প্লেয়ার নিষিদ্ধকরণের যেসব নতুন আইন আইছিঃছি ভাবিয়া দেখিতে পারে!!!!!!!!!!!!

খুব খ্রাপ, খুব খুব খুব খ্রাপ!! আইসিসিতে ব্যাটসম্যান নিষিদ্ধের কোন রুল নাই!! দুই চারদিনের মইধ্যে বানাইয়া ফেলনেরও কুনু চান্সও নাই। সাব্বির, তামিম, মাহমুদুল্লাহরে নেক্সট ম্যাচে ক্যামনে আটকাইবো এইটা ভাইবা প্যান্ট আদ্র হইয়া যাইতাছে ইন্ডিয়ার। আবার মুস্তাফিজও নাকি আইবো। রিপোর্টের পর ৭ দিনের টাইম লিমিটের আইনের কারণে ওরেও তো এই টুর্নামেন্টে নিষিদ্ধ করার কুনু উপায় নাই, অন্তত বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ম্যাচের আগে। খ্রাপ খ্রাপ, খুব খ্রাপ!!!

নেক্সট সভা আরও অনেক দেরী, বিশেষ সভা ডাকিয়া জরুরীভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাইতে পারে।

ব্যাটসম্যান নিষিদ্ধের আইন


খুব খ্রাপ, খুব খুব খুব খ্রাপ!! আইসিসিতে ব্যাটসম্যান নিষিদ্ধের কোন রুল নাই!! দুই চারদিনের মইধ্যে বানাইয়া ফেলনেরও কুনু চান্সও নাই। সাব্বির, তামিম, মাহমুদুল্লাহরে নেক্সট ম্যাচে ক্যামনে আটকাইবো এইটা ভাইবা প্যান্ট আদ্র হইয়া যাইতাছে ইন্ডিয়ার। আবার মুস্তাফিজও নাকি আইবো। রিপোর্টের পর ৭ দিনের টাইম লিমিটের আইনের কারণে ওরেও তো এই টুর্নামেন্টে নিষিদ্ধ করার কুনু উপায় নাই, অন্তত বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ম্যাচের আগে। খ্রাপ খ্রাপ, খুব খ্রাপ!!!

নেক্সট সভা আরও অনেক দেরী, বিশেষ সভা ডাকিয়া জরুরীভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাইতে পারে।

ব্যাটসম্যান নিষিদ্ধের আইন

১। কোন বিকলাঙ্গ বোলারকে চার ছক্কা মারলে ৭ ম্যাচ নিষিদ্ধ। এই আইনের বদৌলতে বুমরাহ কে সাব্বির, রিয়াদ, তামিম কেউ মানবিক কারণেই পিটাইবে না।

২। নিজ উচ্চতার চেয়ে অধিক উচ্চতার কোন বোলারকে চার ছক্কা মারলে ৩ মাস নিষিদ্ধ। এই আইন কেবল বিগ থির ব্যাটসম্যানদের বেলায় প্রযোজ্য হইবে না।

৩। ব্যাটের সাইজ হইতে হইবে শরীরের ওজনের সমানুপাতিক। এই আইনের বদৌলতে সাব্বির, মুশফিক, তামিম এরা কেবল টেপ টেনিস ব্যাটের ওজনের সমান ভারী ব্যাট দিয়াই খেলিবার সুযোগ পাইবে। যাহারা ভারতমাতার দেশের সনাতন ধর্মাবলম্বী তাহারা এই আইনের বাহিরে থাকিবে। কুলি ধবন এই তাই আইনের বাইরে।

৪। যারা গরুর মাংস খায় তারা স্লগ ওভারে গরুর মাংসের চর্বি হইতে উৎপন্ন হওয়া অধিক শক্তির ফায়দা নিয়া ছক্কা পিটাইতে পারবে না। যেইসব দেশের অধিকাংশ মানুষ শুকরের মাংসও খায় অথবা ভেজিটেরিয়ান তাহারা এই আইনের বাইরে থাকিবে।

বিশেষ আইনঃ

১। কোন লেফট আর্ম পেসার এক ওভারে একটার বেশি কাটার মারিলে ৬ মাস নিষিদ্ধ।

২। কোন লেফট আর্ম পেসার যদি একাধিকবার কাটার মারে তাইলে তাহাকে পরবর্তীতে ডানহাতে স্পিন বোলিং করিয়া স্পেল অথবা বাকী ওভার সমূহ সমাপ্ত করিতে হইবে।

৩। র‍্যাঙ্কিং এ প্রথম ছয়ের দেশের খেলোয়াড় এবং আইপিএল এ কুনু টিমের মেম্বার না হইলে চার ছক্কা মারা এবং উইকেট নেয়া নিষিদ্ধ ঘোষনা করা যাইতে পারে। তবে যাহারা বাদবাকী দেশের কেউ কোন টিমের সদস্য হইলেও তাহাদের জন্য উপরের সবগুলা আইন প্রযোজ্য হইবে। এই আইনের কারনে সাকিবও চার ছক্কা মারতে পারিবে না, মুস্তাফিজও উইকেট নিতে পারিবে না।

স্পেশাল আম্পায়ারস অথরিটি এক্ট

সন্দেহের উদ্রেক হওয়া মাত্রই বোলার নিষিদ্ধ করা যাইবে। ব্যাটসম্যানদেরও যাবে। তবে নিরপেক্ষতার স্বার্থে কেবলমাত্র বিগ থির সদস্য দেশগুলার আম্পায়ারগণই এই নিষিদ্ধকরণের সিদ্ধান্ত দিতে পারিবেন।

নাইলে এই আদ্র আন্ডির ইন্ডিয়ারে লইয়া কই যাই? কোন খোলা মাঠে যাই? কোন ঝোপ ঝাড়ে যাই??????!!!!!!!! ওগো দেশে তো জরুরী কাজকর্মু সম্পাদনের জইন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ হাগনকোঠিও (হিন্দীতে টয়লেটকে হাগনকোঠি বলা হয়) নাই!!!!!!!!!!!!!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *