“হিমুও পাহাড়ে যেতে চায়……”

বাড়ি যাবো বাসের টিকেট না পেয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ট্রেনের টিকেট করেছি। কমলাপুর রেল ষ্টেশনে হঠাৎ হিমুর সাথে দেখা।

= হিমু ভাই কই যান ?
– কেরে তুই চেহারা তো নতুন মনেহয়।
= ভাই আমি মঞো।
– ওহ তুই উপজাতি, ভালোই হলো তোর সাথে দেখা হয়ে।
= না….হিমু ভাই আমি আদিবাসী, রাংঙামাটি বাড়ি।
– আদিবাসী ? লোকমুখে যে শুনি তোরা উপজাতি। যাই হোক আয় হাটবো কিছু গল্পও করি।
= আচ্ছা হিমু ভাই এইযে আপনি খালি পায়ে হাঁটেন পেরেক ফুটেনা আর ফুটলে এটিএস দেননা ?
– হা হা সহ্য হয়ে গেছে আর এগুলা দিব কিভাবে ? এগুলা দেয়ার জন্য টাকা লাগে আর টাকা রাখার জন্য পকেট লাগে। আমারতো পকেট নেই।

বাড়ি যাবো বাসের টিকেট না পেয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ট্রেনের টিকেট করেছি। কমলাপুর রেল ষ্টেশনে হঠাৎ হিমুর সাথে দেখা।

= হিমু ভাই কই যান ?
– কেরে তুই চেহারা তো নতুন মনেহয়।
= ভাই আমি মঞো।
– ওহ তুই উপজাতি, ভালোই হলো তোর সাথে দেখা হয়ে।
= না….হিমু ভাই আমি আদিবাসী, রাংঙামাটি বাড়ি।
– আদিবাসী ? লোকমুখে যে শুনি তোরা উপজাতি। যাই হোক আয় হাটবো কিছু গল্পও করি।
= আচ্ছা হিমু ভাই এইযে আপনি খালি পায়ে হাঁটেন পেরেক ফুটেনা আর ফুটলে এটিএস দেননা ?
– হা হা সহ্য হয়ে গেছে আর এগুলা দিব কিভাবে ? এগুলা দেয়ার জন্য টাকা লাগে আর টাকা রাখার জন্য পকেট লাগে। আমারতো পকেট নেই।
= সে যায় হোক চলেন চা খাই। তো ভাই আপনি কই যান ?
– পাহাড়ে যাবো, শুনলাম পহেলা বৈশাখে নাকি উপজাতিরা পানি খেলে। তাই ভাবলাম যাই দেখে আসি।
= আপনি জানলেন কিভাবে ?
– কাওরান বাজারে মাছের গন্ধ নিতে গিয়েছিলাম। রাস্তার পাশে কয়েকটা ছেলেকে বলতে শুনলাম পাহাড়ে নাকি এই দিনে ভেজা পরি নামে। কোন বইয়ে নাকি যাওয়ার জন্য দল গঠন করা হচ্ছে। আমিতো রাস্তায় অনেক হেটেছি কোনদিন পরি দেখা পায়নি তাই ভাবলাম যাই আমিও দেখে আসি।
= হিমু ভাই ওটা কোন বই না ওটার নাম ফেইসবুক। আর দল গঠনটা হচ্ছে ইভেন্ট।
– বাহ্ তুই দেখি অনেককিছু জানিস।
= হিমু ভাই সিগারেট খান ?
– হে মাঝে মাঝে খাই, আচ্ছা তোরা পানি নিয়ে খেলা করিস কেন ? খেলা করার কি আর কিছু নাই।
= না ভাই এটা কোন খেলা না, এটা আমাদের সংস্কৃতির একটা ঐতিহ্য। আমরা বিশ্বাস করি পানি হচ্ছে সরল এবং স্বচ্ছটার প্রতিক। তাই পুরনো বছরের সব গ্লানি পানি দিয়ে মুছে ফেলে নতুন বছরে শুদ্ধ হতে মৈত্রি জল ছিটিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেওয়া।
– ওহ তাই, তারমানে এটা তোদের সংস্কৃতির একটা অংশ। আর মফিজের বাচ্চারা না বুঝে খালি খেলা খেলা করে অন্যের সংস্কৃতিকে পণ্য বানাচ্ছে। যাক তোর সাথে দেখা হয়ে জানতে পারলাম। কিন্তু মফিজদের বুঝাবে কে ?
= ভাই দেখার ইচ্ছে নিয়ে যেহেতু যায় জানার আগ্রহটাও থাকা উচিত।
– হুম চিন্তার বিষয় !!!
= অনেক কথা হলো হিমু ভাই যেতে হবে এখন।
– একটু অপেক্ষা কর হা করে বৃষ্টি খাবিনা।

হুট করে বৃষ্টি এলো, হিমু ভাই আর আমি হা করে বৃষ্টির ফোটা খেতে খেতে যে যার উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম……….

বিঃদ্রঃ আদিবাসীদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে নিয়ে কতিপয় ট্র্যাভেল এজেন্সি ভ্রমণের নামে পণ্যে রূপান্তরিত করণের বিরুদ্ধে এটি একটি প্রতিবাদের মাধ্যম মাত্র। অনুরোধ করছি উদ্দেশ্যমূলক বিকৃতভাবে প্রভাবিত না করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *