আধুনিক দোস্ত

যে সাপের গালেও চুমু খায় আবার ব্যাঙ্গের গালেও চুমু খায় সেই সম্ভবত পারসিস্ট করতে পারে, অনেকটা “তোষামোদ করে প্রিয়” হবার মত। সহজ কথায় চাটুকার বলে যেটাকে। এদের স্বভাব একেবারে ইউনিক, নিজের প্রশংসা নিজে করতে ব্যস্ত থাকে।একেবারে নির্লজ্জ বললেও বোধহয় ভুল হবে না। কারন যারা নিজের ঢাক নিজে পেটায় তাদের মত নির্বোধ আর কি হতে পারে। আর নির্বোধরা মনে হয় নির্লজ্জই হয়। যে কথা বলছিলাম, এদের বন্ধুর সংখ্যাও আবার বেশি হয় কারন নিয়মিত চুমু খায় তো তাই তাছাড়া নির্লজ্জই তো নির্লজ্জকে চিনে। কোরবানিকালিন যেরকম সিজোনাল গরু পাওয়া যায় এদেরও সেরকম কিছু সিজোনাল দোস্ত জুটে যারা ঐ সিজোনের চাহিদা মেটায়। এই সব দোস্তরাও আবার সেইরকম স্মার্ট সাজে কারন নিয়মিত চুমু পাচ্ছে যে। এদের প্রশংশা করলে তো করো কারো পা মাটিতেই পড়েনা কারন তাদের চাটুকার দোস্ত তো আগেই কাজ শেষ করে বসে আছে। এইসব দোস্তদের নিয়মিত কথাবার্তা, চালচলন, ভাবভঙ্গি(চুমাচুমি) দেখলে সহজেই এদের মূর্খতার পরিচয় মেলে। ছেলে চাটুকার বন্ধুর “দোস্ত” যদি আবার মেয়ে হয় তাহলে তো আরো মুশকিল, কথায় কথায় দোস্তের গল্প।যেন ফুরাইই না গল্প। আবার ঐসব মেয়ে “দোস্ত”রাও চাটুকার টাইপের তো তাদেরও অনিষ্ঠকারী কম থাকে না কারন একে তো তারা মেয়ে তার উপর আবার নির্লজ্জ। তাই এক শ্রেণীর চাটুকার সমাজের বন্ধু যাদের কথা এতক্ষন বললাম তারা গিয়ে ঐ সমস্ত “দোস্তদের” অশুভাকাঙ্খিদের গালেও চুমু খায়। ফলে তারা দুদিকেই চমৎকার সাফল্য অর্জন করছে। এরাই তো বুকফুলিয়ে গল্প করবে আমার এতগুলো দোস্ত আছে, তারা আমার জন্য সব করতে পারে ব্লা ব্লা ব্লা। কিন্তু মেঘের আড়ালে থাকা প্রকৃত বন্ধুদের এরা কখনোয় খুজে পায় না আর পাবেও না।এই সব নির্লজ্জরা এরা নিজের ঢাক নিজে পিটিয়ে, নিজে নিজে বড় হয়ে প্রকৃত বন্ধুদের মর্ম হারাচ্ছে, দোস্তদের মন যোগাচ্ছে কিছু মনগড়া মিথ্যাদিয়ে যা শোনার জন্য/ জানার জন্য/ পাওয়ার জন্য ঐ সমস্ত “দোস্ত”রাও পাগল। তারা বুঝতে পারে না প্রকৃত বন্ধুর আসল চেহারা কিরকম হয় কারন আজ তারা বাচাল, নির্বোধ, চাটুকার, মিথ্যাবাদি, প্রতারক, ভন্ড কিছু “বন্ধুর” চুমু গালে ধারন করে আছে।
ব্যাঙ্গ তো না হয় সহজ সরল একটা প্রাণি তাই হয়তো কিছুই বুঝতে পারে না, কিন্তু সাপ তো একটু হলেও চালাক , তারা একদিন না একদিন ঠিকই বুঝবে আর জায়গামতো ছোবল বসাবে। সেই সুদিনের অপেক্ষা করব আমরা সবাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *