অামি বিপক্ষে, অাপনার মতামত কি?????

গত বছর ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধনের
কাজ শুরু হয়। তবে সম্প্রতি এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে গত ২৩
ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি এক চিঠিতে অপারেটরদের আঙ্গুলের
ছাপ সংরক্ষণ থেকে বিরত থাকতে বলেছে।
গত বছর ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধনের
কাজ শুরু হয়। তবে সম্প্রতি এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে গত ২৩
ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি এক চিঠিতে অপারেটরদের আঙ্গুলের
ছাপ সংরক্ষণ থেকে বিরত থাকতে বলেছে। টেলিযোগাযোগ
প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে
বলেছিলেন, মোবাইল অপারেটররা শুধু আঙ্গুলের ছাপ যাচাই
করছে; তারা আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করছে না। তবে

গত বছর ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধনের
কাজ শুরু হয়। তবে সম্প্রতি এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে গত ২৩
ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি এক চিঠিতে অপারেটরদের আঙ্গুলের
ছাপ সংরক্ষণ থেকে বিরত থাকতে বলেছে।
গত বছর ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধনের
কাজ শুরু হয়। তবে সম্প্রতি এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে গত ২৩
ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি এক চিঠিতে অপারেটরদের আঙ্গুলের
ছাপ সংরক্ষণ থেকে বিরত থাকতে বলেছে। টেলিযোগাযোগ
প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে
বলেছিলেন, মোবাইল অপারেটররা শুধু আঙ্গুলের ছাপ যাচাই
করছে; তারা আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করছে না। তবে
বিবিসির অনুসন্ধানে বলা হচ্ছে, টেকনিক্যাল কারণে প্রথম
দিন থেকেই আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করা হচ্ছে।
বিবিসির বিশ্লেষণ: আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করছে মোবাইল
অপারেটররা শিরোনামে প্রিয়.কমে একটি সংবাদ প্রকাশ
হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা
সমালোচনা হয়। সেখান থেকে কিছু পাবলিক রিঅ্যাকশন
পাঠকদের জন্ন দেওয়া হলো।
নোমান নামে একজন বলছেন, কয়দিন পর হয়তো বুথ
ট্রানজেকশন করতে কার্ড এর ব্যবহার থাকবে না। ফিঙ্গার
প্রিন্ট এর মাধ্যমে করতে হবে। তখন কি ভেবে দেখেছেন?
কি বিপদ আপনার জন্য অপেক্ষা করছে, বুঝতেই পেরেছেন
আপনার টাকা ফিঙ্গারপ্রিন্ট ম্যাচ করে খোয়া যাওয়া
তেমন কঠিন কিছু নয়। (আমার-আপনার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত
তথ্য কাদের কাছে দিয়েছি?) যারা কাস্টমার কেয়ারে
কল করলেও ব্যবসা খুজে। আমার আপনার তথ্য বিক্রি করতে
কতক্ষণ?
অপুর্ব ঘাগরা নামের এক ব্যক্তি বলছেন, যেখানে ন্যাশনাল
আইডি কার্ডেই ব্যক্তির পরিচয় রয়েছে সেখানে আঙ্গুলের
ছাপের কি দরকার।
ফাহমিদা মনীষা নামের এক নারী বলছেন, সরকার যে সিম
নিয়ে মানুষের সাথে কি শুরু করলো? কিভাবে পারে তারা
এত ঝামেলা তৈরি করতে? যার কাছে বিভিন্ন
অপারেটরের সিম আছে তাকে বিভিন্ন জায়গায় যেতে
হবে নিবন্ধন করাতে! এর অর্থ কি দাড়ায়?যার যত সিম তার
তত ঝামেলা। এছাড়া অনেক সিম ব্যবহারকারী আছে যারা
বয়ষ্ক মানুষ। তাদেরকে নিয়ে নিয়ে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে
আসা কি কম ঝামেলা?
সাগর অধিকারী সাজুর মতে, এই ছাপ দেওয়া আসলে
মারাত্মক ভুল কাজ,কারণ আমরা বিদেশী কোম্পানির
কাছে কিসের জন্য এই মুল্যবান ছাপ দিতে যাবো।আর সিম
হারিয়ে গেলে আমার নামের সিম নিয়ে কেউ বাজে কাজ
করলে তার জবাব আমি দিবো কেনো।
আসাদুর রহমান নামের একজন বলছেন, আমি বায়োমেট্রিকের
বিপক্ষে! আমেরিকার মত উন্নত দেশেও এ পদ্ধতি নেই! এখন
জিপিএ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের জন্য ৯
টাকায় ১ জিবির মত লোভনীয় অফার দিচ্ছে! মৌলিক
অধিকারের উপর বোনাস, এখন বুঝুন! বায়োমেট্রিক করব না,
দেখি কোম্পানি কিভাবে আমার সিম বন্ধ করে?
অনেকেই আছেন সিম ব্লক করে দেয়া হলেও আঙ্গুলের ছাপ
দিবেন না এমন মন্তব্য করছেন। ফয়েজ আহমেদ নামের এক
ব্যক্তি লিখেছেন, আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন
করবোনা, প্রয়োজনে সিম ব্লক হয়ে যাক।
### সিম নিবন্ধনে ফিঙ্গার প্রিন্ট বন্ধে লিগ্যাল নোটিশ ###
সিম নিবন্ধনের ক্ষেত্রে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে ফিঙ্গার
প্রিন্ট সংগ্রহ বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে সরকারকে লিগ্যাল
নোটিশ পাঠিয়েছেন এক আইনজীবী। আজ সুপ্রিম কোর্টের
আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লব এ নোটিশ পাঠান।
ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব, আইন সচিব, বিটিআরসি,
পুলিশের আইজিপি, ডিএমপি কমিশনার, গ্রামীণফোন, রবি,
এয়ারটেল, বাংলালিঙ্ক, টেলিটক ও সিটিসেল কর্তৃপক্ষকে
নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে
নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে
নোটিশের জবাব না দিলে হাইকোর্টে রিট মামলা করা হবে
বলে জানিয়েছেন এ আইনজীবী। আইনজীবী হুমায়ন কবির পল্লব
জানান, ফিঙ্গার প্রিন্ট সংগ্রহ পদ্ধতি সম্পূর্ণ অবৈধ।
বেসরকারিভাবে ফিঙ্গার প্রিন্ট সংগ্রহ করার পর এর
অপব্যবহারের আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণেই আইনি নোটিশ
পাঠিয়েছি।
সূত্রঃ ইন্টারনেট

৪ thoughts on “অামি বিপক্ষে, অাপনার মতামত কি?????

  1. আঙ্গুলের ছাপের মাধ্যমে পুরা
    আঙ্গুলের ছাপের মাধ্যমে পুরা দেশের জনগোষ্টির ব্যক্তিগত তথ্য খোলা বাজারে বেচা কেনা করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মোবাইল ব্যবহার করা বন্ধ করে দেওয়াই ভাল, তারপরও ব্যক্তিগত তথ্য খোলাবাজারে বিক্রি করব না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *