আদর্শের বলিদান

কারাগারে থাকার মধ্যে যেমন কোন মহত্ব নেই তেমনি আদর্শের মধ্যে থাকাও মহত্বহীন। আদর্শের মধ্যে থাকা আর কারাগারে থাকা একই কথা। একটা মানুষ ছোটবেলা থেকে যে আদর্শে বড় হয়েছে সে স্বভাবত তার ছোটবেলার আদর্শকে খুব সহজে বলি দিতে পারে না। আদর্শকে (যদি) দুই প্রকার বলি, ভাল ও খারাপ। স্বভাব ও চরিত্রের মিশ্রনকে (যদিও এটা প্রকৃত নয়) আদর্শ কল্পনা করলে ভাল আদর্শের মানুষেরা হয় অতিশয় নম্র, ভদ্র, বাধ্যগত,সুস্থ ও নিরোগ মানসিকতার অধিকারী। আর খারাপ আদর্শের মানুষেরা ঠিক তার উল্টো যেমন উগ্র, অভদ্র, জানোয়ার, খচ্চর, প্যারাসাইটিক মানসিকতার অনুভুতিহীন বস্তু।

কারাগারে থাকার মধ্যে যেমন কোন মহত্ব নেই তেমনি আদর্শের মধ্যে থাকাও মহত্বহীন। আদর্শের মধ্যে থাকা আর কারাগারে থাকা একই কথা। একটা মানুষ ছোটবেলা থেকে যে আদর্শে বড় হয়েছে সে স্বভাবত তার ছোটবেলার আদর্শকে খুব সহজে বলি দিতে পারে না। আদর্শকে (যদি) দুই প্রকার বলি, ভাল ও খারাপ। স্বভাব ও চরিত্রের মিশ্রনকে (যদিও এটা প্রকৃত নয়) আদর্শ কল্পনা করলে ভাল আদর্শের মানুষেরা হয় অতিশয় নম্র, ভদ্র, বাধ্যগত,সুস্থ ও নিরোগ মানসিকতার অধিকারী। আর খারাপ আদর্শের মানুষেরা ঠিক তার উল্টো যেমন উগ্র, অভদ্র, জানোয়ার, খচ্চর, প্যারাসাইটিক মানসিকতার অনুভুতিহীন বস্তু।
এখন কল্পনা করুন কারা কারাগারে থাকে? ভাল আদর্শের মানুষ, তারা না পারে ছোটবেলার আদর্শ ভাঙ্গতে না পারে আধুনিক অধ্যুষিত সমাজের সাথে তাল মেলাতে। তবে একথা সত্য যে তারা নিজেদেরকে অনেক মহৎ ভাবে। কিন্তু এর মধ্য কোনো স্বার্থকতা নেই কারন তারাই, একমাত্র তারাই কারাগারে বাস করে। বিকৃত মানসিকতার মানুষগুলো তো আর বন্ধি থাকে না তারা তো ছোটবেলা থেকেই মুক্ত (যে কোন খারাপ কাজ তারা করতে পারে)। তাদের পরিপার্শ্বকতা ছোটবেলা থেকেই খারাপ আদর্শের শিক্ষা দিচ্ছে যেটাকে তারা ভালই তাল মেলাতে পারছে এই আধুনিক পরিস্থিতিতে।
ভাল আদর্শের মানুষেরা কি দিয়ে মহত্ব দেখাবে বলুন? এই সমাজে তো তাদের আদর্শের কোন দামই নেই। তারা পারছে না তাদের মনের কথাগুলো সবার সামনে তুলে ধরতে, তাদের সুস্থ অনুভুতি গুলো প্রকাশ করতে, এমনকি তারা আজ বলতে পারছে না যে “এটা ভুল এটা করো না”। কারন তারা সত্যের আদর্শের কারাগারে বন্ধি হয়ে আছে।
মানুষ হলো সবথেকে উন্নততর প্রাণি। অন্যান্য প্রাণিদের থেকে এদের সবচেয়ে যুক্তিযুক্ত পার্থক্য হল কথা বলার ক্ষমতা। কিন্তু এটাই সত্যি যে, মানুষদের কথা বলার এই চরম ক্ষমতা থাকা সত্বেও এমন কতিপয় কথা থাকে যেগুলো একজন ভাল আদর্শযুক্ত মানুষের পক্ষে ব্যাক্তযোগ্য নয়। সারাজীবন রক্তচাপা দিয়ে বয়ে নিয়ে বেড়াতে হয় সে কথা। লেপ্টে থাকে সেখানে ঠিক যেখানে ইচ্ছা,আকাঙ্ক্ষাগুলোর জন্ম হয়।

১ thought on “আদর্শের বলিদান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *