রামপাল কয়লাভিত্তিক তাপ-বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত, সুন্দরবনকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা মাত্র।

সুন্দরবন ধ্বংসের পাঁয়তারা করা হচ্ছে,এই কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের মাধ্যমে। “ সরকার এমন একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে যার ৮৭ ভাগ মালিকানা থাকবে ভারতের হাতে। এই প্রকল্পের কয়লা কিনতে হবে ভারতের কাছ থেকে প্রতি টন ১৭৩ ডলার দামে যেখানে বাংলাদেশের বড়পুকরিয়ার কয়লার দাম প্রতিটন মাত্র ৮৪/৮৫ টাকা। এই কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ কিনতে হবে ১৪/১৫ টাকায় যেখানে দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিদ্যুতের দাম প্রতি ইউনিট ২ টাকা মাত্র। অর্থাৎ এ প্রকল্প অর্থনৈতিক দিক থেকে আমাদের জন্য মোটেই লাভজনক হবে না। বরং এ বিদ্যুৎকেন্দ্রর কারণে সুন্দরবন ধ্বংসের মুখে পড়বে।” কারন সুন্দরবনের পাশেই রামপাল। এতে ওই এলাকার মানুষ সর্ব দিক থেকে সমস্যার মুখে পরবে, এতো সমস্যার পর ও কোনও দিকে সরকার না তাকিয়ে জনস্বার্থহীন একটা প্রকল্প নিজেদের লাভের জন্য হাতে নিয়েছে। যা অমানবিক।

একটা কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে যে পরিমাণ কার্বন-ডাই-অক্সাইড, সালফার-ডাই-অক্সাইড, এসিড বৃষ্টি, নাইট্রোজেন-অক্সাইড, কার্বন-মনোঅক্সাইড, পারদ, সীসা ইত্যাদি বিষাক্ত পদার্থ নির্গত হয় তার পরিমাণ এতই বেশি যে এ ধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্রকে পরিবেশ দূষণের ক্ষেত্রে লাল ক্যাটাগরির স্থাপনা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে নির্গত পানি আশেপাশের নদী-জলাশয় দূষিত করে। ভারতের সুন্দরবন অঞ্চলে এবং মধ্যপ্রদেশে এ ধরনের একটি প্রকল্পের কথা থাকলেও কৃষি ও পরিবেশগত সমস্যার কারণে সেগুলি বাতিল করা হয়েছে। ভারতে বাতিল করা প্রকল্প আমাদের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা হচ্ছে। এই চেষ্টা কোনও ভাবে সফল করতে দেয়া যাবেনা।

আমাদের দেশের শাসকদের উদাসীনতা, পরিকল্পনাহীনতা, বাক্তিস্বার্থের কারনে, এমনকি কখনো কখনো স্বেচ্ছাকৃত ভূমিকার কারণে দেশের তেল গ্যাস কয়লা বহুজাতিক কোম্পানির কাছে চুক্তি করে আমাদের সাধারন মানুষের অধিকার শাসক গুষ্ঠি বার বার হরন করছে, এবং আমাদের বনাঞ্চল, নদ-নদী-জলাশয় এক কথায় গোটা পরিবেশই আজ ধ্বংসের মুখোমুখী।
এরকম একটি পরিস্থিতিতে কিছুতেই দেশের এবং আন্তর্জাতিক ভাবে পরিচিত আমাদের সুন্দরবনকে ধ্বংস করার কোনো অপচেষ্টা দেশবাসী মেনে নেবে না।

৭ thoughts on “রামপাল কয়লাভিত্তিক তাপ-বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত, সুন্দরবনকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা মাত্র।

  1. মেনে নেবোনা, মেনে
    মেনে নেবোনা, মেনে নেবোনা

    চিতকার, ম্যাতকার কইরা লাভ নাইরে পাগল।

    দেশ এহন অন্ধ মানুষে ভরপুর,
    হেরা হেফাজতে ব্যস্ত।
    কিসের হেফাজত তারা নিজেরাও জানেনা।

  2. এরা রাজাকারদের প্রতিষ্ঠিত
    এরা রাজাকারদের প্রতিষ্ঠিত করেছে,

    এরা জাতীয় সম্পদকে বিদেশী কোম্পানির হাতে তুলে দিচ্ছে,

    এরা খাম্বা মামুনকে দিয়ে মাইলের পর মাইল খাম্বা পুঁতেছে,

    এরা সীমান্তে ফেলানির লাশ ঝুলিয়েছে,

    এরা বিশ্বজিতকে মেরেছে,

    এরা হলমার্ক দুর্নীতি করেছে,

    এরা জোট এবং মহাজোট।

    আসুন এদেরকে আস্তাকুঁড়ে ছুড়ে ফেলি।

  3. যে কোন মূল্যে এই প্রকল্প
    যে কোন মূল্যে এই প্রকল্প থামাতে হবে। সুন্দরবন আমাদের গর্ব এবং রক্ষাকর্তা, সেটা আমরা সিডরের সময় খুব ভালো ভাবেই টের পেয়েছি। আশা করি সর্বমহলের চাপের মুখে সরকার এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে বাধ্য হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *