বাস্তবতাকে যখন শুধু স্বপ্নেই দেখা যায় (১ম পর্ব)

চোখ খুললেই ভূতুরে লাগে আশেপাশের সবকিছু, চোখ বুজলে সব অদ্ভূতুরে । কিছুটা ইতিহাস ঘাটলেই মন্দ কি?
তখন যখন ফেইসবুক ছিল না, অ্যান্ড্রয়েড ছিল না, ওই লাউড-স্পীকার ফীচারের সাজেম ফোনটা স্বপ্ন দেখাতো, বাবার মতো বড় হয়ে চাকরি করে যখন অনেকগুলা টাকা হবে তখন অমন একটা ফোন কিনবো । ওটা নিয়ে যখন গ্রামে যাবো তখন সবার কৌতূহলের কেন্দ্রবিন্দুতে বসে বেশ ভাব নেয়া যাবে ।

এখন সাজেম জাদুঘরেও নেই, স্মার্টফোনরা তার অস্তীত্ব বিলীন করে দিয়েছে, কিন্তু আজও সেই বড় হওয়া হলো না, বড় হওয়ার আগেই যদি বড় হওয়ার খায়েশ মিটে যায় তাহলে বড় হবো কেন?

চোখ খুললেই ভূতুরে লাগে আশেপাশের সবকিছু, চোখ বুজলে সব অদ্ভূতুরে । কিছুটা ইতিহাস ঘাটলেই মন্দ কি?
তখন যখন ফেইসবুক ছিল না, অ্যান্ড্রয়েড ছিল না, ওই লাউড-স্পীকার ফীচারের সাজেম ফোনটা স্বপ্ন দেখাতো, বাবার মতো বড় হয়ে চাকরি করে যখন অনেকগুলা টাকা হবে তখন অমন একটা ফোন কিনবো । ওটা নিয়ে যখন গ্রামে যাবো তখন সবার কৌতূহলের কেন্দ্রবিন্দুতে বসে বেশ ভাব নেয়া যাবে ।

এখন সাজেম জাদুঘরেও নেই, স্মার্টফোনরা তার অস্তীত্ব বিলীন করে দিয়েছে, কিন্তু আজও সেই বড় হওয়া হলো না, বড় হওয়ার আগেই যদি বড় হওয়ার খায়েশ মিটে যায় তাহলে বড় হবো কেন?
বড় হতে দেয় নি আমাকে এই স্মার্টফোন আর ফেইসবুকের আধুনিকতা, কিংবা কখন বড় হয়ে গেছি খেয়াল করি নি হয়তো ।

হাসানের সাথে ছোটাছুটি করতাম, কতো পরীর রাজ্যে পারি দিয়েছি দুজনে তার সাক্ষী ব্রীজের উপর বসতো যে, সেই বোবা ফকির আর উপরওয়ালা । একবার যে পরীদের দেশে পারাপারি করতে করতে ড্রেনের উপর পরে মাথা ফাটালাম, তারপর আর হাসানের কথা মনে পরে না, কখনো যে “হাসান আমার বেস্ট ফ্রেইন্ড ছিল” এটা ভাবা লাগতে পারে, সেটাই কখনো ভাবি নাই ।

হাসানের তো আজ অভাব নাই, ফেসবুকের হাসান, ভার্সিটির হাসান, কলেজের হাসান… শুধু পার্থক্য, তখন বাস্তবতায় থেকে কল্পনায় পারি দেয়া হতো, আর এখন ফেইসবুকে বসে হাসানকে আর সেই বোবা ফকিরকে খুঁজি, তাদেরকে মিস করছি সে স্ট্যাটাস দেই ।

সব অদ্ভুত এই ভূতুরেপনায় সরবত হয়ে গেছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *