দুধের মাছি সমর্থক ও আমাদের রাজপুত্র

বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম নিয়ে নতুন করে কিছুই বলার নেই । ওয়ানডে ক্রিকেটে আমরা এখন পৃথিবীর যেকোনো দলকে হারানোর ক্ষমতা রাখি । টেস্ট ক্রিকেটে যদিও উন্নতি করছি তবে পথ এখোনো বাকি । তবে উন্নতির ছাপ দেখা যাচ্ছে ইদানিং । এখন আমরা শক্ত প্রতিদ্ধন্দিতা গড়তে পারছি । এটাই বা কম কিসে ! আর টি২০ তে আমাদের দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স আমাদের দেখাচ্ছে নতুন দিনের আশার আলো ।
দলে এখন পারফরমারের ছড়াছড়ি । সিনিয়ররাও ভালো করছেন নিয়মিত । এসবের ভীড়ে একজন কিছুটা যেনো মলিন ।

হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন । সাকিব আল হাসান । মনে আছে নিশ্চয়, এইতো বছর দেড়েক আগেও একটা স্লোগান ছিলো ।
“বাংলাদেশের জান,সাকিব আল হাসান ।”


বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম নিয়ে নতুন করে কিছুই বলার নেই । ওয়ানডে ক্রিকেটে আমরা এখন পৃথিবীর যেকোনো দলকে হারানোর ক্ষমতা রাখি । টেস্ট ক্রিকেটে যদিও উন্নতি করছি তবে পথ এখোনো বাকি । তবে উন্নতির ছাপ দেখা যাচ্ছে ইদানিং । এখন আমরা শক্ত প্রতিদ্ধন্দিতা গড়তে পারছি । এটাই বা কম কিসে ! আর টি২০ তে আমাদের দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স আমাদের দেখাচ্ছে নতুন দিনের আশার আলো ।
দলে এখন পারফরমারের ছড়াছড়ি । সিনিয়ররাও ভালো করছেন নিয়মিত । এসবের ভীড়ে একজন কিছুটা যেনো মলিন ।

হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন । সাকিব আল হাসান । মনে আছে নিশ্চয়, এইতো বছর দেড়েক আগেও একটা স্লোগান ছিলো ।
“বাংলাদেশের জান,সাকিব আল হাসান ।”

আর আজ ?

কারো খারাপ সময় আসতেই পারে । টেন্ডুলকারের মতো ব্যাটসম্যান একটানা ৪ বছর ( ২০০৩-২০০৭ ) খুব একটা ভালো খেলেননি । পত্রপত্রিকায় লেখা হয়েছিলো, ” টেন্ডুলকার এখন এন্ডুলকার ।”

তিনি কিন্তু বীরদর্পে ফিরে এসেছিলেন ।

আমরা সাকিবের পারিবারিক জীবন নিয়ে টানাটানি করি । সাকিব খারাপ খেললে তার বউকে গালি দেই । সাকিবের মেয়ে কেনো আমেরিকায় জন্ম নিবে তা নিয়ে আমাদের মাথা ব্যাথা । কেনো ভাই ? সাকিবের কি ব্যাক্তিগত জীবন নেই ? সাকিব কি খারাপ খেলতে পারে না । ওকে কি প্রতিদিনই ভালো করতে হবে ?
আরেক দল আছে যারা বলে সাকিব দলের প্রয়োজনে আসে না । তাদের উত্তর দিতে আমার রুচিতে বাধে । শুধু এটুকুই বলবো, ২০০৮ থেকে এখন পর্যন্ত সাকিবের পারম্যান্সটা নেটে দেখে নিয়েন ।

আরেকদল বলে সাকিব বেয়াদব । হ্যাঁ । সাকিব বেয়াদব ।
এই বেয়াদবটা প্রথম আমাদের চিনিয়েছিলো বিশ্বসেরা হওয়ার স্বাদ কেমন । এই বেয়াদবটা আমাদের দেশের পতাকার ঝান্ডা উড়িয়েছিলো বিদেশী লীগ গুলোতে । এমনকি নাক উঁচু ব্রিটিশ কাউন্টিতেও । এই বেয়াদবটাকে সিপিএল-এ ৬ রানে ৬ উইকেট নেয়ার পর অহংকারী পোলার্ড কাঁধে তুলে নিয়েছিলো । এই বেয়াদবটা প্রয়োজনে ব্যাথানাশক ইনজেকশন নিয়ে খেলতে চায় প্রতিটা ম্যাচ । এই বেয়াদব নিজের খারাপ সময়ে মন খারাপ পর্যন্ত না করলেও এশিয়াকাপ ২০১২ -তে হেরে বোকা কান্না কাঁদে । আকাশের দিকে তাকিয়ে কান্না লুকোনোর ব্যার্থ চেষ্টার ছবিটা ক্রিকেট ইতিহাসেরই অন্যতম আবেগঘন ছবি ।

বাংলাদেশের সাংবাদিকরাও কম যায় না । ভদ্রতার খাতিরে আমি কারো নাম নেবো না । শুধু বলবো আমরা যে দুধের মাছি সমর্থকে পরিণত হয়েছি । তার দায় পুরোটাই ঔ সাংবাদিকদের । সাংবাদিকরা একটা প্লেয়ারের ক্যারিয়ার নষ্ট ও মনোবল ভেঙে দিতে যথেষ্ট ।

যাইহোক, আমাদের ভাবার সময় এসেছে । আমরা কি দুধের মাছি সমর্থক হবো নাকি হবো সুয়েব আলি,বশির চাচা,সুধিরের মতো সমর্থক ।

সাকিবের এখোনো অনেক কিছু দেয়ার বাকি । প্রয়োজন শুধু সাপোর্টের । একদা এই রাজপুত্রই আমাদের একা টেনে নিতো । আজ দলে অনেক পারফরমার । এই সময় আমাদের রাজপুত্র যদি ফর্মে ফিরে আসে বুঝে নিন কি অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *