ডেস্পারেট জিহাদি!

পরকালে হুর লভিবার উদ্দেশ্যে তৎকালীন
(মুহম্মাদীয় যুগের) সাহাবীগণ যে কতটা
ডেস্পারেট ছিলেন, তা বোঝা যাবে নিচের
ঘটনা থেকে :
.
হযরত আমর ইবনে জামূহ খোড়া ছিলেন । তার
চার পুত্র ছিল যারা অধিকাংশ সময়ে হুযূর
মোহাম্মাদের খেদমতে হাজির থাকতেন এবং
বিভিন্ন যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতেন । উহুদের যুদ্ধে
আমর ইবনে জামূহর আগ্রহ সঞ্চারিত হলো যে,
তিনিও যুদ্ধে যাবেন ! লোকেরা বলল, তুমি তো
মাজুর মানুষ, খোঁড়া মানুষ, তুমি কেন যুদ্ধে
যাবে ? তিনি জবাব দিলেন, আমার ছেলেরা
জান্নাতে যাবে আর আমি ঘরে বসে থাকব ?
(লুক, তখনকার যুগে শহীদ হওয়া মানেই- নিশ্চিত
জান্নাত !)
.
আমর অতঃপর এটা শুনে অস্ত্র নিলেন এবং

পরকালে হুর লভিবার উদ্দেশ্যে তৎকালীন
(মুহম্মাদীয় যুগের) সাহাবীগণ যে কতটা
ডেস্পারেট ছিলেন, তা বোঝা যাবে নিচের
ঘটনা থেকে :
.
হযরত আমর ইবনে জামূহ খোড়া ছিলেন । তার
চার পুত্র ছিল যারা অধিকাংশ সময়ে হুযূর
মোহাম্মাদের খেদমতে হাজির থাকতেন এবং
বিভিন্ন যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতেন । উহুদের যুদ্ধে
আমর ইবনে জামূহর আগ্রহ সঞ্চারিত হলো যে,
তিনিও যুদ্ধে যাবেন ! লোকেরা বলল, তুমি তো
মাজুর মানুষ, খোঁড়া মানুষ, তুমি কেন যুদ্ধে
যাবে ? তিনি জবাব দিলেন, আমার ছেলেরা
জান্নাতে যাবে আর আমি ঘরে বসে থাকব ?
(লুক, তখনকার যুগে শহীদ হওয়া মানেই- নিশ্চিত
জান্নাত !)
.
আমর অতঃপর এটা শুনে অস্ত্র নিলেন এবং
কেবলামুখী হয়ে এই দোয়া করলেন :
“হে আল্লাহ ! আমাকে আর পরিবারবর্গের
দিকে ফিরাইয়া আনিও না ।” অতঃপর
মুহাম্মাদের দরবারে উপস্থিত হয়ে আপন
কওমের লোকদের নিষেধ করা এবং নিজের
আগ্রহের কথা প্রকাশ করলেন এবং বললেন,
আমি আশা করি আমি আমার খোড়া পা নিয়ে
জান্নাতে চলাফেরা করব ।
আগ্রহ প্রকাশের পর মুহাম্মাদ তাকে অনুমতি
দিলেন যুদ্ধে যাওয়ার । একজন প্রত্যক্ষদর্শী
হিসেবে আবু তালহা বলেন, আমি আমরকে
যুদ্ধক্ষেত্রে দেখেছি যে, তিনি বীরদর্পে
যাচ্ছিলেন এবং বলছিলেন, খোদার কসম !
আমি জান্নাতের আগ্রহী ! তার এক পুত্রও তার
পেছন পেছন দৌড়িয়ে যাচ্ছিল । অতঃপর
পিতাপুত্র উভয়েই যুদ্ধ করতে করতে শাহাদত
বরণ করলেন !
এখানে একটা ব্যাপার লক্ষ্যণীয় যে, জান্নাত
পাবার লোভ মানুষকে এতটাই এবং এমনভাবে
প্রোগ্রামিং করে তোলে যে, সে আর
পার্থিব কোনো কিছুর তোয়াক্কা করে না !
ফলাফর স্বরূপ, আত্মঘাতী হামলা থেকে শুরু
করে জিহাদে জড়িয়ে যাওয়াও কোনো
ব্যাপার না !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *