অভিজিৎ রায়: আলো হাতে পথ চলা শুরু করেছিলো যে আঁধারীর যাত্রী

আচ্ছা তুমি যদি জানতে আজকের সন্ধ্যাটাই বইমেলায় তোমার শেষ সন্ধ্যা তাহলে তুমি কি করতে? আরো দুয়েকটা বই বেশি কিনে ফেলতে? কিন্তু পড়ার সুযোগ পেতে না যে! বা মেলায় বসে আরো দুয়েকজনের সাথে আড্ডা মেরে নিতে? নাকি রাগে, দুঃখে, ক্ষোভে চলে যেতে দূরে সব ছেড়ে ছুড়ে?
কেন গেলে না? তাহলে তো এভাবে কুকুরগুলোর হাতে মরতে হত না।

আচ্ছা, ওরা তোমায় মারলো কেন? তুমি তো কাউকে মারতে চাওনি! তুমি তো মানবতা আর বিজ্ঞানের জয়গান গেয়েছিলে! তুমি তো সবার মনে মুক্তচিন্তা আর শুভবুদ্ধির উদয় ঘটিয়েছিলে! ধর্মীয় কুসংস্কারগুলোকে দেখিয়ে দিয়েছিলে চোখে আঙ্গুল দিয়ে! এটাই কি ছিলো তোমার অপরাধ?


আচ্ছা তুমি যদি জানতে আজকের সন্ধ্যাটাই বইমেলায় তোমার শেষ সন্ধ্যা তাহলে তুমি কি করতে? আরো দুয়েকটা বই বেশি কিনে ফেলতে? কিন্তু পড়ার সুযোগ পেতে না যে! বা মেলায় বসে আরো দুয়েকজনের সাথে আড্ডা মেরে নিতে? নাকি রাগে, দুঃখে, ক্ষোভে চলে যেতে দূরে সব ছেড়ে ছুড়ে?
কেন গেলে না? তাহলে তো এভাবে কুকুরগুলোর হাতে মরতে হত না।

আচ্ছা, ওরা তোমায় মারলো কেন? তুমি তো কাউকে মারতে চাওনি! তুমি তো মানবতা আর বিজ্ঞানের জয়গান গেয়েছিলে! তুমি তো সবার মনে মুক্তচিন্তা আর শুভবুদ্ধির উদয় ঘটিয়েছিলে! ধর্মীয় কুসংস্কারগুলোকে দেখিয়ে দিয়েছিলে চোখে আঙ্গুল দিয়ে! এটাই কি ছিলো তোমার অপরাধ?

এই অপরাধেই কি ধর্মের সৈনিকরা কুপিয়ে হত্যা করলো তোমাকে?
তোমার রক্তে সিক্ত হলো ধর্ম অধ্যুষিত এই জনপদের মাটি। তারা ভেবেছিলো তারা হত্যা করেছে মুক্তচিন্তা আর মানবতাকে।
হাহ্! হাহ্! কিন্তু তারা বুঝতে পারেনি, তোমার রক্তে যে আদর্শ ছিলো তা ছড়িয়ে গিয়েছে কিছু অবিশ্বাসীর মনে!
ওরা বলে তুমি আর নেই, তুমি হারিয়ে গিয়েছো। কিন্তু ওরা তো উন্মত্তের প্রলাপ বকছে! তারাই যে আসলে নেই, যারা তলোয়ার হাতে সেজে থাকে ধর্মের রক্ষক!

তুমি তো অাছো আমাদের অন্তরের দর্শনে, থাকবে চিরকাল! তোমার রক্ত ঝরেছে এদেশের মাটিতে, সে রক্ত বৃথা যেতে পারেনা। সে রক্তে রাঙিয়ে দিয়ে গিয়েছো তুমি আমাদেরকে!

আলো হাতে আঁধার হতে যে পথচলা তুমি শুরু করেছিলে, আজ তুমি নেই কিন্তু তোমার হাতের সেই আলো আছে, তোমার দেখানো সেই পথ অাছে!
আজ তোমার সেই আলো হাতে তোমার দেখানো পথে আঁধার কাঁটিয়ে পথ চলছে এক প্রজন্ম! সে এক নতুন প্রজন্ম! নতুন অধ্যায়!

২ thoughts on “অভিজিৎ রায়: আলো হাতে পথ চলা শুরু করেছিলো যে আঁধারীর যাত্রী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *