আর কত ব্যবসা!

সবাইকে শুভেচ্ছা।
আজ সন্ধায় আমার টেবিলে বসে পড়ছিলাম। আমি যখন পড়ি তখন যদি আমার কানে কোন শব্দ আসে তাহলে আমার পড়া হয় না। হঠ্যাৎ শুনতে পেলাম কয়েক জন মিলে গজল গাইছে। ভাবলাম পাশের বাসার ছেলেরা মনে হয় গাইছে,কিছু সময় পর হয়ত থামবে। এর মধ্যে পড়ায় মন দেয়ার চেষ্টা করলাম, কিন্তু শব্দের জন্য আর পড়ার দিকে মন দিতে পারলাম না।এদিকে প্রায় ১০ মিনিট হয়ে গেলো কিন্তু গজল আর থামছে। মনে মনে ভাবছি, ব্যাপার কি এত ক্ষণেও শেষ হচ্ছে না কেন?

সবাইকে শুভেচ্ছা।
আজ সন্ধায় আমার টেবিলে বসে পড়ছিলাম। আমি যখন পড়ি তখন যদি আমার কানে কোন শব্দ আসে তাহলে আমার পড়া হয় না। হঠ্যাৎ শুনতে পেলাম কয়েক জন মিলে গজল গাইছে। ভাবলাম পাশের বাসার ছেলেরা মনে হয় গাইছে,কিছু সময় পর হয়ত থামবে। এর মধ্যে পড়ায় মন দেয়ার চেষ্টা করলাম, কিন্তু শব্দের জন্য আর পড়ার দিকে মন দিতে পারলাম না।এদিকে প্রায় ১০ মিনিট হয়ে গেলো কিন্তু গজল আর থামছে। মনে মনে ভাবছি, ব্যাপার কি এত ক্ষণেও শেষ হচ্ছে না কেন?
খেয়াল করে দেখলাম এক কথা বার বার বলছে। ঘটনাটা দেখার জন্য জানালা দিয়ে নিচের দিকে তাকিয়ে দেখি অবাক করা কান্ড। কিছু তরুন ছেলে গজল গাইছে আর ভিক্ষা করছে।দেখলাম লোক জন তাদের হাতে এসে টাকা দিয়ে যাচ্ছে।তাদের পোশাক দেখে বোঝা যাচ্ছিল যে তারা মাদ্রাসার ছাত্র।তাদেরকে এর আগেও একদিন আমার কলেজ এর সামনে ভিক্ষা করতে দেখেছিলাম।তাদের ব্যাবসা হচ্ছে ভিক্ষা করা।আজ কাল কি এসব মাদ্রাসায় ভিক্ষা করার প্রশিক্ষণ দেয় নাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *