রাগীব আলী: জালিয়াতির কারিগর, জঙ্গি অর্থায়নকারী

রাগীব আলী: জালিয়াতির কারিগর, জঙ্গি অর্থায়নকারী

টাকার কুমির রাগীব আলীর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের সাম্প্রতিক রায়টি না আসলে এদেশের মানুষ জানতোই না এই লোকটা কতটা ভণ্ড ও বিপদজনক।

সত্তরের দশকে এলাকায় চোর বলে পরিচিত অশিক্ষিত, কূটবুদ্ধির রাগীব আলী মুক্তিযুদ্ধের এক বছর আগে তার ভাইদের সাথে লন্ডন চলে যায়। কয়েক বছর সেখানে ডেকচি-পাতিল মেজে টাকা কামিয়ে দেশে ফিরে আসে জিয়াউর রহমানের আমলে। এসেই শুরু হয় সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনামাফিক জমি কেনা ও দখল প্রক্রিয়া।


রাগীব আলী: জালিয়াতির কারিগর, জঙ্গি অর্থায়নকারী

টাকার কুমির রাগীব আলীর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের সাম্প্রতিক রায়টি না আসলে এদেশের মানুষ জানতোই না এই লোকটা কতটা ভণ্ড ও বিপদজনক।

সত্তরের দশকে এলাকায় চোর বলে পরিচিত অশিক্ষিত, কূটবুদ্ধির রাগীব আলী মুক্তিযুদ্ধের এক বছর আগে তার ভাইদের সাথে লন্ডন চলে যায়। কয়েক বছর সেখানে ডেকচি-পাতিল মেজে টাকা কামিয়ে দেশে ফিরে আসে জিয়াউর রহমানের আমলে। এসেই শুরু হয় সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনামাফিক জমি কেনা ও দখল প্রক্রিয়া।

১৯৮৮ সালে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে তারাপুর চা বাগান ৪২২.৯৬ একর জমি দখল করে তৈরি করে রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ, লিডিং ইউনিভার্সিটি, মদিনা মার্কেট, আর শত শত প্লট।

সেইসব অপকর্ম বৈধ করতে সে ম্যানেজ করে সরকারি কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দলের নেতা, আইনজীবীদের। ফলে কয়েক দশকের মধ্যে এখন তার নামে-বেনামে হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি আছে সিলেট, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, ঢাকা ও অন্যান্য জায়গায়। আর এসব অপকর্মকে ঢাকতে সুপরিকল্পিতভাবে সে গড়ে তুলে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়-মেডিকেল কলেজ, মসজিদ-মাদ্রাসা, চালু করে স্কুল পর্যায়ের বৃত্তি, নিজের গুণগান গাইতে প্রতিষ্ঠা করে পত্রিকা সবুজ সিলেট।

জালিয়াতির কারিগর রাগীব আলী এর মধ্যে রাজনৈতিকভাবে সখ্যতা তৈরি করেছে সব দলের নেতাদের সাথে, তবে সিলেট জামায়াতের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে তার বিশেষ খ্যাতি আছে।

১৯শে জানুয়ারি শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে গঠিত বেঞ্চ রায় প্রদান করেন। রায়ে বলা হয়, ৬ মাসের মধ্যে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি না করে রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল অন্যত্র স্থানান্তর, কলেজ, আবাসনসহ অন্যান্য স্থাপনা সরিয়ে চা বাগানে রূপান্তর করতে হবে। শ্রী শ্রী রাধাকৃষ্ণ জিউ দেবতাকে যথাস্থানে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। পাশাপাশি ৭ দিনের মধ্যে সরকারের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ বাবদ নেয়া ৩০ লাখ ৭৬ হাজার ১৮৯ টাকা ২০ পয়সা সেবায়েতের নামে জমা দিতে হবে। চা রফতানি বাবদ আয়ের ৫ কোটি টাকাও সেবায়েতের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। কোতোয়ালি থানার মামলাগুলোও সচল করার নির্দেশনা দেয়া হয় রায়ে।

জঙ্গি সম্পৃক্ততা:

গোয়েন্দা সূত্র মতে, জঙ্গি অর্থায়ন ও জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ার জন্য যে কয়েকজন নজরদারীতে রাখা হয়েছে তাদের মধ্যে রাগীব আলী অন্যতম।

তার রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ থেকে গত বছরের সেপ্টেম্বর/অক্টোবরে এক বিশেষ অভিযানে সাত কাশ্মীরী জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ খবরও আসেনি কোথাও। কারণ এই অভিযান পরিচালিত হয়েছিল ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর অনুরোধে এবং ডিজিএফআই ও র‍্যাবের তত্ত্বাবধানে। অভিযানের সময় রাগীব আলী কলেজেই উপস্থিত ছিল। কিন্তু তাকে কিছু সময় আগেই অভিযানের সম্পর্কে জানিয়ে দেয়ায় তিনি দ্রুত একটি হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় গিয়ে সে রাতেই লন্ডনে পালিয়ে যায়।

তার অন্যতম শিষ্য খালিদুর রহমান চৌধুরী একজন জামায়াত নেতা ও ইউরোপের বাজারে সবজি রপ্তানীকারক। খালিদুরের ছেলে আরিফ আল ইমরান দুর্ধর্ষ শিবির নেতা যার সাথে ব্লগার রাজীব, লেখক অভিজিত রায় ও প্রকাশক দীপন হত্যার অন্যতম পরিকল্পনাকারী রেদওয়ানুল আজাদ রানার সখ্যতা আছে। এরা সবাই রাগীব আলীর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্র ছিল।

আরিফের বন্ধু মুশফিক আমেরিকায় বোমা হামলার পরিকল্পনাকারী নাফিসের বন্ধু। নাফিসের সাথে তাকেও গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। কিন্তু পরে ঘটনার সাথে সরাসরি সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। গত বছর আমেরিকান পুলিশ তাকে দেশে ফেরত পাঠায়। কিন্তু মুশফিক র‍্যাব-২ এর এক বড় কর্মকর্তার ছেলে হওয়ায় এ বিষয়ে কোন প্রতিবেদন কোন সংবাদ মাধ্যমে আসেনি।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী টাকার লোভ সামলে সঠিকভাবে তদন্ত করলে রাগীব আলীর সব অপকর্মের তথ্য বেরিয়ে আসবেই। সাথে আরো ভুরি ভুরি জঙ্গি নেতাদের যোগাযোগের প্রমাণ পাওয়া যাবে।

জমি জালিয়াতির কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ খবর:

* চা বাগান ও মেডিকেল কলেজ ছাড়তে হবে রাগীব আলীকে

* রাগীব আলীর অবৈধ রাজ্যে বিনিয়োগকারীরা বিপদে

* তারাপুর চা বাগান : উচ্ছেদ হচ্ছে ৩৩৭ প্লটও [

রিলেটেড ব্লগ-জঙ্গিদের মদদ দিচ্ছে যারা-অপ্রকাশিত অধ্যায়

৪ thoughts on “রাগীব আলী: জালিয়াতির কারিগর, জঙ্গি অর্থায়নকারী

  1. এই ব্যাটার সকল সম্পত্তি
    এই ব্যাটার সকল সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে সরকারী কোষাগারে জমা দেওয়া হোক। আন্তজার্তিক পুলিশ সংস্থার মাধ্যমে রাগীব আলীকে আটক করা হোক।

  2. এইরকম মুখোশধারী শয়তান আরও
    এইরকম মুখোশধারী শয়তান আরও রয়েছে। এদের চিরতরে ধ্বংস করে ফেলতে হবে।
    লেখককে ধন্যবাদ।

  3. উনি টাকা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রী
    উনি টাকা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রী কিনে নামের অগে ডঃ লিখেন এখন । এবং একই সাথে সৈয়দ নামক একটা পদবীও লাগিয়ে দিচ্ছেন ।

  4. উনি টাকা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রী
    উনি টাকা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রী কিনে নামের অগে ডঃ লিখেন এখন । এবং একই সাথে সৈয়দ নামক একটা পদবীও লাগিয়ে দিচ্ছেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *