্যক মালাউন নিয়ে এত ভয় কেন? এরা ৯২% মুসলমানের জন্য এত আতংক কেন? মালাউনদের দেশে যে মুসলমানরা আছে তাদের কি হবে? তাদেরকে কি নিয়ে আসবেন রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের দেশে?

  1. বেশীরভাগ মানুষের ভাষা বাংলা
    বেশীরভাগ মানুষের ভাষা বাংলা হবার কারনে যদি রাষ্ট্রভাষা বাংলা হতে পারে, তবে বেশীরভাগ মানূষের ধর্ম ইসলাম হবার কারনে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হতে আমি কোন বাধা দেখি না। তবে বাংলাদেশের সংবিধানে সব ধর্মের মানুষের অধিকার সমান ভাবে স্বীকৃত।

    এদেশের সংখ্যালঘু মানুষের সংখ্যা ১২% হলেও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় মাত্র ১% মুক্তিযোদ্ধাও হিন্দু-খৃষ্টান-বৈদ্ধদের মধ্যে থেকে কিন্তু পাওয়া যায় না। তারা সবাই সময় মত সটকে পড়েছিল।

    অথচ রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম নিয়ে আজকে তাদের কি দুঃখ আর চুলকানী!!

  2. রাষ্ট্রধর্ম যদি বহাল না থাকত
    রাষ্ট্রধর্ম যদি বহাল না থাকত দেশে এতক্ষণে নতুন করে জ্বালাও পোড়াও হত। সেটা সংখ্যালঘু অাস্তিকরাই করত। অার হাসু অাপুর সিংহাসন যাইত। তবে এটাই শুরু তবে একদিন এদেশে ধর্মনিরপেক্ষততা বাস্তবায়ন হবেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *