গত কয়েক বছরে মসজিদের মাইকে উস্কানি ও প্রাণহানি


২০১৬ সালের এই তিন মাসেই মসজিদের মাইকে উস্কানি দেওয়ার ফলে ১৬ জনের প্রাণহানি ঘটে। গত কয়েক বছর ধরেই আমরা দেখে আসছি প্রতিপক্ষের উপর হামলা কিংবা ধর্মীয় পাণ্ডারা মসজিদের মাইককে ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের উপর হামলা করে আসছে। মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলার অপ-সংস্কৃতি শুরু করে জামাত ও জামাতের বি-টিম হেফাজতে ইসলাম। ২০১৩ সালে ২০১৩ সালের ১১ এপ্রিল আওয়ামী লীগের হরতাল বিরোধী মিছিলে হামলা করে জামাত ও হেফাজত। হামলার পূর্বে তারা মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেয়-মসজিদের বড় হুজুরকে নাস্তিকরা তুলে নিয়ে গেছে। এই গুজবের পরই শুরু হয় হামলা। ভয়াবহ এই ঘটনায় ৩ ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়, গুরুতর আহত হয় আওয়ামী লীগ ছাত্রলীগের ৬৭ জন নেতা-কর্মী।।

এছাড়াও রাজাকার সাঈদী’র রায়ের পর ৩ মার্চ ভোরে বগুড়া জেলার বিভিন্ন মসজিদের মাইকেসাঈদীকে চাঁদে দেখা গেছে বলে গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয়। পাশাপাশি তাকে রক্ষার ঘোষণা দিয়ে জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা জেলার ১২ উপজেলায় একযোগে তাণ্ডব চালা। ওইদিনের তাণ্ডবে মোট ১৩ জন নিহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বগুড়া শহর ও কয়েকটি উপজেলায় ১৪৪ ধারা জারি করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।

মসজিদ’কে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যবহার করার সংস্কৃতি অনেক পুরাতন। বর্তমান জঙ্গিবাদের নিরাপদ প্রতিষ্ঠান হল মসজিদ। ইউরোপ আমেরিকার সরকার মসজিদে সন্ত্রাসী ধরতে গেলে তখন ইসলাম পন্থীরা বলা শুরু করে সরকার সাধারণ মুসলিমদের ধর্ম পালনে হস্তক্ষেপ করছে। যেমনটি-বাংলাদেশের বিভিন্ন সময়ে পত্রিকায় দেখা যায়; পুলিশ পেল্টোল বোমাবাজকে ধরতে গেলে বোমাবাজ মসজিদে ঢুকে পড়ে। সেখান থেকে ধরে আনার আনতে গেলে ছবি তুলে অনলাইনে প্রচার করা হয়-পুলিশ মসজিদে মানুষকে নামাজ পড়তে দিচ্ছে না।

মসজিদ প্রার্থনার জায়গা হলেও ধর্মীয় রাজনৈতিকদলগুলো এটিকে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যবহার করেছে। যেমন-কাঁটাবন মসজিদ থেকে শুরু করে বিভিন্ন মসজিদ জামাত-হেফাজত-হিজবুতের অস্ত্র ঘাটি হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। শুধু বাংলাদেশে হয় ইউরোপ আমেরিকার মসজিদও রাজনৈতিকভাবে এখন ব্যবহৃত হচ্ছে। ফ্রান্স হামলায় অনেক মসজিদের সম্পৃক্ততা পেয়েছে ফ্রান্স পুলিশ। এছাড়াও কিছুদিন আগে ব্রিটেন সরকার বলছে-ISIS-এ যোগ দিচ্ছে সুযোগ ও উৎসাহ দিচ্ছে সেখানকার কিছু স্থানীয় মসজিদ। এছাড়াও ওহাবী, সালাফি, মওদুদী মতবাদ প্রচারের মূল জায়গা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে স্থানীয় মসজিদ।

আসুন দেখে নিই মসজিদের মাইক ব্যবহার করে কী পরিমাণ তাণ্ডব করা হয় তার সামান্য চিত্র:

ঘটনা ১:
২৬ মার্চ, ২০১৬

মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে পুলিশের উপর হামলা, আহত ১০

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাত ১১ টার দিকে অপহরণ মামলার এক আসামীকে ধরতে নগরীর কাজলশাহ এলাকায় অভিযান চালায় কোতোয়ালি থানা পুলিশ। এসময় স্থানীয় এলাকাবাসী মসজিদের মাইকে ‘ডাকাত আক্রমন করেছে’ ঘোষণা দিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। এতে দুই পুলিশ সদস্য আহত হন।

ঘটনা ২:
গোলাপগঞ্জে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংখ্যালঘুর বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, নারী ও শিশুকে মারধর-সিলেট টুডে
২০১৬-০৩-২৭

জমি বিরোধের জের ধরে শনিবার বিকেলে দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
এরপর রাতে এশার নামাজের পর স্থানীয় মসজিদে আকবর আলী পক্ষ এ নিয়ে মিটিং করে। মিটিংয়ের পর মাইকে ঘোষণা দিয়ে রিপন দেবের বাড়িতে হামলা চালায় স্থানীয় বাসিন্দারা। হামলা চালিয়ে তার ঘরে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করা হয়।

ঘটনা:৩
রংপুরে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সাতটি ছাত্রী নিবাসে হামলা-যুগান্তর
০৪ জুন ২০১৫

কবরস্থানের জায়গা নিয়ে বিরোধের জেরে বুধবার ভোররাতে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে এবং বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে অবাঙালি অধ্যুষিত সুলতাননগরে ব্যক্তি মালিকানাধীন নূরানী নামের ৭টি ছাত্রী নিবাসে দুই শতাধিক লোক হামলা চালিয়েছে। এ সময় হামলাকারীরা ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। এ ঘটনায় ১০ ছাত্রী আহত ও ৬ ছাত্রী লাঞ্ছিত হয়েছেন। হামলাকারীরা ছাত্রীদের বইপত্র ও শিক্ষাসামগ্রী লুট করে নিয়ে গেছে। ফলে তাদের মধ্যে যারা পরীক্ষার্থী তারা বিপাকে পড়েছেন। আতংকিত ছাত্রীরা অনেকে নিরাপত্তার অভাবে ছাত্রী নিবাস ছেড়ে চলে যাচ্ছেন।

ঘটনা-৪
মসজিদের মাইকে ডাকাত ঘোষণা দিয়ে প্রতিপক্ষের ওপর হামলা, আহত ৫-প্রথম আলো
আগস্ট ১৭, ২০১৪

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের কেরোয়া গ্রামে গত শুক্রবার দিবাগত রাতে মসজিদের মাইকে ‘এলাকায় ডাকাত ঢুকেছে’ ঘোষণা দিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজনের ওপর হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনা- ৫
মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে ভণ্ডপীরের আস্তানা উচ্ছেদ গ্রামবাসীর-আমার দেশ
০৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, ১৩:০৬ অপরাহ্ন
মেহেরপুরের বুড়িপোতা ইউনিয়নে পুলিশের উপস্থিতিতে মসজিদের মাইকে গ্রামবাসীদের ডেকে নিয়ে গ্রামের বাগু দেওয়ান পীরের আখড়া গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

এ সময় ১০ বিঘা জমিতে আবাদ করা বিভিন্ন ফল গাছ কেটে ফেলা হয় ও পীরের বাড়িতে আগুন দেয়া হয়। মঙ্গলবার ফজরের নামাজ শেষে বুড়িপোতা ইউনিয়নের গোভিপুর গ্রামের মসজিদে গ্রামবাসীকে ‘ইউনিয়ন পরিষদের পাশে বাগু দেওয়ান পীরের আখড়া উচ্ছেদে অংশ নিতে বলা হয়।

ঘটনা-৬
মনোহরগঞ্জে পরকীয়ার জেরধরে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা-অর্থসূচক
২৪ মার্চ, ২০১৪

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে পরকীয়া প্রেমে আটকের ঘটনার জের ধরে দুই গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা ও সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষ চলাকালে গ্রামের সন্ত্রাসীদের গুলিতে এক এসএসসি পরিক্ষার্থীসহ অন্তত ২০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

ঘটনা-৭
মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষ-বাংলাদেশ প্রতিদিন

২৪ নভেম্বর, ২০১৫
খেলা চলাকালে উভয় দলের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা থেকে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এর জের ধরে সোমবার বিকালে শালিকা গ্রামের এনামুল হকের ওপর হামলা চালায় গোভীপুরের কয়েক যুবক। এ খবর দক্ষিণ শালিকায় পৌঁছলে গ্রামবাসী একজোট হয়ে মঙ্গলবার সকালে গোভীপুর গ্রামে হামলা করার জন্য মাইকে ঘোষণা দেন। সংবাদ পেয়ে গোভিপুর গ্রামের বিভিন্ন মসজিদের মাইকে লোকজনকে সতর্ক করে পাল্টা হামলার ঘোষণা দেওয়া হয়।

ঘটনা-৮
বরিশালে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীর বাড়িতে হামলা ॥ গ্রামবাসীর পাল্টা হামলায় আহত-জনকণ্ঠ
১২ মার্চ ২০১৬

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হামলা চলাকালীন সময় গ্রামবাসী মসজিদের মাইকে হামলাকারীদের প্রতিরোধ করার ডাক দেয়ায় গ্রামের সহ¯্রাধীক নারী-পুরুষ তাৎক্ষনিক হামলাকারীদের ধাওয়া করে। এসময় গ্রামবাসীর হাতে ছাত্রলীগের কমপক্ষে ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এছাড়াও ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী হামলাকারীদের ২০টি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে পাশ্ববর্তী পুকুর ও ডোবায় ফেলে দিয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওইদিন বেলা দুইটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

ঘটনা ৯
মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে ‘ডাকাত’ সাজিয়ে যুবককে হত্যা – সময় নিউজ
জুলাই ২৬, ২০১৫

কুমিল্লার মুরাদনগরে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে ‘ডাকাত’ সাজিয়ে এক যুবককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। প্রতারিত হয়ে বিদেশ থেকে ফিরে আসা যুবককে হত্যার এই ছবি মোবাইলে ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয় দালালচক্র।

ঘটনা-১০
নারায়ণগঞ্জে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ : বিজিবি পুলিশসহ নিহত ১৬ : মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা – মানবকন্ঠ
ঢাকা ৭ মে ২০১৩

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত গতকাল সোমবার ভোর থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের চলা দফায় দফায় সংঘর্ষে বিজিবি ও পুলিশের ৩ সদস্যসহ ১৩ জন নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই নিরীহ পথচারী ও শ্রমিক বলে জানা গেছে। আহত হয়েছেন কয়েকশ’। তবে স্থানীয় এলাকাবাসী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

ঘটনা-১১
কুমিল্লায় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে গ্রামে হামলা :গুলিবিদ্ধ ২০ –সমকাল
২৫ মার্চ ২০১৪

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে দুই গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা ও সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ অন্তত ২০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এ ঘটনায় নারীসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে শতাধিক লোক। এ ছাড়া হামলা চালিয়ে এক গ্রামের অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ও দোকান ভাংচুর এবং কয়েকটি স্থানে আগুন দেওয়া হয়েছে। হামলার সঙ্গে লুটপাটের ঘটনাও ঘটে। রোববার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত এবং গতকাল সোমবার ভোর থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার বিপুলাসার ইউনিয়নের সাইকচাইল ও কাঁচি গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনা-১২
মাইকে ঘোষণা দিয়ে ছাত্রীদের স্কুলে যেতে নিষেধ!-বাংলা ট্রিবিউন
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৬

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে পাঁচটি গ্রামে সোমবার মসজিদ থেকে মাইকিং করে ছাত্রীদের স্কুলে যেতে নিষেধ করার ঘটনা ঘটেছে । এ ঘোষণায় মঙ্গলবার রুশদী উচ্চ বিদ্যালয়ে হাতে গোনা কয়েকজন ছাত্রী এলেও নিরাপত্তার কারণে বাকিদের স্কুলে যেতে দেননি অভিভাবকরা। এক স্কুলছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে দু’পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর এমন ঘোষণা দেওয়া হয়।

ঘটনা-১৩
বড়লেখায় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে পুলিশের ওপর শিবিরের হামলা-নিউজ ২৪ মিরর
০৭-০৪-২০১৪

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসেম বলেন, শিবির ক্যাডাররা সংঘবদ্ধ হয়ে নাশকতার পরিকল্পনা করার জন্য কাঠালতলী একটি বাড়িতে জড়ো হয়েছে-এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে শিবির ক্যাডাররা ডাকাত ডাকাত বলে মসজিদে মাইকিং করে পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে তিনি (ওসি), সেকেন্ড অফিসার কাজী জিয়া উদ্দিন ও এক কনস্টেবল আহত হয়।

ঘটনা-১৪
মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা লুটপাট ও ভাংচুর-ইত্তেফাক
০৮ মার্চ, ২০১৫ ইং

মাইকে ঘোষণা দিয়ে কুমিল্লার লাকসামে এক পীরের অনুসারীদের হামলায় কয়েকটি ঘর-বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট ও খড়ের গাদা আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে ওই পীরের অনুসারীদের তাণ্ডবে ঘুমন্ত শিশু-বৃদ্ধসহ এলাকার নারী-পুরুষ আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়ে। ঘরবাড়ি হারিয়ে কয়েকটি পরিবার নিঃস্ব হয়ে পড়েছে।

ঘটনা-১৫
গাজীপুর কালীগঞ্জে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা : পুলিশ নিহত-বাংলাদেশ নিউজ
১২.০৫.২০১৩

গাজীপুরের কালীগঞ্জে বড়কাউ গ্রামে আসামী ধরতে গেলে মসজিদের মাইকে ডাকাত বলে ঘোষণা দিয়ে গ্রামবাসী পুলিশের উপর হামলা চালায়। এতে এক পুলিশ নিহত ও দুই জন আহত হয়েছেন।

ঘটনা-১৬
হাজী দানেশে মাইকে ঘোষণা দিয়ে শিবিরের তাণ্ডব-স্টুডেন্ট বিডি ২৪
ডিসেম্বর ১১, ২০১৩

দিনাজপুরে হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আজ বুধবার ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন জামায়াত-শিবিরের কর্মী-সমর্থকেরা।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আজ সকাল নয়টা ৫০ মিনিটের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন বাঁশেরহাট এলাকায় মসজিদের মাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা চালানোর ঘোষণা দেওয়া হয়। এরপর জামায়াত-শিবিরের তিন শতাধিক কর্মী-সমর্থক বড় বড় ছুরি, সামুরাই, রাম দা, চাইনিজ কুড়াল, লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন।

ঘটনা-১৭
রায়গঞ্জে মাইকে ঘোষণা দিয়ে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ২০
১৫ অক্টোবর ২০১৪

মঙ্গলবার সকালে কবরস্থান কমিটি সীমানা বেড়া দিতে গেলে বিষ্টুপুর গ্রামের শামসুল ফকির, সাহেব আলী, মিজানুর রহমান, শহিদুল ইসলাম ও বাহের আলী গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে লোকজনকে লাঠিসোটা নিয়ে গঙ্গারামপুর গ্রামের লোকজনের উপর হামলা চালায়। এসময় ৮জন গুরুতর আহত হয়।

ঘটনা-১৮
নরসিংদীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মসজিদের মাইকের ঘোষণা দিয়ে বাউল আখড়া ও বাউল সম্প্রদায়ের ওপর হামলার চেষ্টার করা হয়।

মার্চ ২০, ২০১৩

গত সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহরের কাউরিয়া পাড়ায় বাউল আখড়ায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক জেলা প্রশাসন ওবায়দুল আজমসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

ঘটনা ১৯
নোয়াখালীতে হেযবুত তওহীদের উপর সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ১০, আহত শতাধিক
মার্চ ১৪ ২০১৬

আজ (সোমবার) নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ি উপজেলার পোরকরা গ্রামে জামায়াত-হেফাজত এবং আরও কিছু সংগঠনের সম্মিলিত ষড়যন্ত্রে কয়েক হাজার মানুষ হেযবুত তওহীদের সদস্যদের বাড়িতে আক্রমণ করে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত হেযবুত তওহীদের ১০ জন কর্মীকে তারা শহীদ করেছে, শতাধিক সদস্যকে আহত করেছে, লক্ষ লক্ষ টাকার মালামাল লুট করেছে, ১৫ টা মটর সাইকেল জ্বালিয়েছে ও দুইটা বাড়ি জ্বালিয়ে ভস্মীভূত করেছে। এই ঘটনা সংঘটনের অসৎ উদ্দেশ্যে গত ১১ মার্চ ১৬ খ্রি তারিখে তারা জুম’আর সময় পোরকরা গ্রামের মসজিদে মসজিদে মুসল্লীদের মাঝে নাম-ঠিকানা বিহীন “হেযবুত তওহীদ একটি কুফরি সংগঠন” শিরোনামের এক উড়ো হ্যান্ডবিল বিলি করে। তারপর হেযবুত তওহীদ সদস্যদের উক্ত গ্রাম থেকে উচ্ছেদ করার জন্য উসকানিমূলক বক্তব্য ও বে-আইনী ফতোয়া দিয়ে মুসল্লীদের উত্তেজিত করে তোলে।

ঘটনা ২০
ওসমানীনগরে মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষের আহবান, এলাকায় উত্তেজনা

মোঃ মুহিব হাসান, বালাগঞ্জ থেকেঃ ওসমানীনগরে দুই যুবকের কথা কাটাকাটির জের ধরে মারামারিতে ইরতাজ চৌধুরী (২৫) নামের এক যুবক আহত হওয়ায় দুই গ্রামবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। আহত যুবক উপজেলার হলিমপুর গ্রামের আমতাজুর রহমান চৌধুরীর ছেলে। ্আহতবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । ঘটনার পর দুই গ্রামের লোকজন তাদের স্ব স্ব মজজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষে জড়িত হতে গ্রামবাসীকে আহবান করলে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

২৮ thoughts on “গত কয়েক বছরে মসজিদের মাইকে উস্কানি ও প্রাণহানি

  1. এইসব কতিপয় বিচ্ছিন্ন ঘটনা
    এইসব কতিপয় বিচ্ছিন্ন ঘটনা প্রকাশ করিয়া তুমি কি বুঝাইতে চাহিয়াছো বাবু? পবিত্র মসজিদের পবিত্র মাইক তেনার উপর তোমাদের নাস্তেকদের মিথ্যা অভিযোগ আর কতদিন??????

    1. মসজিদের মাইক ব্যবহার করে
      মসজিদের মাইক ব্যবহার করে সন্ত্রাসবাদ কখনই বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। ইসলামের আসল রূপ এটাই।

  2. তা তো বটেই। সবই মিথ্যা
    তা তো বটেই। সবই মিথ্যা অভিযোগ। ইহুদি নাসারা মসজিদ ও মসজিদের মাইক নিয়ে শুধু বদমাইশি করে। আর সাচ্চা মুসলমানের বাচ্চারা নিজের পাছায় আঙ্গুল দিয়ে বসে থাকে। মসজিদ ও মসজিদের মাইক নিয়ে বদমাইশি বন্ধ করুন।

    1. এটাই টো আমারও কথা, বাবা
      এটাই টো আমারও কথা, বাবা শামিম। সন্ত্রাস করো, চাপাতি আছে সেঈটা কাজে লাগাও। এখন এইগুলার পর লোক জড় করার জন্য মসজিদ এর মাইক ব্যবহার কড়তে আছো কেন গো বাওয়া? ও আচছা বুজতে পাড়ছি, ‘তাকিয়া’ করো, তাই না? তাইলে ঠীক আছে, চালায় যাও। হিন্দু মারো, নাসারা মারো, সব মাইরা শেষ কৈরা ফালাও।

      1. হিন্দু মারো, নাসারা মারো, সব

        হিন্দু মারো, নাসারা মারো, সব মাইরা শেষ কৈরা ফালাও।

        কাউকে মারতে হবে না, মৃত্যু সবার জন্যই অপেক্ষা করছে এ থেকে কারো রেহাই নেই ! আমরাতো শুধু বলতে চাই মৃত্যুর পরের জীবনে কি ভয়াভহ বিপদ অপেক্ষা করছে তাদের জন্য যারা এই মহাবিশ্ব জগতের সৃষ্টিকর্তার চরম অপমান করছে তার বদলে গরু , ছাগল, লিঙ্গ , মাগি পূজা করছে।
        কি করে তারা ভাবতে পারল এই বিশ্বজগতের পালনকর্তা একজন গরু,ছাগল,লিঙ্গ,মাগি…হায়রে মানুষ !!

  3. মাইক ও মসজিদ নিয়ে বদমাইশি
    মাইক ও মসজিদ নিয়ে বদমাইশি বন্ধ করুন। তাহলেই কেউ আর এগুলো নিয়ে কথা বলবে না। অন্য ধর্মের লোকজন আপনাগো থেকে এই ক্ষেত্রে পিছাই আছে।

    1. হ্যা এই জন্যই বলি মসজিদ ভাংতে
      হ্যা এই জন্যই বলি মসজিদ ভাংতে হবে। মসজিদের বদলে মন্দির প্যাগডা বানাতে হবে। আযানের চাইতে উলুদ্ধণী অনেক সুখকর।

  4. অযথা বকবক না করে হয় তোরা
    অযথা বকবক না করে হয় তোরা মুসলিম হয়ে যা নয়ত এদেশ থেকে ভারত চলে যা নয়ত তোদের সামনে কঠিন ভয়াবহ দিন আসছে। কারন ইতিমধ্যে তোরা প্রমান করে দিয়েছস তোরা কোন দেশের জন্য কাজ করস তোরা বেইমান তোরা ভারতীয় গুপ্তচর ! র এর এজেন্ট।তোরা এদেশের খাবি পরবি আর ভারতের গুনগাবি এ গুলি আমাদের বাপদাদারা ভালমানুষ ছিল বলে মেনে নিয়েছিল কিন্তু তোরা তার দাম দিতে পারস নাই, তোরা বুঝতে পারস নাই মুসলমান আল্লাহর জন্য সব করতে পারে কাউকে বুকে টেনে নেয় আবার কারো বুক ছিড়ে কলিজা বের করতে ও কষ্ট হয় না। তোরাই এদেশের মানুষের অসম্প্রদায়ীক মানুসিকতা নষ্ট করার জন্য দায়ী। এদেশের মানুষ এসব মূর্তিপূজার আবর্জনা থেকে অনেক আগেই মুক্তি পেয়েছে শুধুমাত্র তোদের মত কিছু আবর্জনার কীটরা তা নিয়ে পরে আছস। সত্যিই আল্লাহ পাক যদি তোদের মধ্যে কোন ভালাই দেখত তাহলে তোদেরকে ইমানের আলো দিয়ে ধন্য করত !!

    1. সেদিন আর বেশি দিন নাই কয়দিন
      সেদিন আর বেশি দিন নাই কয়দিন পর তুমরা কইবা মুহাম্মদও ইহুদি নাসাদের এজেন্ড ছিল। ওগো কিতাম থেকে কপি পেস্ট মাইরা কোরান বানাইয়া আমাগোরে জঙ্গিবাদ শিখাই দিসে। কাফের জবাই করা শিক্ষা তো কোরান থেকেই শিখে আসছ। লজ্জা করে না? অবশ্য মুমিন মানেই লজ্জাহীন। সারা পৃথিবীতে এদের চরিত্র উন্মোচিত হচ্ছে।

      1. তগ চরিত্র আরো খারাপ। অভিজিত

        তগ চরিত্র আরো খারাপ। অভিজিত রায়ের বায়াত প্রাপ্ত তোদের এই হিন্দু গ্রুপটারে বাংলাদেশের মানুষ খুব চিনে গেছে।
        তোদের দিন শেষ, বাংলাদেশে আর ভাত নাই। ইউরোপে গিয়ে ইহুদী গো জুতা পালিশ কইরা আর মুসলামগো বিরুদ্ধে ব্লগ লেইখা বাইচা থাকাটাই তগ এখন জীবন।

    2. যদি ভারত থেকে পিটায়া সব
      যদি ভারত থেকে পিটায়া সব মুসলমান বের করে দেয় তখন কি হবে শামিম সাহেব? কোথায় তাদের জায়গা হবে? নাকি সেটা তখন অন্যায় হয়ে যাবে? মুসলিমরা ও ইসলাম ধর্ম কতটা রেসিস্ট ধর্ম আপনার মত ধার্মিকদের আচরণ দেখলেই বুঝা যায়? মুসলমানরা ধার্মিক হয়েছে, কিন্তু মানুষ হতে পারেনি।

      1. হ্যা কোন মুসলমান যদি হন্দু
        হ্যা কোন মুসলমান যদি হন্দু ধর্মের দেব-দেবীকে গালি গালাজ করে; মন্দিরের বিরুদ্ধে লিখা লিখি করে প্রকারান্তরে মন্দির বন্ধ করে দিতে চায়; হিন্দু মেয়েদের প্রকাশ্যে চুম্বন দিয়ে সম্ভ্রমহানী করতে চায়; তবে উক্ত নাস্তিক মুসলমাকে ভারত সরকার দেশের জন্য ক্ষতিকর বিবেচনা করে ভারত থেকে বের করে দেয়; তবে সেই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাব।
        আর বাংলাদেশের ব্যাপারেও আমাদের একই সিদ্ধান্ত।

      2. ভারতের মুসলমানরা বাংলাদেশের
        ভারতের মুসলমানরা বাংলাদেশের মালাউনদের মত বেইমান না। অার মুসলমানের কাছে এই সব দেশ ভিবক্তি বড় বিষয় নয়, মুসলিম উম্মাহ বড় । দেশের পূজা মুসলমান করে না।

  5. হ্যা কোন মুসলমান যদি হন্দু
    হ্যা কোন মুসলমান যদি হন্দু ধর্মের দেব-দেবীকে গালি গালাজ করে; মন্দিরের বিরুদ্ধে লিখা লিখি করে প্রকারান্তরে মন্দির বন্ধ করে দিতে চায়; হিন্দু মেয়েদের প্রকাশ্যে চুম্বন দিয়ে সম্ভ্রমহানী করতে চায়; তবে উক্ত নাস্তিক মুসলমাকে ভারত সরকার দেশের জন্য ক্ষতিকর বিবেচনা করে ভারত থেকে বের করে দেয়; তবে সেই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাব।
    আর বাংলাদেশের ব্যাপারেও আমাদের একই সিদ্ধান্ত।

  6. সুব্রত শুভ্র আর নুর নবী দুলাল
    সুব্রত শুভ্র আর নুর নবী দুলাল তগো খবর আছে। আগে তগো দেশ থেইকা বাহির করুম। তারপর ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবো। তরা ইসলামের কোনো ক্ষতি করতে পারবিনা।

    1. ৯২% মুসলমানের ঈমানী শক্তি
      ৯২% মুসলমানের ঈমানী শক্তি কতটা দুর্বল হলে আমরা কয়েকজন মিলে ইসলামের ক্ষতি করতে পারি সেটাই ভাবতেছি। ইসলামের ক্ষতি আমরা করতে হবে না। কোরান ও হাদিসের কন্টেন্ট ইসলামের ক্ষতির জন্য যথেষ্ঠ। আর তোমাগোর মত উগ্র ধার্মিকরাই ইসলামের বারোটা বাজাবে। বারোটা বেজে গেছে। এখন শুধু চেয়ে চেয়ে দেখতে থাক। আমরা টুকটাক ধর্মের ২/১টা ভুল ধরিয়ে দিচ্ছি মাত্র। এতেই শান্তির ধর্মের ত্রাহি অবস্থা? আমরা অনলাইনে বসে লেখালিখি করি। দেশে থাকলেও যা, বিদেশে থাকলেও তা। এতগুলা মানুষকে শান্তির ধর্ম ইসলামের নামে কোপাইলা, আমাদের কথা বলা বন্ধ করতে পারছো? বরং আগের চেয়ে আমরা দ্বিগুন মনোবলে লিখছি।

      ইস্টিশনের মডারেশন প্যানেলকে অনুরোধ জানাব, এই ধর্মীয় বেয়াদব এর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য।

  7. বেদুঈন সন্ন্যাসী, একজন
    বেদুঈন সন্ন্যাসী, একজন অত্যন্ত নোংরা লোক। তার কমেন্টগুলো নোংরা এবং কুরুচিপূর্ণ। ব্লগপোস্ট থেকে তার সমস্ত কমেন্ট অপসারণ করা হোক। তার যথাযোগ্য শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

    1. ব্লগের উপর নজর ইস্টিশন
      ব্লগের উপর নজর ইস্টিশন মাস্টার সব সময়ই রাখেন। ব্লগার বেদুঈন সন্ন্যাসী’কে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছিলো। কোন অভিযোগ না আসলে ইস্টিশন কর্তৃপক্ষ শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করার পক্ষপাতি।

      ভাষার ব্যবহার সংযত করার জন্য ব্লগার বেদুঈন সন্ন্যাসী’কে চুড়ান্ত মাত্রায় সতর্ক করা হল। এর ব্যতয় ঘটলে স্থায়ীভাবে ব্যান করা হবে।

      1. @ইস্টিশন মাস্টার
        সুব্রত শুভর

        @ইস্টিশন মাস্টার
        সুব্রত শুভর দুটি মন্তব্যের অংশ বিশেষ–

        আর সাচ্চা মুসলমানের বাচ্চারা নিজের পাছায় আঙ্গুল দিয়ে বসে থাকে।

        অণ্ডকোষ থেকে চিন্তা করলে এমনই চিন্তা আসবে।

        পাছায় আঙ্গুল, অন্ডকোষ ইত্যাদি অশালীন ভাষা ব্যবহার করার জন্য সুব্রত শুভকে কেন সতর্ক করা হবে না?

        ভাষার ব্যবহার সংযত করার জন্য ব্লগার বেদুঈন সন্ন্যাসী’কে চুড়ান্ত মাত্রায় সতর্ক করা হল। এর ব্যতয় ঘটলে স্থায়ীভাবে ব্যান করা হবে।

        এ কথাটি সুব্রত শুভর ব্যাপারেও সমান ভাবে প্রযোজ্য নয় কি? নাকি সে আপনাদের মত একই ভাবধারার অনুসারী বলে তার সব মন্তব্যই গ্রহনযোগ্য। ব্যাক্ষ্যা আশা করছি।

  8. বাংলাদেশে বাস করে, বাংলাদেশের
    বাংলাদেশে বাস করে, বাংলাদেশের আলো হাওয়ায় জীবন যাপন করে যারা বিদেশী আরবীয় অপধর্ম, অপসংস্কৃতি তথা হিংসাত্মক ভাবধারা অনুসরন করে, আরবীয় চেতনাকে বাংলাদেশের চেতনার চেয়ে অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ মনে করে, তারা মানসিকভাবে অসুস্থ ছাড়া কিছুই নয়। তারা আরবীয় টাকা ও ৭২ হুরের লোভে বাংলাদেশের সংস্কৃতি ধর্ম জীবনযাত্রার বিরোধীতা করছে সৌদী প্রচারকেন্দ্র তথা মসজিদে বসে। এইসব পশ্চিমা সৌদী অপসংস্কৃতির এদেশীয় এজেন্টদের বাংলাদেশ থেকে বিতারিত করা প্রয়োজন। ওদের কপাল ভাল যে সৌদী হিংস্র মতাদর্শের মতো এদেশীয় মতাদর্শে ভিন্নমতাবলম্বীকে কোপানোর বিধান নেই।

  9. বাংলাদেশে বাস করে, বাংলাদেশের
    বাংলাদেশে বাস করে, বাংলাদেশের আলো হাওয়ায় জীবন যাপন করে যারা বিদেশী আরবীয় অপধর্ম, অপসংস্কৃতি তথা হিংসাত্মক ভাবধারা অনুসরন করে, আরবীয় চেতনাকে বাংলাদেশের চেতনার চেয়ে অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ মনে করে, তারা মানসিকভাবে অসুস্থ ছাড়া কিছুই নয়। তারা আরবীয় টাকা ও ৭২ হুরের লোভে বাংলাদেশের সংস্কৃতি ধর্ম জীবনযাত্রার বিরোধীতা করছে সৌদী প্রচারকেন্দ্র তথা মসজিদে বসে। পশ্চিমা সৌদী অপসংস্কৃতির এদেশীয় এজেন্টদের বাংলাদেশ থেকে বিতারিত করা প্রয়োজন। ওদের কপাল ভাল যে সৌদী হিংস্র মতাদর্শের মতো এদেশীয় মতাদর্শে ভিন্নমতাবলম্বীকে কোপানোর বিধান নেই।

  10. মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে এ
    মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে এ পর্যন্ত যতগুলো অপকর্ম করা হয়েছে সবগুলো এই পোস্টে আপডেট দেওয়ার শুভ ভাইকে অনুরোধ জানাইলাম।

  11. ” জগৎ-এ মানুষ অধিক অংশ অপকর্ম
    ” জগৎ-এ মানুষ অধিক অংশ অপকর্ম করে
    ধর্মর নামে বা ধর্মের ঢাকনা দিয়া, তারপর-
    সে বলে আমি ধার্মিক ! ”
    ! ধর্মবোধ……..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *